একজন সরকারি কর্মচারী অবসরগ্রহণ করিলে নিজে বা কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করিলে তাহার পরিবার নিম্নোক্ত সুবিধাদি পাইবেন।

(ক) মাসিক পেনশন:

অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী আজীবন মাসিক পেনশন পাইবেন। ইহাছাড়া ১০০% পেনশন সমর্পণকারীগণের পেনশন পুন:স্থাপন হওয়ার ক্ষেত্রেও আজীবন মাসিক পেনশন প্রাপ্য হইবেন। (পেনশন সহজীকরণ আদেশ, ২০২০)।

(খ) আনুতোষিক:

অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী অবসরগ্রহণের সময় মোট পেনশনের বাধ্যতামূলকভাবে সমর্পনকৃত অংশের জন্য আনুতোষিক টেবিলে বর্ণিত নির্ধারিত হারে আনুতোষিক পাইবেন। (পেনশন সহজীকরণ আদেশ, ২০২০)।

(গ) এককালীন বিশেষ আর্থিক সহায়তা

চাকরির মেয়াদ ৫ বছর পূর্ণ হওয়ার পূর্বে কোনো কর্মচারী স্বাস্থ্যগত কারণে অক্ষম হইয়া পড়িলে, অথবা মৃত্যু হইলে, চাকরির মেয়াদের প্রতি বৎসর কিংবা উহার অংশ বিশেষের জন্য তাঁহার শেষ আহরিত ০৩ (তিন)টি মূল বেতনের সমপরিমাণ হারে তিনি অথবা তাঁহার পরিবার ১লা জুলাই, ২০১৬ তারিখ হইতে এককালীন বিশেষ আর্থিক সহায়তা প্রাপ্য হইবেন। (পেনশন সহজীকরণ আদেশ, ২০২০ এর সংযোজনী -১৯)।

(ঘ) চিকিৎসা ভাতা, উৎসব ভাতা ও বাংলা নববর্ষ ভাতা:

পেনশনার/ শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী/ পুন:স্থাপিত পেনশনার/ পরিবার (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) মাসিক পেনশনের পাশাপাশি সরকার কর্তৃক নির্ধারিত হারে চিকিৎসা ভাতা, উৎসব ভাতা ও বাংলা নববর্ষ ভাতা প্রাপ্য হইবেন। (পেনশন সহজীকরণ আদেশ, ২০২০ এর অনুচ্ছেদ-২.০৪)।

(ঙ) চিকিৎসা সুবিধা:

চিকিৎসা সুবিধা বিধিমালা, ১৯৭৪ অনুসারে অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী ও তাঁহার পরিবার সরকারি হাসপাতালে বিনা খরচে চিকিৎসা সুবিধা পাইবেন।

(চ) যৌথবীমা ও কল্যাণ তহবিলের সুবিধা:

(১) কর্মচারী শারীরিক বা মানসিক অসুস্থ্যতার কারণে অপসারিত হইলে বা অবসর গ্রহণ করিলে ১৫ বৎসর পর্যন্ত কল্যাণ অনুদান পাইবেন। (২) কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করিলে পরিবার নির্ধারিত হারে যৌথবীমার অর্থ ও কল্যাণ অনুদান পাইবেন। (৩) অবসরগ্রহণের ১০ বৎসরে মধ্যে মৃত্যুবরণ করিলে পরিবার নির্ধারিত হারে কল্যাণ অনুদান পাইবেন।

সরকারি কর্মচারীগণের পেনশন সহজীকরণ আদেশ, ২০২০

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 3010 posts and counting. See all posts by admin

6 thoughts on “অবসর গ্রহণ ও কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুর ক্ষেত্রে প্রাপ্য সুবিধাদি।

  • Husband jebito thakakalin pension punosthapito hoyni bole ekon amarder moto kisu widow wifeder name pension pinosthapito hobar kono news bolben please.

  • এখনও হয়নি। হলে অবশ্যই আপনাকে জানানো হবে।

  • আমার পেনশন পুনঃস্থাপিত হয়েছে 2018 সালে 2000 সালের নভেম্বর পর্যন্ত পেনশন ভাতা পেয়ে আসো আসছিলাম কিন্তু কিন্তু 2020 সালের ডিসেম্বর হইতে অদ্যবধি পেনশন বন্ধ আছে যদিও আমি 2020 সালের মার্চ মাসে একটি পূরণ করে দিয়েছি। আমার পেনশন ব্যাংক একাউন্টে জমা হচ্ছে না। আমি বাংলাদেশ রেলওয়ে হিসাব বিভাগের একজন পেনশনার। আমার পেনশন ব্যাংকে কিভাবে পেতে পারি তাহার সুব্যবস্থা জন্য রেলমন্ত্রনালয় কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি।

  • সংশ্লিষ্ট পে পয়েন্টে যোগাযোগ করুন। তার পূর্বে আপনি পেনশন ও ফান্ড ম্যানেজমেন্ট শাখায় যোগযোগ করুন। https://bdservicerules.info/%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%A8%E0%A6%B6%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-pension-statement-%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%A8%E0%A6%B6%E0%A6%A8-active-%E0%A6%86%E0%A6%9B%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%BF/

  • আমার স্ত্রী বেসরকারি কলেজের শিক্ষক ছিলেন। মাত্র ১২ বছর চাকরি করার পর মারা যান। সেই সময় তার প্রাপ্তি বেতন ছিল 28000/। বেসরকারি অবসর ভাতা নির্ণয় কিভাবে হবে জানাবেন প্লিজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *