জাতীয় বেতন স্কেল: বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তান।

পাকিস্তানের জাতীয় পে স্কেল এবং বাংলাদেশের জাতীয় পে স্কেলের সাথে বেশ সাদৃশ্য রয়েছে। বাংলাদেশের পে স্কেলে মোট ২০টি গ্রেড রয়েছে। পাকিস্তানের পে স্কেলে মোট ২২টি গ্রেড রয়েছে। বাংলাদেশের পে স্কেলের অনুকরণেই যেন পাকিস্তানের পে স্কেল প্রস্তুত করা হয়েছে। নিম্ন গ্রেডের পে স্কেলের ধাপ গুলো তৈরি করতে পাকিস্তান যেন বাংলাদেশের পে স্কেলকেই অনুসরণ করেছে। পাকিস্তান বার্ষিক বেতন বৃদ্ধির হার বাংলাদেশের চেয়েও বৈষম্যমূলকভাবে সৃষ্টি করেছে।

পাকিস্তানের পে স্কেল ২০১৭

পাকিস্তানের পে স্কেলেও প্রতিটি গ্রেডের ব্যবধান তৈরিতে নিম্ন গ্রেড অর্থাৎ ১-১২ গ্রেড পর্যন্ত ব্যবধান রেখেছে মাত্র গড়ে ২.৫% হারে অন্য দিকে উপরের গ্রেড বা উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের গ্রেডে গড়ে ২০% ব্যবধান রাখা হয়েছে। বাংলাদেশের পেস্কেলের সাথে বেশি মিল রেখেই তৈরি করা হয়েছে পাকিস্তানের জাতীয় বেতন স্কেল। মোট ২২ টি গ্রেডে নিম্ন ও উচ্চ গ্রেডের ব্যবধান রাখা হয়েছে বাংলাদেশের মতই ১:১০ প্রায়। সর্বনিম্ন বেতন ৯,১৩০ রুপি এবং সর্বোচ্চ ৮২,৩৮০ রুপি।

Grade Min Pay Increment Max Pay
1 9130 3.18 17830
2 9310 3.43 19210
3 9610 4.06 21310
4 9900 4.44 23100
5 10260 4.87 25260
6 10620 5.27 27420
7 10990 5.55 29290
8 11380 5.89 31480
9 11770 6.20 33670
10 12160 6.58 36160
11 12570 6.36 38970
12 13320 7.21 42120
13 14260 7.36 45760
14 15180 7.71 50280
15 16120 8.25 56020
16 18190 8.36 64510
17 30370 7.57 76370
18 38350 7.48 95750
19 59210 5.15 120210
20 69090 6.53 132230
21 76720 6.52 146720
22 82380 7.13 164560

আসুন গ্রেডগুলো ব্যবধান অনুসারে গড় দূরত্ব বা গ্রেড ব্যবধানগুলো আমরা চিত্রের মাধ্যমে দেখে নিই। নিম্ন গ্রেডগুলো বৈষম্যের স্বীকার হয়েছে এবং উচ্চ গ্রেডগুলো অতিমাত্রায় সুবিধা ভোগ করছে। পাকিস্তানের পে স্কেলেও আন্তর্জাতিক শ্রম মান বা বেতন স্ট্যান্ডার্ড লঙ্গন করা হয়েছে।

বাংলাদেশের পে স্কেল ২০১৫

বাংলাদেশের জাতীয় পে স্কেল প্রতি ৫ বছর অন্তর অন্তর পুন:নির্ধারিত বা রিভাইজ হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় গত ২০১৫ সালে এ দেশের জাতীয় বেতন স্কেল ঘোষনা করা হয়। প্রস্তাবিত জাতীয় পে স্কেলের আংশিক বাস্তবায়নের ফলে কর্মচারীরা মারাত্মকভাবে এ স্কেলের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। শতকরা হারে বেতন বৃদ্ধি ফলে নিম্ন গ্রেডের কর্মচারীরা আকাশ পাতাল বৈষম্যের স্বীকার হয়েছে। গতানুগতির পে স্কেলের পদ্ধতি অনুসরণে শতকরা হারে বৃদ্ধি এবং প্রথাগত পে স্কেল অনুসরণ করার ফলে কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের বেতন স্কেল যেন একীভূত হলেও দুটি আলাদা মানে নির্ধারিত হয়েছে।

নিচের তালিকাটি হতে গ্রেড ব্যবধান ১-১০ গ্রেডে পাকিস্তানের পে স্কেলের মতই ২০% শতাংশ করা হয়েছে অন্য দিকে কর্মচারী তথা ১১-২০ গ্রেডের কর্মচারীদের ক্ষেত্রে গড়ে ২.৫% রাখা হয়েছে। এখানেও ১:১০ বেতন রেশিও অনুসরণ করা হয়েছে।

Grade Min Pay Increment Max Pay
20 8250 5.1 20010
19 8500 5.1 20570
18 8800 5.0 21310
17 9000 5.0 21800
16 9300 5.1 22490
15 9700 5.1 23490
14 10200 5.0 24680
13 11000 5.0 26590
12 11300 5.0 27300
11 12500 5.0 30230
10 16000 5.0 38640
9 22000 5.0 53060
8 23000 5.0 55470
7 29000 5.0 63410
6 35500 5.0 67010
5 43000 4.5 69850
4 50000 4.0 71200
3 56600 3.8 74400
2 66000 3.8 76490
1 78000 78000

উপরের তথ্য বিশ্লেষণে পাকিস্তানের পে স্কেলের সাথে একদমই মিলে যায়। পে স্কেল দুটি মিলকরণে দেখা যায় যেন একে অন্যের ভাই। দুটি পে স্কেলেই নিম্ন গ্রেডের কর্মচারীগণ মারাত্মক ভাবে বৈষম্যের স্বীকার হয়েছে। চিত্রে মাধ্যমে পে স্কেলের সাদৃশ্যতা বুঝা সহজ হবে।

বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তানের পে স্কেল দুটি পাশাপাশি রাখলে বুঝাই দুষ্কর যে কোনটি বাংলাদেশ আর কোনটি পাকিস্তানের পে স্কেল। আসুন একসাথে দুটি পে স্কেল দেখে নিই।

দুটি পে স্কেলেই নিম্ন গ্রেডে গুলো আক্রমনের স্বীকার হয়েছে। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারীদের গ্রেড ব্যবধান খুবই কম রাখা হয়েছে। এতে করে তাদের ইনক্রিমেন্টের ক্ষেত্রেও এটি বড় একটি প্রভাব ফেলছে। তবুও বাংলাদেশের কর্মচারীদের ইনক্রিমেন্টের ক্ষেত্রে পাকিস্তানের বার্ষিক বেতন বৃদ্ধির মান উন্নততর অবস্থানে রয়েছে। নিচের চিত্র এবং উপরের উপাত্তগুলো খেয়াল করে দেখলেই বুঝা যায়।

সূত্র: পাকিস্তানের জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৭ এবং বাংলাদেশের জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫

বিভিন্ন দেশের পে স্কেল এবং বাংলাদেশের পে স্কেল নিচে তুলনামূলক বিশ্লেষণ ও আলোচনা আসছে।

৪% বেতন বৃদ্ধিতে কর্মকর্তাদের বেতন বৃদ্ধি প্রায় ৩,০০০ টাকা!

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.