সরকারি চাকুরিকালীন পড়াশুনার অনুমতির আবেদন পত্র (নমুনা)

সরকারি চাকুরিকালীন যদি পড়াশুনা চালিয়ে যেতে হয় বা নতুন করে ভর্তি হয়ে পড়াশুনা করতে হয় তবে কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদনের মাধ্যমে অনুমতি নিতে হয়। এক্ষেত্রে সরকার পড়াশুনার অনুমতি দেয় তবে শর্ত থাকে যে, দাপ্তরিক কাজের কোন বিঘ্ন ঘটানো যাবে না। একারণে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য অনেকেই অনুমতি নিয়ে থাকে।

বরাবর,
মহাপরিচালক
বাংলাদেশ বেতার
সদর দপ্তর, ৩১, সৈয়দ মাহবুব মোর্শেদ সরণি
শের-ই বাংলা নগর, ঢাকা-১২০৭।

(যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে)

বিষয়: চাকুরিরত অবস্থায় অধ্যয়নের অনুমতির জন্য আবেদন।

মহোদয়,
সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি নিম্নস্বাক্ষরকারী বাংলাদেশ বেতার, ঢাকা কেন্দ্রে কম্পিউটার অপারেটর পদে গত ২১/১১/২০১৭ ইং তারিখে যোগদান করি। আমি মাদারপুর সরকারি কলেজের ২০১৬-২০১৭ সেশনের ছাত্রী। বর্তমানে আমি স্নাতক চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়ন করছি। আমি দপ্তরের কোন কাজে বিঘ্নতা না ঘটিয়ে পড়াশুনা চালিয়ে যেতে ইচ্ছুক।

এমতাবস্থায়, মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন এই যে, আমাকে পড়াশুনা করার অনুমতি দানে আপনার সদয় মর্জি হয়।

সংযুক্তঃ

০১। কলেজে অধ্যয়নরত প্রত্যয়ন পত্র।
০২। রেজিষ্টেশন কার্ড।

বিনীত নিবেদক,
তারিখ: ১৬/০১/২০১৯ খ্রি:

(সামিয়া আক্তার)
কম্পিউটার অপারেটর
বাংলাদেশ বেতার, ঢাকা।

এক্ষেত্রে সরকার কোন দায়িত্ব বহন করবে না, সরকার চাইলে বিনা কারণে অনুমতি বাতিল করতে পারেন। জনস্বার্থ পড়াশুনার আদেশ যে কোন সময় বাতিল করতে পারে।

সরকারি চাকুরিকালীন পড়াশুনার অনুমতির আবেদন পত্র (নমুনা) : ডাউনলোড

সরকারি চাকুরি কালীন পড়াশুনার অনুমতি সংক্রান্ত অফিস আদেশ।

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.