ব্যবহারিক ও মৌখিক দুটি অংশে পরীক্ষা গৃহীত হবে। কম্পিউটার বিষয়ক মৌলিক জ্ঞান, কম্পিউটারে কাজ করার মৌলিক কীর্তিসম্পন্ন, দৈনন্দিন দাপ্তরিক কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার এপ্লিকেশন চালনা ইত্যাদি পরীক্ষায় অন্তর্ভুক্ত করবেন;

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

অর্থ মন্ত্রণালয়, অর্থ বিভাগ

বাস্তবায়ন ও প্রবিধি অনুবিভাগ

বাস্তবায়ন শাখা-১

অম/রুনি/বাস-৬/রাগ-১/৯৯/৩০; তারিখ: ১১-০৪-১৯৯৯

অফিস আদেশ

অর্থ বিভাগের ২০-০৪-১৯৮০৫ তারিকের এম/এফ(ইস্প)-১(এফ)-৯/৩৫/৯২ সংখ্যক ক্রমিক নং-১৩ ও ১৬ তে উল্লিখিত কম্পিউটার অপারেটর এবং ডাটা এন্ট্রি/কন্ট্রোল অপারেটর দুটির প্রত্যেকটির জন্য দুটি বেতন স্কেল নির্ধারিত রয়েছে। উক্ত দুটি স্কেল মধ্যে উচ্চতর স্কেল প্রাপ্তির জন্য ইন-সার্ভিস ডিপার্টমেন্টাল ট্রেনিং পাস করার শর্ত রয়েছে, কিন্তু ইন-সার্ভিস ডিপার্টমেন্টাল ট্রেনিং এর বিষয় ও পরীক্ষা গ্রহণের পদ্ধতি নির্ধারণ করে কোন আদেশ ইত:পূর্বে জারি করা হয়নি। এই প্রেক্ষাপটে উক্ত ইন-সার্ভিস ডিপার্টমেন্টাল ট্রেনিং এর বিষয় ও পরীক্ষা গ্রহণের পদ্ধতি নিম্নরূপ নির্ধারণ করা হলো:-

ক) কম্পিউটার অপারেটর এবং ডাটা এন্ট্রি কন্ট্রোল অপারেটর পদে নিয়োগের পর সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর কমপক্ষে ২ (দুই) বছর সংশ্লিষ্ট বিভাগ/দপ্তরে চাকুরীর অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে এবং ইন-সার্ভিস ডিপার্টমেন্টাল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে;

খ) ব্যবহারিক ও মৌখিক দুটি অংশে পরীক্ষা গৃহীত হবে। কম্পিউটার বিষয়ক মৌলিক জ্ঞান, কম্পিউটারে কাজ করার মৌলিক কীর্তিসম্পন্ন, দৈনন্দিন দাপ্তরিক কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার এপ্লিকেশন চালনা ইত্যাদি পরীক্ষায় অন্তর্ভুক্ত করবেন;

গ) সংশ্লিষ্ট নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ সমন্বয়ে গঠিত বিভাগীয় পদোন্নতি/নিয়োগ কমিটি অথবা কোন বিশেষ কমিটির মাধ্যমে পরীক্ষা গ্রহণ করবেন।

 

(মনপুর আহম্মদ)

সহকারী সচিব

ফোন: ৩৬০০১

 

কম্পিউটার কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা ১৯৮৫ এবং সংশোধন ১৯৯৫: ডাউনলোড

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 2959 posts and counting. See all posts by admin

2 thoughts on “কম্পিউটার কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা ১৯৮৫ এবং সংশোধন ১৯৯৫

  • বিগত ১৯৯৫ সালে আমি নৈশ প্রহরী পদে সরকারী চাকুরীতে প্রবেশ করি এস এস সি পাশের মাধ্যমে । সে সময়ে চতুর্থ শ্রেনী থেকে তৃতীয় শ্রেনীর পদে পদোন্নতির জন্য তিন বৎসর নির্ধারণ করা ছিল পদোন্নতির বিধিমালার বিভিন্ন বই এ। সে মোতাবেক আমি একজন্ পদোন্নতি যোগ্য কর্মচারী অথচ আমার চাকুরী ২৬ বছর গত হলো কিন্তু দুঃখের বিষয় যোগ্যতা ও দক্ষতা থাকা সত্বেও আমি এখন পর্যন্ত পদোন্নতি না পাওয়ায় খুবই হতাশ । সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, মহোদয়ের নিকট আমার আকুল আবেদন যে, যেহেতু বর্তমানে তৃতীয় শ্রেনীর অনেক পদই প্রশাসনিক কর্মকর্তা, সহকারী প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও উপ-সহকারী প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে রুপান্তরিত ও গ্রেড পরিবর্তন করার বিষয় সরকার পদক্ষেপ গ্রহণ করিয়াছেন । সেহেতু সারা বাংলাদেশে জেলা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসে কর্মরত চতুর্থ শ্রেনীর যোগ্যতা সম্পন্ন কর্মচারীদের পদোন্নতির বিষয়টি বিবেচনা করার জন্য আপনার নেক দৃষ্টি কামনা করছি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *