পদোন্নতিতে কর্মকর্তা বনাম কর্মচারী আর্থিক সুবিধায় বৈষম্য বিস্তারিত।

জাতীয় বেতন স্কেল জারির পর পদোন্নতি জনিত আর্থিক বেনিফিট দারুন ভাবে বৈষম্য সুষ্টি করেছে সরকারি কর্মচারী ও কর্মকর্তার মধ্যে। পে-স্কেল ২০১৫ অনুসারে একজন কর্মচারী ও কর্মকর্তা পদোন্নতি পেলে কি পরিমান আর্থিক সুবিধা প্রাপ্য হন তা নিয়ে আজ আলোচনা করবো।

চাকরি জীবনের কয়টি পদোন্নতি পাওয়া যায়?

কিছু পদে কোন পদোন্নতি নাই শুধুমাত্র উচ্চতর গ্রেড পেয়ে কিছু আর্থিক সুবিধা পাওয়া যায়। বর্তমানে উচ্চতর গ্রেড পেলে বেতন বাড়ে বরং বেতন কমে যায়। এমতাবস্থায় রিট চলমান অবস্থায় রয়েছে তাই অনেকে উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। একজন সরকারি কর্মচারী বা কর্মকর্তা তার চাকরি জীবনে প্রায় ৪-৫টি পদোন্নতি সুবিধা পেয়ে থাকে। কর্মকর্তার চেয়ে কর্মচারীর আর্থিক সুবিধা যে খুবই ক্ষীন তাই আজ আলোচনা করবো।

কর্মকর্তার পদোন্নতিতে আর্থিক সুবিধা কত টাকা পর্যন্ত হতে পারে?

কর্মকর্তা বলতে ১-১০ তম গ্রেড ধারী কর্মচারীদের বুঝানো হয়। একজন কর্মকর্তা পদোন্নতিকালে বেশই ভাল মানের আর্থিক সুবিধা ভোগ করে থাকে। একটি উদাহরণের সাহায্যে বিষয়টি পরিস্কার করা যাক,

ধরি, জনাব সিদ্দিকুর রহমান, সহকারী বেতার প্রকৌশলী ৯ম গ্রেডে যোগদান করে ৫ বছর পূর্ণ হওয়ায় ৬ষ্ঠ বছর পদোন্নতি পেয়ে উপ আঞ্চলিক প্রকৌশলী পদে ৬ ষ্ঠ গ্রেডে উন্নীত করা হলো। তাহলে তার বেতন ভাতাদি নিম্নরুপ হারে পরিবর্তিত হবে।

৯ গ্রেডে মূল বেতন ১৫০০০ টাকায় যোগদান করে ষষ্ঠ বছরে তার মূল বেতন দাড়ায় ২৯,৫১০ টাকা। উপ আঞ্চলিক প্রকৌশলী পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত হওয়ার পর ৩৫৫০০ টাকায় মূল বেতন দাড়াল। এখানে দেখা যাচ্ছে যে, পদোন্নতি পাওয়ায় তার বেতন বৃদ্ধি পেল ৫,৯৯০ টাকা। অর্থাৎ তার মূল বেতনের ২০ শতাংশের উপরে মূল বেতন বৃদ্ধি পেল।

পদোন্নতিতে উপজেলা লেভেল এ তার মূল বেতন ভাতাদি নিম্নরূপ:

মূল বেতন ৩৫৫০০+ বাড়িভাড়া ৩৫% হারে ১৩৮০০+ চিকিৎসা ভাতা ১৫০০+শিক্ষা ভাতা ১০০০ টাকাসহ সর্বমোট = ৫১৮০০ টাকা

পদোন্নতির পূর্বে উপজেলা লেভেল এ তার মূল বেতন ভাতাদি নিম্নরূপ:

মূল বেতন ২৯৫১০+ বাড়িভাড়া ৩৫% হারে ১১৮০৪+ চিকিৎসা ভাতা ১৫০০+শিক্ষা ভাতা ১০০০ টাকাসহ সর্বমোট = ৪৩৮১৪ টাকা

পদোন্নতিতে একজন কর্মকর্তার আর্থিক বেনিফিট সর্বমোট = ৭৯৮৬ টাকা।

উপরোক্ত আলোচনায় এ স্পষ্ট যে, ৫ বছরে বাজার দর প্রাইজ হাইক এবং অন্যান্য সাংসারিক ও ব্যক্তিগত ব্যয় সমন্বয়ের জন্য মূল বেতনের ২০% পদোন্নতি জণিত বেতন বৃদ্ধি বা গ্রস ৭, ৯৮৬ টাকা একজন সরকারী কর্মকর্তার জন্য চলনসই।

কর্মচারী পদোন্নতিতে আর্থিক সুবিধা কত টাকা পর্যন্ত হতে পারে?

কর্মচারী বলতে ১১-২০ তম গ্রেড ধারী কর্মচারীদের বুঝানো হয়। একজন কর্মচারী পদোন্নতিকালে খুবই জগন্য মানের আর্থিক সুবিধা ভোগ করে থাকে। একটি উদাহরণের সাহায্যে বিষয়টি পরিস্কার করা যাক,

ধরি, জনাব জাবেদ আলী, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক ১৬তম গ্রেডে যোগদান করে ৫ বছর পূর্ণ হওয়ায় ৬ষ্ঠ বছর উচ্চমান সহকারী পদে পদোন্নতি পেয়ে ১৪তম গ্রেডে উন্নীত হলো। তাহলে তার বেতন ভাতাদি নিম্নরুপ হারে পরিবর্তিত হবে।

১৬ গ্রেডে মূল বেতন ৪৭০০ টাকায় যোগদান করে ষষ্ঠ বছরে তার মূল বেতন দাড়ায় ১২৪৯০ টাকা। উচ্চমান সহকারী পদোন্নতি প্রাপ্ত হওয়ার পর ১৩০৫০ টাকায় মূল বেতন দাড়াল। এখানে দেখা যাচ্ছে যে, পদোন্নতি পাওয়ায় তার বেতন বৃদ্ধি পেল ৫৬০ টাকা। অর্থাৎ তার মূল বেতনের ৪ শতাংশের উপরে মূল বেতন বৃদ্ধি পেল।

পদোন্নতিতে উপজেলা লেভেল এ তার মূল বেতন ভাতাদি নিম্নরূপ:

মূল বেতন ১৩০৫০+ বাড়িভাড়া ৪৫% হারে ৫৮৭২+ চিকিৎসা ভাতা ১৫০০+শিক্ষা ভাতা ১০০০ টাকাসহ সর্বমোট = ২১৪২২ টাকা

পদোন্নতির পূর্বে উপজেলা লেভেল এ তার মূল বেতন ভাতাদি নিম্নরূপ:

মূল বেতন ১২৪৯০+ বাড়িভাড়া ৪৫% হারে ৫৬২০+ চিকিৎসা ভাতা ১৫০০+শিক্ষা ভাতা ১০০০ টাকাসহ সর্বমোট = ২০৬১০ টাকা

পদোন্নতিতে একজন কর্মচারীর আর্থিক বেনিফিট সর্বমোট = ৮১২ টাকা।

উপরোক্ত আলোচনারটি স্পষ্ট করা যাক যে, একজন কর্মকর্তার পদোন্নতিতে তার মূল বেতনের ২০% বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং একজন কর্মচারীর পদোন্নতিতে তার মূল বেতনের ৪% বৃদ্ধি হয়। আসলে কেন এই বৈষম্য। বৈষম্য এটা নয় যে সর্বনিম্ন বেতন ৮২৫০ অপরদিকে সর্বোচ্চ বেতন ৭৮০০০ টাকা। বৈষম্য মূলত এটা যে উপরোক্ত পদোন্নতিতে একজন কর্মকর্তা এবং কর্মচারীর সুবিধার পার্থক্য কেন ২০-৪ = ১৬% হল। বেতন যাই হোক না কেন একই মায়ের সন্তান কেন এত বৈষম্যের শিকার হবে। এ প্রশ্নের উত্তর কি কেউ দিতে পারে? যুগ যুগ ধরে চলে আসা আকাশ পাতাল বৈষম্যের কি শেষ নেই। বর্তমান সরকার উদ্যোগ নিলেই এ বৈষম্য সমাধান করা সম্ভব। বেতন বৈষম্য দূরীকরণে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা সরকারী সকল কর্মচারী তাদের দিকেই তাকিয়ে আছে।

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।