বদলির ক্ষেত্রে ভ্রমণ ভাতা অগ্রিম গ্রহণ করা যায়।

সরকারি কর্মচারীদের বিভিন্ন সময় জনস্বার্থে বিভিন্ন স্থানে বদলি করা হয়। এক্ষেত্রে আর্থিক সমস্যা কাটিয়ে উঠার জন্য সরকার তাদের ভ্রমণ ভাতার অর্থ অগ্রিম উত্তোলনের সুযোগ দিয়েছে। এ ক্ষেত্রে এই অগ্রিম অর্থ দাবীকৃত ভ্রমণ বিল হতে সমন্বয়/ কর্তনের সুযোগ দিয়েছে।

বিভিন্ন অগ্রিম গ্রহণ নীতিমালা

(জিএফআর)

ক। সুদমুক্ত অগ্রিম

(১) ভ্রমণ ভাতা অগ্রিম

বদলির কারণে বিধি মোতাবেক প্রাপ্য ভ্রমণ ব্যয় অগ্রিম হিসাবে প্রদান করা যাইতে পারে। এই অগ্রিম প্রধান কিংবা অর্পিত হইয়াছে এমন অধস্তন অফিসার মঞ্জুর করিতে পারেন। ছুটিতে থাকাকালে বদলির আদেশ পাইলেও এই অগ্রিম প্রদেয়।

শেষ বেতনের প্রত্যয়নপত্রে অগ্রিমের উল্লেখ করিতে হইবে। বদলির ভ্রমণ ভাতা বিল হইতে এই অগ্রিম আদায় করিতে হইবে। জিএফআর-২৬১

(২) বদলির ক্ষেত্রে বেতন অগ্রিম

বদলির আদেশাধীন কর্মচারীকে ভ্রমণ ভাতা অগ্রিম ব্যতীতও অনধিক এক মাসের মূল বেতন অফিস প্রধান বা ক্ষমতা অর্পিত হইয়াছে এমণ অধস্তন অফিসার মঞ্জুর করিতে পারেন। এই অগ্রিম নতুন কর্মস্থালের পূর্ণ মাসের বেতন/ছুটিকালীন বেতন হইতে কর্তন আরম্ভ করিয়া তিনটি কিস্তিতে আদায় করিতে হইবে। পুরাতন কর্মস্থলে কোন অগ্রিম গ্রহণ করেন নাই এই মর্মে শেষ বেতনের প্রত্যয়নপত্র দাখিল করিলে নতুন কর্মস্থল হইতে বেতনের অগ্রিম মঞ্জুর করা যাইবে।

ব্যাখ্যা: ভ্রমণ ভাতা অগ্রিম ও বেতন অগ্রিম মঞ্জুরকারী কর্তৃপক্ষ তাহাদের নিজেদের ক্ষেত্রেও এইরূপ মঞ্জুর করিতে পারিবেন। জিএফ আর-২৬১

admin

আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন admin@bdservicerules.info ঠিকানায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.