সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ব্যাংক প্রমাণপত্র ২০২২ । সঞ্চয়পত্র ক্রয় কার্যকর হতে কত দিন সময় লাগে?

বাংলাদেশে সঞ্চয়পত্র ক্রয় প্রক্রিয়া বর্তমানে জটিলতা ধারণ করেছে কারণ শুধু টিআইএন নয় বরং রিটার্ণ দাখিলের প্রমানক জমা দিতে হয় – সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ব্যাংক প্রমানপত্র ২০২২

কোন সঞ্চয়পত্র কিনবেন? – সঞ্চয়পত্র কিনতে প্রথমে ঠিক করতে হবে আপনি কি সঞ্চয়পত্র কিনবেন? মহিলা হলে পরিবার সঞ্চয়পত্র কিনুন কারণ এতে সর্বোচ্চ ১১.৫২% মুনাফা পাওয়া যায়। যদি ৬৫ বছরের নিচের বয়সী পুরুষ হয়ে থাকেন তবে আপনি ৩ মাস অন্তর সঞ্চয়পত্র কিনুন অথবা ৫-বছর মেয়াদী বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র কিনুন। যদি ব্যাংক গুলোতে এখন ৫-বছর মেয়াদী বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র পাওয়া যায় না। আপনাকে জেলা সঞ্চয় ব্যুরো অফিস এবং বাংলাদেশ ব্যাংক হতে কিনতে হবে।

সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ব্যাংক প্রমানপত্র ২০২২- যেহেতু পেমেন্ট ব্যাংক একাউন্ট চেকের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হয় তাই যখন চেক জমা দিবেন তখ আপনি চলতি হিসাবে টাকা বা চেক জমা করার সাদা ফর্মে চেকের নম্বর, তারিখ, টাকা ইত্যাদি লিখে ব্যাংক কর্মকর্তার নিকট জমা দিবেন। ফলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সেটি রিসিভ করে রেখে দেখে এবং একটি অংশ আপনাকে দিবে সেটিই হচ্ছে ব্যাংক প্রমানক যে পর্যন্ত আপনার সঞ্চয়পত্র কেনা এবং ইস্যু সফল ভাবে সম্পন্ন না হয়।

সঞ্চয়পত্র ক্রয় কার্যকর হতে কত দিন সময় লাগে? – বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি সার্কুলারে বলা আছে, কেউ সঞ্চয়পত্র কেনার জন্য চেক দিলে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ছাড় করতে হবে। বাস্তবে কার্যকারিতা ঠিক ততটুকু নেই। তফসিলি ব্যাংক গুলো হতে সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে ৩-৭ কার্যদিবস পর্যন্ত সময় লেগে যায়। জাতীয় সঞ্চয় ব্যুরো অফিস হতে সঞ্চয়পত্র ক্রয় করলে আরও দ্রুত কার্যকর হয়। ব্যাংক হিসাব হতে টাকা ডেবিট হলেই কার্যকর হল না, আপনাকে সঞ্চয়পত্র ইস্যু হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। সঞ্চয়পত্র কপিতে ইস্যু তারিখ যা দেওয়া থাকবে ৫ বছর পরে ঠিক ঐ তারিখেই মেয়াদ পূর্তিতে মূল টাকা ফেরত আসবে আপনার ব্যাংক হিসাবে।

মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন সঞ্চয়পত্র রুলস-১৯৭৭ অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রচলিত সব ধরনের সঞ্চয়পত্র যেকোন সময়ে নগদায়নযােগ্য। তবে মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়নের ক্ষেত্রে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের জন্য বছরভিত্তিক আলাদা মুনাফার হার নির্ধারিত থাকলেও কেউ সঞ্চয়পত্র ক্রয় করলে বিদ্যমান নিয়মানুযায়ী গ্রাহককে মেয়াদপূর্তিতে প্রাপ্য মুনাফার হার ধরেই প্রতি কিস্তির মুনাফা দেওয়া হয়। তবে কেউ মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করতে চাইলে সংশ্লিষ্ট সঞ্চয়পত্রের পূর্ণ বিনিয়ােগে থাকা সময়(বছরে) ধরে প্রাপ্য মুনাফার টাকা হিসাব করা হয়। অন্যদিকে গ্রাহক তার সঞ্চয়পত্র ক্রয়কালীন সময় থেকেই পূর্ণ মেয়াদান্তে প্রাপ্য হার অনুযায়ী মুনাফা পেয়ে থাকেন বিধায় মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করলে গ্রাহককে ইতিমধ্যে প্রদত্ত অতিরিক্ত মুনাফা ও উৎসে কর্তনকৃত আয়কর তার মূল টাকা থেকে সমন্বয় করে বাকিটা ফেরৎ দেওয়া হয়।

ঠিক কিভাবে বুঝবেন সঞ্চয়পত্র ক্রয় সফল হয়েছে? / সঞ্চয়পত্র ইস্যু না হওয়া পর্যন্ত মাস পূর্তির তারিখ গণনা করা যাবে না।

“Your Application for purchasing savings Certificate amoutn: 7,00,000 have been issued and Activated”

Caption: Sanchaypatro Issue and Activated Message from National Savings Certificate office

উপরের মেসেজটি পাওয়ার পর চেক জমা দেয়ার কপি নিয়ে ব্যাংক গিয়ে সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ব্যাংক স্লিপ এবং সঞ্চয়পত্র কপি সংগ্রহ করুন।

সঞ্চয়পত্র মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করলে গ্রাহক সবসময় তার মূল টাকা থেকে কিছু কম পান। এভাবে নগদায়ন করলে গ্রাহক কোন ধরনের সঞ্চয়পত্রে কত টাকা পেতে পারেন তার একটি সম্ভাব্য হিসাব এখানে দেওয়া হলাে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে পয়সার হিসাব থাকায় ঐ হিসাবগুলাে সবসময় পরিপূর্ণভাবে না-ও মিলতে পারে, তাই নগদায়নের পূর্বে সংশ্লিষ্ট অফিস থেকে চূড়ান্ত হিসাব নিশ্চিত হওয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হল।

১লক্ষ টাকা পরিবার সঞ্চয়পত্র কেনার পর কেউ যদি মেয়াদ উর্ত্তীনের পূর্বে অর্থাৎ ১ বছর ৩ মাস পর উত্তোলন করতে চায় সে কত টাকা ফেরত পাবে?

১,০৯,৫০০-১৫*৯৬০ = ১,০০,০০০-১৪৪০০ = ৯৫,১০০ টাকা ফেরত পাওয়া যাবে। এছাড়াও ব্যাংক চার্জ হিসেবে ১৫০ টাকা পর্যন্ত কর্তন করা হতে পারে। সঞ্চয়পত্র নগদায়ন ২০২২ – আপনি মেয়াদ শেষে বা মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পূর্বে সঞ্চয়পত্রের টাকা ক্যাশ করতে সাদা কাগজে আবেদন করুন এবং আবেদনের সাথে এনআইডি’র কপি, সঞ্চয়পত্র রেজিস্ট্রেশন কপি এবং ক্রয়ের অনলাইন কপি যুক্ত করে দিন। সঞ্চয়পত্র বিক্রয়কেন্দ্র পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

Sanchayapatra Encashment Process । সঞ্চয়পত্র মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে নগদায়ন করার নিয়ম ২০২২

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে [email protected] ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *