সরকারী কর্মচারীদের শ্রেণি বিন্যাস

২০১৫ সালে পে স্কেল জারির সাথে সাথে শ্রেণী উঠে গিয়ে গ্রেড পরিচিতি চালু হলেও ২০১৬ সালে ভ্রমণ বিধিমালা জারি হলে সেখানে শ্রেণী রয়ে গেছে। ক-ঘ পর্যন্ত শ্রেণী এবং উল্লেখ রয়েছে।

 

শ্রেণী নির্ণয়

বিশ্লেষণ: অর্থ বিভাগের, প্রবিধি অনুবিভাগের প্রবিধি-৩ অধিশাখার প্রজ্ঞাপন নং ০৭.০০.০০০০.১৭৩.৩৪.০০৭.১৫-৭১, তারিখ: ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ দ্বারা সর্বশেষ এই শ্রেণি বিন্যাস করা হয়। নােট: (৩) ভূতাপেক্ষিকভাবে পদোন্নতি, পদাবনমিত বা বেতন বৃদ্ধি কার্যকর করা হইলে, পদোন্নতির, পদাবনমিতকরণের বা বেতন বৃদ্ধির তারিখ এবং উক্ত আদেশ জারির তারিখের মধ্যবর্তী সময়ের জন্য ভূতাপেক্ষিকভাবে ভ্রমণ ভাতার রিভিশন গ্রহণযােগ্য নয়, যদি না প্রকৃত পক্ষে দায়িত্বের পরিবর্তন ঘটিয়া থাকে। আদেশ জারির পূর্বে বিল দাখিল করা হইলে নিরীক্ষা কর্মকর্তা ঐ সময়ে অফিসিয়াল যে তথ্য অবগত হইবেন, উহার ভিত্তিতেই কাজ করিবেন। কিন্তু আদেশ জারির পরে বিল দাখিল করা হইলে, আদেশের ভূতাপেক্ষিক | স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়ে কোন আপত্তি নাই।

২০১৬ সালে ভ্রমণ ভাতার নতুন আদেশ জারি হয়।

সরকারি চাকুরীজিবীর ভ্রমন ভাতা গেজেট-২০১৬

Leave a Reply

Your email address will not be published.