প্রত্যেক সরকারী কর্মকর্তা/কর্মচারীদের বার্ষিক গোপনীয় প্রতিবেদন বা এসিআর লিখে তা দাখিল করতে হয়। গ্রেড-১ থেকে গ্রেড ২০ সবার জন্যই এসিআর দাখিল করতে হয়।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
প্রধান সামরিক আইন প্রশাসকের সচিবালয়
সংস্থাপন বিভাগ
সিআর/সিপি-১ ।


নং-ইডি(সিআর/সিপি-১-৫/৮-২৫(১২৫) তারিখঃ ২৭-১-৮৩ ইং


বিষয়ঃ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগসমূহে নিযুক্ত সচিব মহোদয়গণের বার্ষিক গোপনীয় প্রতিবেদন লিখন প্রসংগে।


সংস্থাপন বিভাগের ১৩-১-৮৩ তারিখের ইডি/সিআর/সিপি-১/১২৫/৮২-১৫ সংখ্যক স্মারকের মাধ্যমে জানানো হইয়াছিল যে, মন্ত্রণালয়/বিভাগে নিযুক্ত সচিব মহোদয়গণের বার্ষিক গোপনীয় প্রতিবেদন লিখিতে হইবে না এবং তাহাদিগকে শুধুমাত্র বাৎসরিক ডাক্তারী পরীক্ষার প্রতিবেদন পাঠাইতে হইবে।


২। ইতিমধ্যে যে সকল সচিবগণের ডাক্তারী পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া গিয়াছে তাহাদের মধ্যে কেহ কেহ শুধুমাত্র এক প্রস’ প্রতিবেদন পাঠাইয়াছেন কিন্তু প্রকৃতপক্ষে দুই প্রস্থ প্রতিবেদন আবশ্যক। অতএব সচিব মহোদয়দের অনুরোধ করা যাইতেছে তাহারা যেন অনুগ্রহপূর্বক দুই প্রস’ বাৎসরিক ডাক্তারী পরীক্ষার প্রতিবেদন অত্র বিভাগে প্রেরণ করেন।


৩। এই প্রসংগে কোন কোন জায়গা হইতে প্রশ্ন উঠিয়াছে যে, যে সকল অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম-সচিবগণ মন্ত্রণালয়/বিভাগের দায়িত্বে নিয়োজিত (incharge ) তাঁহাদের বার্ষিক গোপনীয় প্রতিবেদন লিখিতে হইবে কিনা। এই প্রসংগে উল্লেখ করা যাইতে পারে যে ইতিপূর্বে সরকারী সিদ্ধান্তে কেবলমাত্র সচিবদের কথাই বলা হইয়াছে। উক্ত সিদ্ধান্ত কেবলমাত্র মন্ত্রণালয়/বিভাগের সচিবদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য; ভারপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব এবং ভারপ্রাপ্ত যুগ্ম-সচিবদের ক্ষেত্রে নয়। ভারপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব এবং ভারপ্রাপ্ত যুগ্ম-সচিব মহোদয়গণের বার্ষিক গোপনীয় প্রতিবেদন নির্ধারিত ফরমে ১৯৮২ সাল হইতে লিখিতে হইবে।


এ, কে, এম, ফজলুল হক
উপ-সচিব
সংস্থাপন বিভাগ।

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
সংস্থাপন মন্ত্রণালয়
শাখাঃ সিআর/সিপি-৩।


নং-সম(সিআর/সিপি-৩)-১/৯০-২০৮(৭০০) তারিখ ঃ ১৩-১০-৯০ ইং/ ২৭-৬-১৩৯৭ বাং

বিষয়ঃ বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদন ফরম যথাসময়ে পূরণ পূর্বক অনুবেদনাধীন অনুবেদকের নিকট এবং অনুবেদক প্রতিস্বাক্ষরকারীর নিকট অগ্রগামী পত্রের মাধ্যমে উপস্থাপন করণ এবং অগ্রগামী পত্রের অনুলিপি ডোসিয়ার সংরক্ষণকারী কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ সংক্রান্ত।


সরকারী কর্মকর্তাদের বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদন পেতে অস্বাভাবিক বিলম্বের কারণে বিগত ১৮-৭-৮৯ ইং তারিখে অত্র মন্ত্রণালয়ের সচিব মহোদয়ের স্বাক্ষরে একটি সার্কুলার (নং-সম(সিআর/সিপি-৩)-৬/৮৮/-৩৮(৬০০) জারী করা হয়। উক্ত সার্কুলারে বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদন লিখন ও প্রতিস্বাক্ষরের বিষয়ে বর্তমানে প্রচলিত অন্যান্য নিয়ম কানুনের অতিরিক্ত নিম্নলিখিত পদ্ধতি অনুসরণ করার অনুরোধ করা হয়ঃ


(ক) অনুবেনাধীন কর্মকর্তা অনুবেদন ফরম যথাসময়ে পূরণ করে একটি অগ্রগামী পত্রের মাধ্যমে অনুবেদকের নিকট উপস্থাপন করবেন এবং অগ্রগামী পত্রের একটি অনুলিপি ডোসিয়ার সংরক্ষণকারী কর্তৃপক্ষের নিকট সরাসরি প্রেরণ করবেন।


(খ) অনুবেদনকারী তাহার জন্য অনুবেদনের নির্ধারিত অংশগুলি যথাসময়ে পূরণ করে অনুরূপ অগ্রগামী পত্র দ্বারা প্রতিস্বাক্ষরকারীর নিকট প্রেরণ করবেন এবং ইহার একটি অনুলিপি ডোসিয়ার হেফাজতকারী কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করবেন।


(গ) অতঃপর প্রতিস্বাক্ষরকারী কর্মকর্তা তাঁর মন্তব্যসহ অনতিবিলম্বে অনুবেদনাধীনের অনুবেদন ডোসিয়ার হেফাজতকারী কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করবেন।
কিন্তু দেখা যাচ্ছে এখনো কিছু কিছু কর্মকর্তা উক্ত পদ্ধতি অনুসরণ করছেন না বিধায় কাহার নিকট এসিআর বকেয়া পড়ে আছে তা বুঝা যাচ্ছে না এবং সে মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও গ্রহণ করা যাচ্ছে না।


এমতাবস্থায়, উক্ত সার্কুলার যথাযথ অনুসরণের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ করা হ’ল।

সৈয়দ আবদুর রশিদ
উপ-সচিব (সিআর/সিপি)

 

আরও দেখুন: 

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 3008 posts and counting. See all posts by admin