সাধারণ ছুটি বৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন জারি।

দেশব্যাপী করোনা ভাইরাস রোগ (কোভিড-১৯) এর সংক্রমণ মোকাবেলা এবং এর ব্যাপক বিস্তার রোধকল্পে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ৩০ মে ২০২০ পর্যন্ত সাধারণ ছু্টি বর্ধিতকরণ।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ

মাঠ প্রশাসন সমন্বয় অধিশাখা

নম্বর: ০৪.০০.০০০০.৫১৪.০৬.০০২.২০.১০৩; তারিখ: ১৪/০৫/২০২০ খ্রি:

বিষয়: করোনা ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধকল্পে শর্তসাপেক্ষ নিষেধাজ্ঞা বর্ধিতকরণ।

করোনা ভাইরাস জণিত কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধ এবং পরিস্থিতি উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকার আগামী ১৬ মে ২০২০ তারিখের পর নিম্নলিখিত শর্তসাপেক্ষে বিদ্যমান সাধারণ ছুটি বৃদ্ধি করাসহ জনসাধারণের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ/ সীমিত করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে:

১। আগামী ১৭ মে ২০২০ থেকে ২৮ মে ২০২০ পর্যন্ত সাধারণ ছুটি কালীন জনসাধারণের নিষেধাজ্ঞা/ সীমিত থাকবে। ২১ মে ২০২০ (শব-ই কদ্বরের সরকারি ছুটি), ২২, ২৩, ২৯ ও ৩০ মে ২০২০ সাপ্তাহিক ছুটি এবং ২৪, ২৫ ও ২৬ মে ২০২০ তারিখ (ঈদ-উল ফিতরের সাধারণ/সরকারি ছুটি) এ ছুটি/ নিষেধাজ্ঞার অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

২। সাধারণ ছুটি এবং চলাচলে নিষেধাজ্ঞাকালে এক জেলা হতে অন্য জেলা এবং এক উপজেলা হতে অন্য উপজেলায় জনসাধারণের চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত থাকবে। জেলা প্রশাসন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সহায়তায় এ নিয়ন্ত্রণ সতর্কভাবে বাস্তবায়ন করবে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধকল্পে জনগণকে অবশ্যই ঘরে অবস্থান করতে হবে। রাত ৮.০০ টা হতে সকাল ৬.০০ টা পর্যন্ত অতীব জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত (প্রয়োজনীয় ক্রয়, বিক্রয়, ঔষুধ ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃত দেহ দাফন/ সৎকার ইত্যাদি) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে আসা যাবে না;

৩। সাধারণ ছুটি/ চলাচল নিষেধাজ্ঞাকালীন জনসাধারণ ও সব কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত নির্দেশ কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে।

৪। রমজান এবং ঈদ উল ফিতরকে সামনে রেখে দোকান পাটে ক্রয় বিক্রয়কালে পারস্পারিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য বিধি কঠোরভাবে প্রতিপালন করতে হবে। শপিংমলের প্রবেশমুখে হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে। শপিংমলে আগত যানবাহনসমূহকে অবশ্যই জীবানুমুক্ত করার ব্যবস্থা রাখতে হবে। দোকানপাট এবং শপিংমলসমূহ আবশ্যিকভাবে বিকাল ৪.০০ টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে;

৫। সাধারণ ছুটি/ চলাচল নিষেধাজ্ঞাকালীন জরুরি পরিসেবা, যেমন-বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস ও অন্যান্য জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দসমূহের (স্থল বন্দর, নদীবন্দর এবং সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট, ডাক সেবা এবং সংশ্লিষ্ট কাজে নিয়োজিত যানবাহন ও কর্মীগণ এ ছুটির বাহিরে থাকবেন।

৬। সড়ক ও নৌপথে সকল প্রকার পন্য পরিবহনের কাজে নিয়োজিত যানবাহন (ট্রাক, লরি, কালো ভোসেল প্রভূতি) চলাচল অব্যাহত থাকবে।

৭। কৃষি পন্য সার, বীজ , কীটনাশক, খাদ্য, শিল্প পন্য, রাষ্ট্রীয় প্রকল্পের মালামাল, কাঁচামাল, খাবার, ঔষধের দোকান, হাসপাতাল ও জরুরী সেবা এবং এ সবের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মীদের ক্ষেত্রে এ ছুটি প্রযোজ্য হইবে না;

৮। চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্স এবং ঔষদসহ চিকিৎসা সরঞ্জামাদি বহনকারী যান বাহন ও কর্মী, গনমাধ্যম (ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়া) এবং ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্কে নিয়োজিত কর্মীগণ এ সাধারণ ছুটি/ চলাচল নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবেন;

আরও বিস্তারিত জানতে আদেশ দেখুন

আবারও সাধারণ ছুটি বাড়িয়ে ৩০ মে পর্যন্ত বৃদ্ধির আদেশ: ডাউনলোড

ছুটি বর্ধিত করণের প্রজ্ঞাপনের কপি দেখে নিন: ডাউনলোড

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.