একজন শিক্ষকের আয় এবং করদায় পরিগণনা পদ্ধতি।

জনাব মিনহাজ আহমেদ বেসরকারি ইংরেজী মাধ্যমের একটি বিদ্যালয় শিক্ষকতা করেন। তার একজন প্রতিবন্ধী সন্তান রয়েছে। তার স্ত্রী করদাতা নন। ১ জুলাই ২০২০ হতে ৩০ জুন ২০২১ পর্যন্ত সময়ে তার আয় ছিল নিম্নরূপ:

বেতন খাত:

  • মাসিক মূল বেতন ৩০,০০০ টাকা।
  • বাড়ী ভাড়া ভাতা ১৫,০০০ টাকা।
  • মাসিক চিকিৎসা ভাতা ১,০০০ টাকা।
  • উৎসব বোনাস-দুটি মূল বেতনের সমান।

জনাব মিনহাজ আহমেদ টিউশনী থেকেও উপার্জন করে থাকেন। তিনি মাসে মোট ৬ (ছয়) ব্যাচে ছাত্র পড়ান। প্রতি ব্যাচে ছাত্র সংখ্যা ০৬ (ছয়) জন। প্রতি ছাত্র থেকে তিনি সম্মানী গ্রহণ করেন মাসিক ৪,০০০ টাকা। তিনি নিজের বাসাতেই ছাত্র পড়ান।

তিনি আয় বছরে ২,০০,০০০ টাকার সঞ্চয়পত্র ক্রয় করেছেন। ৩০ জুন ২০২১ তারিখে করদাতার নীট সম্পদের পরিমাণ ছিল ৩,৩০,০০,০০০ টাকা।

২০২১-২০২২ কর বছরে মোট আয় এবং প্রদেয় করের পরিমাণ নিম্নরুপ: 

বেতন খাত
  • মাসিক মূল বেতন (৩০,০০০*১২ মাস)                               = ৩,৬০,০০০ টাকা
  • বাড়ী ভাড়া ভাতা (১৫০০০*১২ মাস) = ১,৮০,০০০ টাকা
  • বাদ: করমুক্ত (মূল বেতনের ৫০%) = (১,৮০,০০০ টাকা)               শুন্য
  • চিকিৎসা ভাতা (১,০০০*১২) = ১২,০০০ টাকা 
  • বাদ: মূল বেতনের ১০% অথবা
  • বার্ষিক ১,২০,০০০ টাকা যেটি কম ৩৬,০০০ টাকা                   শুন্য
  • উৎসব বোনাস (৩০,০০০*২)                                                    =  ৬০,০০০ টাকা

বেতন খাতে আয়                                                                           = ৪,২০,০০০ টাকা

অন্যান্য উৎস খাতে আয়

টিউশনী থেকে প্রাপ্ত আয় (৬ ব্যাচ * ৬ জন) *৪০০০*১২                  = ১৭,২৮,০০০ টাকা।

মোট আয়                                                                                               = ২১,৪৮,০০০ টাকা।

কর দায় গণনা
  • প্রথম ৩,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর                             “শুন্য” হার।
  • পরবর্তি ১,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর ৫%                   ৫,০০০ টাকা।
  • পরবর্তী ৩,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর ১০%                ৩০,০০০ টাকা
  • পরবর্তী ৪,০০,০০০০ টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর ১৫%             ৬০,০০০ টাকা।
  • পরবর্তী ৫,০০,০০০০ টাকা পর্যন্ত মোট আয়ের উপর ২০%             ১,০০,০০০ টাকা।
  • অবশিষ্ট ৪,৯৮,০০০ টাকার উপর ২৫% হারে                                     ১,২৪,৫০০ টাকা।
  • প্রদেয় কর  =                                                                                         ৩,১৯,৫০০ টাকা।

*প্রতিবন্ধী সন্তানের পিতা হিসাবে করমুক্ত আয়সীমা (৩,০০,০০০+৫০,০০০) = ৩,৫০,০০০ টাকা।

কর রেয়াত:

রেয়াতের জন্য অনুমোদনযোগ্য অংক (Eligible Amount)

ক) মোট অনুমোদনযোগ্য বিনিয়োগ ২,০০,০০০/-
খ) মোট আয়ের ২৫% (২১,৪৮,০০০*২৫%) ৫,৩৭,০০০/-
গ) ১,০০,০০,০০০/- (অনুমোদনযোগ্য বিনিযোগের সর্বোচ্চ সীমা)
অনুমোদনযোগ্য অংক (Eligible Amount) [(ক) বা (খ) বা (গ), এই তিনটির মধ্যে যেটি কম] ২,০০,০০০/-
কর রেয়াতের পরিমাণ:

করদাতার মোট আয় ১৫ লক্ষ টাকার অধিক না হওয়ায় কর রেয়াতের পরিমাণ হবে অনুমোদনযোগ্য অংক (Eligible Amount) ২,০০,০০০/- এর ১০% অর্থাৎ (২,০০,০০০*১০%) = ২০,০০০ টাকা।

নীট প্রদেয় কর:

ফলে নীট প্রদেয় করের পরিমাণ হবে (৩,১৯,৫০০-২০,০০০) = ২,৯৯,৫০০ টাকা মাত্র।

করদাতার নীট সম্পদের পরিমাণ ৩ কোটি ৩০ লক্ষ টাকা যা সারচার্জ আরোপের লক্ষ্যে নীট সম্পদের সর্বোচ্চ সীমা ৩ কোটি টাকার অধিক হওয়ায় নীট প্রদেয় কর ২,৯৯,৫০০ টাকার উপর ১০% হারে সারচার্জ বাবদ (২,৯৯,৫০০*১০%) = ২৯,৯৫০ টাকা প্রদেয় হবে। অর্থাৎ আয়কর ও সারচার্জ বাবদ করদাতার মোট করদায় হবে (২৯৯,৫০০+২৯,৯৫০) = ৩,২৯,৪৫০ টাকা।

একজন শিক্ষকের আয় এবং করদায় পরিগণনা পদ্ধতি: ডাউনলোড

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

One thought on “একজন শিক্ষকের আয় এবং করদায় পরিগণনা পদ্ধতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.