সঞ্চয়পত্রে বড় বিনিয়োগকারীদের মুনাফা সীমা ভেদে ১ থেকে ২ শতাংশ পর্যন্ত কমতে পারে।

জনমুখে ভাইরাল ছিল যে, এবার বাজেটে সঞ্চয়পত্র মুনাফার হার আরও কমে যাবে। গতকাল মাননীয় অর্থমন্ত্রীর বাজেট পেশে পরিস্কার করা হয়েছে যে, ১৫ লক্ষ টাকা সঞ্চয়পত্র বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মুনাফা কমানো হবে না। আমাদের সকলেরই জানা আছে যে, ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীর সংসার চলে সঞ্চয়পত্র মুনাফার মাধ্যমে তাই আর্থিক নিরাপত্তার বলয় যাতে না ভেঙ্গে যায় সেদিকেও সরকার নজর দিয়েছে। তাই বড় বিনিয়োগকারী অর্থাৎ ১৫ লক্ষ টাকার বেশি বিনিয়োগকারীদের মুনাফা আরও কাটছাট হতে পারে বলে মাননীয় অর্থমন্ত্রী ধারনা দিয়েছে।

১৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগকারীদের মুনাফা ঠিক থাকবে

প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্রের মুনাফা অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের বিষয় মাথায় রেখে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। তবে ১৫ লাখ টাকার ঊর্ধ্বে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সীমাভেদে ১ থেকে ২ শতাংশ পর্যন্ত মুনাফার হার কমতে পারে বলে বাজেট ঘোষণায় জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

সঞ্চয়পত্র বিক্রি চলমান থাকবে কারণ সরকার সঞ্চয়পত্রের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করবে

আগামী অর্থবছরে এই খাত থেকে সরকার ৩৫ হাজার কোটি টাকা সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। গত বছরও সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার ওপরে বিনিয়োগের মুনাফার হার ২ শতাংশ পর্যন্ত কমানো হয়েছিল। গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপনকালে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সংস্কার প্রক্রিয়ার ধারাবাহিকতায় চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে প্রাপ্ত মুনাফার ওপর নির্ভরশীল স্বল্প-আয়ের মানুষের স্বার্থ সমুন্নত রেখে ১৫ লাখ টাকার ঊর্ধ্বে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সীমাভেদে ১ থেকে ২ শতাংশ পর্যন্ত মুনাফার হার কমানো হয়। এতে করে সঞ্চয়পত্র বাবদ সরকারের সুদ ব্যয় কমলেও ক্ষুদ্র সঞ্চয়কারীদের ক্ষেত্রে মুনাফার হার একই থাকবে। ’

গত বছর গত ২১ সেপ্টেম্বর সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার কমিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ প্রজ্ঞাপন জারি করে। সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার ওপরে বিনিয়োগের মুনাফার হার ৩০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ১ শতাংশ কমানো হয় এবং ৩০ লক্ষ টাকার উপরে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ২ শতাংশ পর্যন্ত কমানো হয়। তবে ১৫ লাখ টাকার নিচে মুনাফার হার অপরিবর্তিত থাকে।

পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র মুনাফার হার ২০২২

পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রে বর্তমানে মেয়াদ শেষে ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ মুনাফা পাওয়া যায়। নতুন নিয়মে যাদের এই সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ রয়েছে তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৩ শতাংশ হারে। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে মুনাফার হার হবে ৯ দশমিক ৩ শতাংশ।

তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক মুনাফার হার ২০২২

তিন বছর মেয়াদি সঞ্চয়পত্রে বর্তমানে মেয়াদ শেষে মুনাফার হার ১১ দশমিক শূন্য চার শতাংশ। সেটি এখন ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কমিয়ে করা হয়েছে ১০ শতাংশ। আর এই সঞ্চয়পত্রে যাদের বিনিয়োগ ৩০ লাখ টাকার বেশি তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ৯ শতাংশ হারে।

পেনশনার সঞ্চয়পত্র মুনাফার হার ২০২২

অবসরভোগীদের জন্য নির্ধারিত পাঁচ বছর মেয়াদি পেনশনার সঞ্চয়পত্রে মেয়াদ শেষে এতদিন ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ হারে মুনাফা পাওয়া যেত। এখন এই সঞ্চয়পত্রে যাদের বিনিয়োগ ১৫ লাখ টাকার বেশি তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৭৫ শতাংশ হারে। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে এই হার হবে ৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

পরিবার সঞ্চয়পত্র মুনাফার হার ২০২২

পাঁচ বছর মেয়াদি এই সঞ্চয়পত্রে মেয়াদ শেষে মুনাফার হার ১১ দশমিক ৫২ শতাংশ। এখন এই সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে মুনাফার হার কমিয়ে করা হয়েছে সাড়ে ১০ শতাংশ। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এই হার সাড়ে ৯ শতাংশ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকে তিন বছর মেয়াদী হিসাবে বর্তমানে মুনাফার হার ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ। এখন ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে মুনাফার হার হবে ১০ দশমিক ৩ শতাংশ। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে হবে ৯ দশমিক ৩ শতাংশ।

সূত্র: মানবকন্ঠ

সঞ্চয়পত্রের নতুন নিয়ম ২০২২। সঞ্চয়পত্র প্রজ্ঞাপন

Leave a Reply

Your email address will not be published.