ছুটি সম্পর্কিত অতীব গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিধান।

১। ছুটি অবস্থায় অন্যত্র চাকুরী গ্রহণ ও ইহার বৈধতা:

কোন সরকারী কর্মচারী ছুটিরত অবস্থায় পূর্ব অনুমতি ব্যতিরেকে অন্যত্র চাকুরি গ্রহণ করিতে পারেন না। [এফ.আর. ৬৯]

২। পাঁচ বছর এক নাগাড়ে ছুটি নিয়া অনুপস্থিত:

সরকার অন্যবিধ সিদ্ধান্ত না দিলে কোন সরকারী কর্মচারী ছুটি লইয়া একনাগাড়ে পাঁচ বৎসর অনুপস্থিত থাকিলে চাকুরি হারাইবেন। [বি.এস.আর-৩৪, এফ.আর-১৮]

৩। সাত দিনের নৈমিত্তিক ছুটি:

স্বাস্থ্যগত কারণে সাত দিনের নৈমিত্তিক ছুটি একত্রে গ্রহণ করিলে সরকারী কর্মচারীকে হাসপাতালে ভর্তি হইতে হইবে। তবে হাসপাতালে সিট না থাকিলে অথবা হৃদরোগ যে ক্ষেত্রে রোগিকে বিশ্রামের উপদেশ দেওয়া হয় সেই ক্ষেত্রে এই নিয়ম শিথিলযোগ্য। বর্তমানে এই আইন বাতিল হইয়াছে। (নং সম (বিধি-৪) ছুটি-২৯/৮৬-১৩০, ঢাকা, ১০ই পৌষ ১৩৮৬ বাং ২৪ শে ডি: ১৯৮৯। বাংলাদেশ গেজেটের প্রথম খন্ডে ১৮ই জানুয়ারী ১৯৯০ প্রকাশিত হইয়াছে।)

৪। মঞ্জুরকৃত ছুটির অতিরিক্ত:

কোন সরকারী কর্মচারী মঞ্জুরকৃত ছুটির অতিরিক্ত ছুটিভোগ করিলে কর্তৃপক্ষ ইচ্ছা করিলে ১৫ দিন ভূতাপেক্ষ ছুটি এই মর্মে মঞ্জুর করিতে পারেন যে, অতিরিক্ত কাল সরকারী কর্মচারীর নিয়ন্ত্রণের বর্হিভূত ছিল অথবা তিনি অসুস্থতা হেতু চিকিৎসা প্রত্যয়ন সহ ফেরত আসিয়া কাজে যোগদান দিয়েছেন। [বি.এস.আর ৯৫৯]

৫। ছুটি শেষ অন্তে কার্যে অনুপস্থিত:

যদি কোন সরকারী কর্মচারী ছুটি অন্তে তাহার নিয়ন্ত্রণ বর্হিভূত কোন কারণ ছাড়া কার্যে অনুপস্থিত থাকেন তাহা হইলে তিনি ছুটিকালীন সময়ের জন্য কোন বেতন পাইবেন না। [এফ.আর-৭৩]

৬। ছুটি হইতে ফেরৎ আনাঃ

কোন সরকারী কর্মচারীকে ছুটি হইতে ফেরৎ আনা হইলে, ইহা উল্লেখ করিতে হইবে যে, প্রত্যার্পণ আবশ্যিক না ঐচ্ছিক। প্রত্যার্পণ যদি আবশ্যিক হয় তবে তিনি এই মর্মে কিছু সবিধাদি প্রাপ্ত হইবেন। [বি.এস.আর প্রথম খন্ড ১৫৬]

৭। বিদেশে যাইবার নিমিত্তে ছুটির অনুমতি:

বিদেশে যাইতে ইচ্ছুক কর্মচারী যদি গেজেটেড অফিসার হন তাহা হইলে সরকার তাহাকে ছুটি প্রদান করিবেন। যদি কর্মচারী নন গেজেটেড হন তাহা হইলে জেলা প্রশাসক ছুটি প্রদান করিবেন।

৮। স্বাস্থ্যগত কারণে ছুটি ও কাজে যোগদান:

কোন সরকারী কর্মচারী স্বাস্থ্যগত কারণে ছুটি ভোগ করিলে তিনি স্বাস্থ্যগত যোগ্যতা প্রত্যয়নপত্র ছাড়া কাজে যোগ দিতে পারেন না। [বি,এস,আর প্রথম খন্ড-১৫৭]

৯। গেজেটেড সরকারী কর্মচারীর ছুটি মঞ্জুরের কর্তৃপক্ষ:

গেজেটেড সরকারী কর্মচারীর ছুটি সরকার অথবা সরকার কর্তৃক ক্ষমতা প্রাপ্ত কর্মকর্তা মঞ্জুর করিবেন।

১০। আবেদনকারীর ছুটির প্রকার কর্তৃপক্ষ কর্তৃক পরিবর্তন:

ছুটি আবেদনকারী যে প্রকারের ছুটির প্রার্থনা করিবেন কর্তৃপক্ষ ঐ প্রকারের ছুটি প্রদান করিবেন। [এফ.আর-৬৭]

১১। ছুটি অধিকার হিসাবে দাবী করা যায় না:

ছুটি অধিকার হিসাবে দাবী করা যায় না। কর্তৃপক্ষ এই ছুটি প্রদানে অস্বীকৃতি অথবা প্রদেয় ছুটি বাতিল করিতে পারেন। [বি.এস.আর. প্রথম খন্ড-১৫২, এফ.আর-৬৭]

১২। চাকুরি হইতে বরখাস্ত পুনর্বহাল এবং ছুটির গণনা:

কোন সরকারী কর্মচারী চাকুরি হইতে বরখাস্ত ও পরবর্তীতে চাকুরিতে পুনর্বহাল হইতে তাহার পূর্বতন চাকুরী কালে ছুটি গণনা করা হইবে।

১৩। পাওনা ছুটি ও অবসর গ্রহণ:

একজন সরকারী কর্মচারীর পাওনা ছুটি তাহার অবসর গ্রহণের তারিখে বাজেয়াপ্ত হইয়া যায়, যদি না তিনি অবসর গ্রহণের তারিখের পূর্বে অবসর প্রস্তুতি ছুটিতে যান। [এফ.আর-৮৬, এস.আর (প্রথম খন্ড) বি-১৮৫]

কোন কর্মচারী অবসর প্রস্তুতি ছুটি ভোগ করার পরেও যদি তাহার ছুটির খতিয়ানে ছুটি পাওনা থাকে তবে তন্মধ্যে হইতে সর্বোচ্চ ১২ মাসের জন্য তাহা কর্তৃক আহরিত শেষ বেতনের হারে নগদ টাকা পাইবেন। বর্তমানে ইহা ১৮ মাসের পেয়ে থাকেন। আইন অনুমোদিত ১ বৎসর অবসর প্রস্তুতিকালীন ছুটির ৬ মাস পূর্ণ গড় বেতনে ও বাকী ছয় মাস অর্ধ গড় বেতনে এক কর্মচারী ভোগ করিয়া থাকেন। বর্তমানে ১২ মাস পূর্ণ গড় বেতনে অবসর উত্তর ছুটি ভোগ করে থাকে। অর্ধগড় বেতনের ছয় মাসের ছুটিকে পূর্ণ গড় বেতনের ছুটিতে পরিবর্তিত করা হয়। অবসর প্রস্তুতি ছুটি কর্মচারীকে অবসর গ্রহণের পূর্ব হইতে অবশ্যই ভোগ করিতে হইবে। অবসর প্রস্তুতিমূলক ছুটির পরের পাওনা ছুটি প্রতি ২ অর্ধ গড় বেতনের ছুটিকে ১ পূর্ণ গড় বেতনের ছুটিতে রূপান্তরিত করিতে হইবে।

১৪। পূর্ণগড় বেতনে ছুটি পাওনা থাকিলে অর্ধগড় বেতনে ছুটি লওয়া প্রসঙ্গে:

একজন সরকারী কর্মচারীর পূর্ণ গড় বেতনের ছুটি পাওনা থাকিলেও তিনি অর্ধ গড় বেতনে ছুটি ভোগ করিতে পারেন। কর্তৃপক্ষ এই ক্ষেত্রে তাহাকে পূর্ণ গড় বেতনের ছুটির জন্য বাধ্য করিতে পারেন না।

১৫। মঞ্জুরকৃত ছুটির অধিক ছুটি ভোগ করণ:

কোন সরকারী কর্মচারী মঞ্জুরকৃত ছুটির অধিক ছুটি ভোগ করিলে তিনি অতিরিক্ত কালের জন্য কোন বেতন পাইবেন না, যদি না কর্তৃপক্ষ এই ছুটি তাহার মঞ্জুরকৃত ছুটির সহিত সংযুক্ত করেন। তিনি যদি উচ্চমানের চাকুরির শ্রেণীভূক্ত হন তবে ঐ অতিরিক্ত দিনগুলি অর্ধবেতনের পাওনা ছুটি হইতে কাটিয়া লওয়া হইবে, কিন্তু কোন বেতন পাইবেন না। যদি অর্ধ গড় বেতনের ছুটি পাওনা না থাকে তবে এই অতিরিক্ত কাল অসাধারণ ছুটি হিসাবে গণ্য হইবে।

১৬। এক কালীন সর্বোচ্চ ছুটি:

একজন সরকারী কর্মচারী এক নাগাড়ে সর্বোচ্চ ১২ মাসের বেশি ছুটি ভোগ করতে পারবেন না। এই ১২ মাসের মধ্যে ৪ মাস পূর্ণ গড় বেতনে ছুটি ও ৮ মাস অর্ধ গড় বেতনের ছুটি হইবে। তবে চিকিৎসা প্রতিবেদন দাখিল করিয়া এক নাগাড়ে দুই বৎসর ছুটি ভোগ করা যায়, যাহার ৬ মাস হইবে পূর্ণ গড় বেতনে এবং ১৮ মাস হইবে অর্ধ গড় বেতনে।

১৭। অপ্রাপ্য ছুটির শেষ সীমা:

অবসর প্রস্তুতি ছুটি ব্যতিরেকে একজন সরকারী কর্মচারী সারা চাকুরিকালে সর্বোচ্চ ১২ মাস পর্যন্ত অর্ধ গড় বেতনে অপ্রাপ্য ছুটি চিকিৎসা প্রত্যয়ন পত্র দাখিলক্রমে ভোগ করিতে পারেন চিকিৎসা প্রত্যয়নপত্র ব্যতিরেকে এই ছুটি তিন মাসের বেশি ভোগ করা যায় না। [পি,এল,আর-৫]

১৮। অস্থায়ী সরকারী কর্মচারীবৃন্দের ছুটির গণনা:

কোন সরকারী কর্মচারী তাহার চাকুরিতে তিন বৎসর পূর্তি না হইলে তিনি ২২ দিনে ১ দিন পূর্ণ বেতনে ছুটি অর্জন করিবেন। এই অর্জিত ছুটি, ছুটির খতিয়ানে তিন মাসের বেশী ক্ষমা হইবে না। এহেন সরকারী কর্মচারী চাকুরিতে তিন বৎসর পূর্তি লাভ করিলে অথবা ইতোমধ্যে চাকুরিতে স্থায়ী হইলে তাহার ছুটির হিসাব চাকুরিতে যোগদানের তারিখ হইতে স্থায়ী কর্মচারী হিসাবে সংরক্ষিত হইবে এবং অস্থায়ী আমলের ভোগকৃত ছুটি মোট জমাকৃত ছুটি হইতে বিকলন হইবে।

১২ মাস কাজ করিয়া একমাস অর্ধ গড় বেতনে ছুটি অর্জন করিতে হয়। একজন সরকারী কর্মচারী পূর্ণ গড় বেতনের ছুটির অতিরিক্ত ১২ মাস কাজ করিয়া একমাস অর্ধগড় বেতনে অর্জিত ছুটি অর্জন করেন। এই ছুটি সর্বোচ্চ ১২ মাস একবারে পূর্ণ গ ড়বেতনে রুপান্তরিত করিয়া চিকিৎসা প্রত্যয়নপত্র দাখিলক্রমে ভোগ করা যায়। রূপান্তরের হার ২ দিন অর্ধগড় বেতনের ছুটির সমান একদিন পূর্ণ গড় বেতনের ছুটি।

১৯। মেডিকেল বোর্ড হইতে সম্পূর্ণ অক্ষম ঘোষণা ও ছুটি:

মেডিকেল বোর্ড কোন সরকারী কর্মচারীকে সম্পূর্ণ অক্ষম ঘোষণা করিলে তাহাকে ছয় মাসের জন্য ছুটি দেওয়া যাইতে পারে; যদি তাহার স্বাস্থ্যগত অক্ষমতা অফিসের কাজ হেতু সাধিত হইয়া থাকে অথবা কর্মচারী তাহার কর্মজীবনে খুব কম পরিমাণের ছুটি ভোগ করিয়া থাকে অথবা অক্ষম ঘোষণার এক বৎসরের মধ্যে তাহার পেনশনের সময় আগত হইবে। [এস.আর-২৩]

২০। সরকারী ছুটি অর্জিত ছুটির সহিত সংযুক্ত করণ:

কর্তৃপক্ষ সরকারী কর্মচারীকে সরকারী ছুটি অর্জিত ছুটির আগে কিংবা পরে সংযুক্ত করিতে নির্দেশ দিতে পারেন।

২১। কোন কোন ক্ষেত্রে ছুটি মঞ্জুরকণ বিধি সম্মত নয়:

একজন সরকারী কর্মচারী তাহার বরখাস্তকালীন সময়ে, সরকারী কাজে জরুরী অবস্থা অথবা তাহার অসদাচরণ অথবা শারীরিক অক্ষমতার জন্য পদচ্যুত অথবা অপসারিত হওয়ার প্রাক্কালে ছুটি নিতে পারেন না। এফ.আর. ৫৫, ৭-এস, আর ২৩৪]

২২। ছুটিতে থাকা অবস্থায় বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে চাকুরি গ্রহণ:

কর্তৃপক্ষের পূর্ব অনুমতি ব্যতিরেকে কোন সরকারী কর্মচারী ছুটিতে থাকা অবস্থায় বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে চাকুরি গ্রহণ করিতে পারেন না।

২৩। ছুটি হইতে ফেরৎ ডাকিয়া পাঠানো ও সরকারী কর্মচারীগণের সুবিধাদি:

কোন সরকারী কর্মচারীকে তাহার ছুটি অবস্থা হইতে বাধ্যতামূলকভাবে প্রত্যাহার করা হইলে তিনি যদি বাংলাদেশের বাহিরে থাকেন তাহা হইলে বাংলাদেশে আসিবার জন্য সংশ্লিষ্ট জাহাজ অথবা বিমান ভাড়া পাইবেন। যদি তিনি সমগ্র ছুটি অর্ধাংশ কিংবা তিন মাস পর্যন্ত ছুটি ভোগ করিয়া থাকেন তবে বিদেশে যাওয়ার ভাড়া ফেরৎ পাইবেন। ছুটি হইতে প্রত্যাবর্তনের কাল সরকারী কর্মচারীর কার্যকাল বলিয়া গণ্য হইবে। যদি সরকারী কর্মচারী বাংলাদেশের মধ্যে অবস্থান করেন তাহা হইলে কর্মস্থলে যোগদানের উদ্দেশ্যে ভ্রমণের কাল হইতে কাজে যোগদানের কাল কর্মচারীর কার্যকাল বলিয়া গণ্য হইবে। তবে সরকারী কর্মচারী ছুটি শেষ হইবার পরে যোগদান করিলে তিনি উপরে বর্ণিত কোন সুবিধান পাইবেন না।

২৪। সামরিক অফিসার বেসামরিক বদলি হইলে তাহার ছুটি গণনা:

কোন সামরিক অফিসার বেসামরিক বিভাগে কর্মরত থাকিলে সামরিক অফিসে কাজে নিযুক্ত থাকিলে তিনি যেভাবে ছুটি অর্জন করিতেন বেসামরিক বিভাগেও তিনি ঐ একইভাবে ছুটি অর্জন করিবেন।

২৫। সরকারী কর্মচারীকে চাকুরি হইতে বরখাস্ত পুর্নবহাল এবং তাহার ছুটি গণনা:

কোন সরকারী কর্মচারীকে চাকুরী হইতে বরখাস্ত বা অপসারিত করা হইলে এবং পরে তিনি আপীল করিয়া চাকুরিতে পূর্নবহাল লাভ করিলে তাহার পূর্বেকার চাকুরির কাল ছুটি গণনার জন্য গণ্য করা হইবে।

২৬। অসুস্থতা হেতু ছুটি এবং যোগদানের নিমিত্তে সুস্থ্যতার প্রতিবেদন :

অসুস্থ্যতা হেতু কোন সরকারী কর্মচারী ছুটি গ্রহণ করিলে , ছুটি অন্তে যোগদানের নিমিত্তে তাহাকে শারীরিক সক্ষমতার ডাক্তারী প্রতিবেদন দাখিল করিতে হইবে।

২৭। ভূতাপেক্ষ ছুটি:

সরকারী কর্মচারী ছুটি নিয়া অতিরিক্ত কাল অতিবাহিত করিলে ছুটি মঞ্জুরকারী কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ ১৪ দিনের ভূতাপেক্ষ ছুটি মঞ্জুর করিতে পারেন।

২৮। ছুটিকালীন বেতন:

একজন সরকারী কর্মচারী ছুটিকালীন অবস্থায় ঐ হারে ক্ষেত্র বিশেষে পূর্ণ বেতনে অথবা অর্ধ বেতনে ছুটি ভোগ করিবেন যাহা তিনি ছুটিতে গমন করার পূর্বে আহরণ করিতেন।

তবে বিভাগীয় অথবা আদালতের মামলা হেতু পাঁচ কিংবা ইহার অধিক কাল অতিবাহিত হইলে উহা এই ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নহে। এফ.আর-১৮

২৯। গড় বেতনের ছুটির খতিয়ান:

প্রত্যেক সরকারী কর্মচারীর গড় বেতনের ছুটি এফ.আর ৮০ বিধান অনুযায়ী রক্ষিত হয়।

৩০। ছুটির দিন:

(ক) ১৮৮১ সনের নিগোশিয়েবল ইনস্ট্রমেন্ট এ্যাক্ট এর ২৫ ধারধীন নির্ধারিত বা ঘোষিত ছুটির দিন অথবা (খ) সরকার কর্তৃক সরকারী গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা অফিসের কার্য বন্ধ রাখার ঘোষণাকে ছুটির দিন বলে।

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।