বেসরকারি শিক্ষক বা কর্মচারীর অবসরে এককালীন আর্থিক সুবিধাদির প্র্যাপ্যতা।

এমপিওভূক্ত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধাদি প্রবিধানমালা, ২০০৫ মোতাবেক চাঁদা প্রদানকারী কোন শিক্ষক বা কর্মচারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চাকুরী হইতে অবসর গ্রহণ করিলে তিনি এমপিওভূক্ত হইবার পর যত বৎসর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করিয়াছেন তাহার ভিত্তিতে নিম্নোক্তভাবে এককালীন আর্থিক সুবিধাদি প্রাপ্য হইবেন।

১। দশ বছর বা তদুর্ধ্ব কিন্তু এগার বছরের কম চাকুরীকালের জন্য ১০ মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ।

২। এগার বছর বা তদুর্ধ্ব কিন্তু বার বছরের কম চাকুরীকালের জন্য ১৩ মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ।

৩। বার বছর বা তদুর্ধ্ব কিন্তু তের বছরের কম চাকুরীকালের জন্য ১৬ মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ।

৪। তের বছর বা তদুর্ধ্ব কিন্তু চৌদ্দ বছরের কম চাকুরীকালের জন্য ১৯ মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ।

৫। চৌদ্দ বছর বা তদুর্ধ্ব কিন্তু পনের বছরের কম চাকুরীকালের জন্য ২২ মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ।

এভাবে

১৬। পঁচিশ বছর বা তদুর্ধ্ব চাকুরীকালের জন্য ৭৫ মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ।

চাঁদা প্রদানকারী কোন শিক্ষক বা কর্মচারী চাকুরীকালীন সময়ে মৃত্যুবরণ করিলে তাহার পরিবার উক্ত শিক্ষক বা কর্মচারী এমপিওভূক্ত হইবার পর যত বৎসর চাকুরী করিয়াছেন তাহার ভিত্তিতে উপ-প্রবিধান (১) এ বর্ণিত হারে অবসর সুবিধা প্রাপ্য হইবেন।

উপরোক্ত সুবিধাদি প্রাপ্য হইবার জন্য বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীগণের মাসিক বেতন ভাতার সরকারী অংশ প্রদানকালে প্রত্যেক শিক্ষক ও কর্মচারীর মূল বেতনের ৪% হারে অর্থ “অবসর সুবিধা চাঁদা” হিসাবে সরকার কর্তৃক কর্তন করা হইবে যা বাধ্যতামূলক।

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধাদি প্রবিধানমালা, ২০০৫: ডাউনলোড

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

One thought on “বেসরকারি শিক্ষক বা কর্মচারীর অবসরে এককালীন আর্থিক সুবিধাদির প্র্যাপ্যতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.