২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রণয়ন পরিপত্র।

সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহ কর্তৃক প্রণীত বাজেট কাঠামাে (Ministry Budget Framework) ইতােমধ্যে অর্থ বিভাগ, পরিকল্পনা কমিশন এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে অনুষ্ঠিত ত্রিপক্ষীয় সভায় পর্যালােচনা করা হয়েছে এবং উক্ত সভার পর্যবেক্ষণের আলােকে একটি সম্মত বাজেট কাঠামাে প্রণয়নের কাজ চলমান রয়েছে। মধ্যমেয়াদি বাজেট কাঠামাে পদ্ধতিতে বাজেট প্রণয়নের দ্বিতীয় পর্যায়ে মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহকে ত্রিপক্ষীয় সভায় সম্মত রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমার আলােকে বিস্তারিত বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রয়ােজনে সংশােধন/পুননির্ধারণ করতে হবে। 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ

সরকার অর্থ মন্ত্রণালয়,

অর্থ বিভাগ বাজেট অনুবিভাগ-১

বাজেট পরিপত্র-২

স্মারক নং-০৭.১০১.০২০.০০.০০.০১০.২০২০-৪৮৪ তারিখঃ ১৮ এপ্রিল ২০২২

বিষয়: মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণ প্রণয়ন।

সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহ কর্তৃক প্রণীত বাজেট কাঠামাে (Ministry Budget Framework) ইতােমধ্যে অর্থ বিভাগ, পরিকল্পনা কমিশন এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে অনুষ্ঠিত ত্রিপক্ষীয় সভায় পর্যালােচনা করা হয়েছে এবং উক্ত সভার পর্যবেক্ষণের আলােকে একটি সম্মত বাজেট কাঠামাে প্রণয়নের কাজ চলমান রয়েছে। মধ্যমেয়াদি বাজেট কাঠামাে পদ্ধতিতে বাজেট প্রণয়নের দ্বিতীয় পর্যায়ে মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহকে ত্রিপক্ষীয় সভায় সম্মত রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমার আলােকে বিস্তারিত বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রয়ােজনে সংশােধন/পুননির্ধারণ করতে হবে। 

২.০ মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা নির্ধারণ: 

২.১ বাজেট কাঠামােতে প্রদর্শিত ব্যয় পরিকল্পনা, হালনাগাদকৃত মধ্যমেয়াদি সামষ্টিক অর্থনৈতিক কাঠামােতে (MTMF) প্রক্ষেপিত সর্বমােট ব্যয় এবং প্রাসঙ্গিক অন্যান্য বিষয়াদি বিবেচনা করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য ২০২২-২৩, ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জন্য সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে (পরিশিষ্ট-১ক ও ১খ)। 

২.২ নিম্নেক্ত অনুমানসমূহের (Assumptions) ভিত্তিতে সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে:

মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহ যাতে মধ্যমেয়াদি বাজেট কাঠামােতে বর্ণিত কৌশলগত উদ্দেশ্য এবং অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা (২০২০-২০২৫), ২য় প্রেক্ষিত পরিকল্পনা (২০২১-২০৪১) ও। মন্ত্রণালয়/বিভাগের নিজস্ব নীতিমালায় অর্ন্তভুক্ত সরকারের নীতি ও অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে কার্যক্রম পরিচালনা এবং মধ্যমেয়াদি লক্ষ্যমাত্রাসমূহ অর্জনে সক্ষম হয়। 

বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহ যাতে সরকারের মৌলিক নীতি নির্ধারণী দলিলসমূহের সাথে সামঞ্জস্য রেখে দারিদ্র্য নিরসন সহায়ক বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয় এবং দরিদ্র জনগােষ্ঠীকে প্রদেয় সেবার মান ও পরিমাণ বৃদ্ধি পায়; 

জিডিপি প্রবৃদ্ধির সঙ্গে ব্যয় বৃদ্ধির সামঞ্জস্য রাখা, যাতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের বর্তমান কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা রক্ষা করা যায়; এবং মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের বাজেট বরাদ্দের সর্বোত্তম ব্যবহার (Optimum Utilization) নিশ্চিত করা সম্ভব হয়।

২.৩ এ পরিপত্রের মাধ্যমে পুনর্নির্ধারিত সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকে অবহিত করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রদত্ত ‘রাজস্ব ও প্রাপ্তির সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা এবং ‘সম্ভাব্য ব্যয়সীমা’র ভিত্তিতে ইতােমধ্যে প্রস্তুতকৃত আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণ প্রয়ােজনে সংশােধন/পুননির্ধারণ করতে হবে।

২.৪ উন্নয়ন ব্যয়ের প্রাক্কলন/প্রক্ষেপণে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ কর্তৃক আগামী ৩ অর্থবছরের জন্য বৈদেশিক সহায়তার যে প্রক্ষেপণ (পরিশিষ্ট-২) প্রস্তুত করা হয়েছে, সে অনুযায়ী প্রকল্প সাহায্য (PA) ও পুনর্ভরণযােগ্য প্রকল্প সাহায্যের (RPA) প্রতিফলন নিশ্চিত করতে হবে।। ৩.০ মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের সচিবালয় এবং অধীনস্থ অধিদপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ও সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা সংশােধন/ পুনর্নির্ধারণ: অর্থ বিভাগ, পরিকল্পনা কমিশন এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে অনুষ্ঠিত ত্রিপক্ষীয় সভায় মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং অধীন অধিদপ্তর/সংস্থাসমূহের রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা পর্যালােচনা করে কতিপয় বিষয়ে পর্যবেক্ষণ ও পরামর্শ/দিক-নির্দেশনা প্রদান করা হয়। উক্ত পরামর্শ/নির্দেশনার আলােকে মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং অধীন অধিদপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ও সরকারি অনুদান প্রাপ্ত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা সংশােধন/পুনর্নির্ধারণ করতে হবে।

৩.১ রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা সংশােধন/পুনর্নির্ধারণে সাধারণভাবে বিবেচ্য বিষয়াদি:

কৌশলগত উদ্দেশ্য অর্জনে সহায়ক হয় সেরূপ সুনির্দিষ্ট কার্যক্রমের বিপরীতে অর্থ বরাদ্দ প্রদান করতে হবে। তবে সাধারণভাবে বাজেটে কোন প্রকার থােক বরাদ্দ প্রস্তাব করা যাবে না;

সরকারি অনুদানে পরিচালিত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাসমূহের বরাদ্দ নির্ধারণের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সংস্থার চলতি অর্থবছরের নিজস্ব আয় ও আয়ের উৎস/আইটেমসমূহ পর্যালােচনা করতে হবে। ত্রিপক্ষীয় সভায় সম্মত প্রাক্কলিত ও প্রক্ষেপিত আয় সংশ্লিষ্ট অর্থবছরে দেখাতে হবে। নিজস্ব আয়ের অর্থ বাদ দিয়ে সংশ্লিষ্ট সংস্থার জন্য ব্যয়সীমা/সরকারি অনুদানের পরিমাণ নির্ধারণ করে তার ভিত্তিতেই বিস্তারিত অর্থনৈতিক কোড অনুযায়ী বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রণয়ন করতে হবে; এবং

সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব আয়ের পরিমাণ বিবেচনায় নিয়ে ব্যয়সীমা নির্ধারণ করতে হবে এবং সরকারি অনুদানের পরিমাণ ন্যূনতম পর্যায়ে রেখে এর ভিত্তিতেই বিস্তারিতভাবে বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ করতে হবে।

৩.২ মন্ত্রণালয়/বিভাগ কর্তৃক সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা নির্ধারণ: অর্থ বিভাগ প্রদত্ত সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমার ভিত্তিতে নিয়ন্ত্রণাধীন অধিদপ্তর/পরিদপ্তরসমূহের সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা পুনর্নির্ধারণ করে মন্ত্রণালয়/বিভাগ পরিশিষ্ট-৫-এ সংযুক্ত ফরম-১ ও ফরম-২ অনুযায়ী iBAS++-এ এন্ট্রি করবে।

৩.৩ অধিদপ্তর/পরিদপ্তর কর্তৃক রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা নির্ধারণ: মন্ত্রণালয়/বিভাগ প্রদত্ত সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমার ভিত্তিতে অধস্তন দপ্তর/প্রাতিষ্ঠানিক ইউনিট গ্রুপের রাজস্ব ও প্রাপ্তির সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়ের সম্ভাব্য সীমা নির্ধারণপূর্বক iBAS++-এ এন্ট্রির ক্ষেত্রে অধিদপ্তর/পরিদপ্তর পরিশিষ্ট-৫-এর ফরম-৩ ও ফরম-৪ ব্যবহার করবে। উপরন্তু, অধস্তন দপ্তর/প্রাতিষ্ঠানিক ইউনিট গ্রুপের নির্ধারিত ব্যয়সীমা হতে নিয়ন্ত্রণাধীন/অধীনস্ত প্রতিটি প্রাতিষ্ঠানিক ইউনিট/টাস্ক/সংস্থা/স্কিম/প্রকল্পের ব্যয়সীমা নির্ধারণ করে iBAS++-এ এন্ট্রির জন্য পরিচালন কার্যক্রমের ক্ষেত্রে ফরম-৬ (ক) এবং উন্নয়ন কার্যক্রমের ক্ষেত্রে ফরম-৬ (খ) ব্যবহার করবে।

৩.৪ সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহ সচিবালয় অংশ এবং অধীন সকল অধিদপ্তর/পরিদপ্তর/ অধস্তন দপ্তর/প্রাতিষ্ঠানিক গ্রুপ/ইউনিট/সংস্থার ২০২২-২৩, ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের মােট পরিচালন এবং উন্নয়ন ব্যয় পুনর্নির্ধারিত ব্যয়সীমার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখবে।

৪.০ বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রণয়ন করে মন্ত্রণালয়/বিভাগে প্রেরণ করার জন্য অধিদপ্তর/সংস্থাসমূহকে অনুরােধ জ্ঞাপন: মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহ সচিবালয় অংশ এবং অধীন অধিদপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ও সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের সম্ভাব্য রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা সংশােধন/ পুনর্নির্ধারণের পর যৌক্তিকতাসহ এ সংক্রান্ত প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় উপস্থাপন করবে। বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটি কর্তৃক রাজস্ব ও প্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা এবং ব্যয়সীমা অনুমােদনের পর ২০২২-২৩ অর্থবছরের বিস্তারিত বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণ পুনরায় সংশােধন/প্রণয়ন করে প্রেরণ করার জন্য নিয়ন্ত্রণাধীন দপ্তর/সংস্থাসমূহকে অনুরােধ জানাতে হবে।

৫.০ প্রাক্কলন/প্রক্ষেপণ প্রস্তুতির ক্ষেত্রে অনুসরণীয় নীতিমালা: মধ্যমেয়াদি বাজেট কাঠামাের আওতায় ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণ প্রণয়নের ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে: 

৫.১ রাজস্ব ও প্রাপ্তির প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রণয়ন: ২০২২-২৩ অর্থবছরের রাজস্ব ও প্রাপ্তির বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণ পুনরায় সংশােধন/প্রণয়নের ক্ষেত্রে iBAS++-এ ফরম-৭ ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে কোন আইটেমের আদায়ের হার বৃদ্ধি করা হয়ে থাকলে পুনর্নির্ধারিত হারে সম্ভাব্য অতিরিক্ত রাজস্ব আদায়ের বিষয়টিও বিবেচনায় রাখতে হবে এবং প্রস্তাবিত প্রাক্কলনে এর প্রতিফলন নিশ্চিত করতে হবে।

৫.২ ব্যয়ের প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রণয়ন: সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং অধীন অধিদপ্তর/স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা/অনুদানপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ২০২২-২৩ অর্থবছরের পরিচালন ও উন্নয়ন ব্যয়ের প্রাক্কলন এমনভাবে প্রস্তুত করতে হবে যেন তা মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তর/সংস্থা/প্রতিষ্ঠানের জন্য উক্ত মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটি কর্তৃক অনুমােদিত ব্যয়সীমার মধ্যে সংকুলানযােগ্য হয়; এবং

২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণও এমনভাবে প্রস্তুত করতে হবে যাতে মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তর/সংস্থা/প্রতিষ্ঠানের প্রত্যেক অর্থবছরের পরিচালন ও উন্নয়ন ব্যয় সংশ্লিষ্ট অর্থবছরের জন্য উক্ত মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটি কর্তৃক অনুমােদিত ব্যয়সীমার মধ্যে সংকুলানযােগ্য হয়।

৫.২.১ পরিচালন ব্যয়ের প্রাক্কলন এবং প্রক্ষেপণ: সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তর/পরিদপ্তরের অন্তভুক্ত অধস্তন দপ্তর/ইউনিট গ্রুপের অধীন প্রাতিষ্ঠানিক ইউনিটের বাজেট ইতােমধ্যে বাজেট পরিপত্র-১ অনুসারে বিস্তারিত অর্থনৈতিক কোড অনুযায়ী iBAS++-এ ফরম-৮(ক-১) ব্যবহার করে প্রস্তুত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে বাজেট পরিপত্র-২ অনুযায়ী ব্যয়সীমার সংশােধন/পুননির্ধারণ হয়ে থাকলে এর আলােকে ২০২২-২৩ অর্থবছরের পরিচালন বাজেটের প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণ প্রস্তুত করতে হবে। তবে অর্থ বিভাগের সম্মতি ব্যতিরেকে বাজেট পরিপত্র-১-এ অন্তর্ভুক্ত নেই এমন কোন অর্থনৈতিক কোডের বিপরীতে বরাদ্দ প্রদর্শন করা যাবে না।

৫.২.২ পরিচালন বাজেট হতে সাহায্য মঞ্জুরিপ্রাপ্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রণয়ন: বাজেট পরিপত্র-১ অনুসারে পরিচালন বাজেট হতে সাহায্য মঞ্জুরিপ্রাপ্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট প্রক্ষেপণ iBAS++-এ বিস্তারিত অর্থনৈতিক কোড অনুযায়ী ফরম-৮ (ক-২) ব্যবহার করে প্রস্তুত করা হয়েছে। অতঃপর নিজস্ব আয়ের অর্থ বাদ দিয়ে সংশ্লিষ্ট সংস্থার জন্য ব্যয়সীমা/সরকারি অনুদানের পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে বাজেট পরিপত্র-২ অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট সংস্থা/প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব আয়ের অর্থ বাদ দিয়ে অবশিষ্ট সরকারি অর্থ বরাদ্দ/ব্যয়সীমা পুনঃনির্ধারিত হয়ে থাকলে তা বিস্তারিত অর্থনৈতিক কোড অনুযায়ী ফরম-৮(ক-২) ব্যবহার করে উক্ত সংস্থা/প্রতিষ্ঠানের ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণ প্রয়ােজনে নতুন করে পুনরায় iBAS++ এ এন্ট্রি করতে হবে।

৫.৩ উন্নয়ন ব্যয়ের প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ ৫.৩.১ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বহির্ভূত স্কিমের প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ প্রণয়ন: যে সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বহির্ভূত স্কিমের জন্য বরাদ্দ রয়েছে কেবলমাত্র সে সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট প্রক্ষেপণ পুনরায় প্রণয়ন/সংশােধনের জন্য ফরম ৮ (খ-১) ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলনে অননুমােদিত স্কিমের জন্য কোন বরাদ্দ প্রস্তাব করা যাবে না। তবে ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণে অনুমােদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন স্কিম বিপরীতে বরাদ্দ প্রদর্শন করা যাবে। সংশ্লিষ্ট স্কিমের সকল ব্যয় বিস্তারিত অর্থনৈতিক কোড অনুযায়ী প্রদর্শন করতে হবে। ২০২২-২৩ অথবা ২০২৩-২৪ অর্থবছরে সমাপ্য কোন কর্মসূচির জন্য বরাদ্দ পরবর্তী অর্থবছরের প্রাক্কলন/প্রক্ষেপণে অন্তর্ভুক্ত করা যাবে না।

৫.৩.২ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির প্রাক্কলন/ প্রক্ষেপণ প্রণয়নের ক্ষেত্রে অনুসরণীয় সাধারণ নীতিমালা: বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির প্রাক্কলন/প্রক্ষেপণ প্রণয়নের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং অধীন অধিদপ্তর/সংস্থা অর্থ বিভাগে অনুষ্ঠিত ত্রিপক্ষীয় সভায় নির্ধারিত মানদণ্ডের ভিত্তিতে প্রকল্পওয়ারি বরাদ্দ পর্যালােচনা এবং প্রয়ােজনীয় ক্ষেত্রে পুনর্নির্ধারণ করতে পারবে। তবে এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য প্রদত্ত মােট এডিপি ব্যয়সীমা কোনভাবেই অতিক্রম করা যাবে না। উল্লেখ্য, মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকে প্রদত্ত ব্যয়সীমার । মধ্যে প্রকল্প সাহায্য (ডিপিএ/আরপিএ), নগদ বৈদেশিক মুদ্রা ইত্যাদি বাবদ ব্যয় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এক্ষেত্রে প্রকল্প সাহায্য, নগদ বৈদেশিক মুদ্রা ইত্যাদি ব্যয় বিবেচনা করে প্রকল্পের প্রাক্কলন/প্রক্ষেপণ প্রস্তুত করতে হবে। এ বাবদ ব্যয়সীমার অতিরিক্ত কোন অর্থ বরাদ্দ প্রদান করা হবে না। কোন প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ নির্ধারণের সময়ে লক্ষ্য রাখতে হবে যেন উক্ত প্রকল্পের জন্য অনুমােদিত মােট প্রকল্প ব্যয় এবং মেয়াদ অতিক্রান্ত না হয়। ২০২২-২৩ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে নতুন প্রকল্প অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রস্তাব পরীক্ষা করে। পরিকল্পনা কমিশন প্রচলিত নিয়মে যথাসময়ে প্রয়ােজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

৫.৩.৩ ২০২২-২৩ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির প্রাক্কলন: ২০২২-২৩ অর্থবছরের এডিপিভুক্ত প্রকল্পের ব্যয়ের প্রাক্কলন সংশােধন/পুনঃপ্রণয়নের জন্য ফরম-৮ (খ-১) ব্যবহার করতে হবে। প্রতিটি প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দের প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ অর্থনৈতিক কোড (Economic Code) অনুযায়ী iBAS++ এ বিস্তারিত (Detail) এন্ট্রি করতে হবে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রাক্কলনে অননুমােদিত প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ অন্তর্ভুক্ত করা যাবে না। তবে, ২০২৩-২৪ এবং ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণে অনুমােদিত ও অননুমােদিত/সম্ভাব্য সকল প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ রাখতে হবে। এছাড়া, বৈদেশিক সাহায্য প্রাপ্তির সুবিধার্থে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে নীতিগতভাবে অন্তর্ভুক্তিযােগ্য প্রকল্পসমূহের বিষয়ে প্রয়ােজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

৫.৩.৪ মন্ত্রণালয়/বিভাগ/অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসহ অধীনস্ত অন্যান্য সকল সরকারি/স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা/সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের ক্ষেত্রে ফরম ৮ (খ-২) পূরণ করতে হবে।

৬.০ পরিকল্পনা কমিশন ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের মতামত: অধিদপ্তর/সংস্থাসমূহ নির্ধারিত তারিখের মধ্যে স্ব স্ব অধিদপ্তর/সংস্থার বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটির অনুমােদনের পর সংশােধিত/পুনর্নির্ধারিত প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে প্রেরণ করবে। মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের বাজেট ওয়ার্কিং গ্রুপ সচিবালয় অংশসহ প্রাপ্ত প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ পরীক্ষাক্রমে সুপারিশ প্রণয়ন করবে। মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের বাজেট ওয়ার্কিং গ্রুপের সুপারিশকৃত পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ এবং পরিকল্পনা কমিশনের কার্যক্রম ও সংশ্লিষ্ট সেক্টর ডিভিশনে প্রকল্পভিত্তিক বরাদ্দের ওপর মতামতের জন্য প্রেরণ করতে হবে। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ এবং পরিকল্পনা কমিশনের কার্যক্রম ও সংশ্লিষ্ট সেক্টর ডিভিশন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে হতে প্রাপ্ত প্রাক্কলন/প্রক্ষেপণের ওপর প্রকল্পভিত্তিক বরাদ্দ সম্পর্কিত মতামত সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে প্রেরণ করবে। উল্লেখ্য, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ কেবল প্রকল্প সাহায্য বরাদ্দের বিষয়ে প্রকল্পভিত্তিক মতামত প্রদান করবে।

৭.০ বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণসমূহ পরীক্ষা ও চুড়ান্তকরণ: বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটি সচিবালয়সহ অধিদপ্তর/সংস্থা হতে প্রাপ্ত পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেট (প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ) বিষয়ে বাজেট ওয়ার্কিং গ্রুপের সুপারিশ এবং পরিকল্পনা কমিশনের কার্যক্রম এবং সংশ্লিষ্ট সেক্টর ডিভিশন এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের মতামত পরীক্ষাপূর্বক সামগ্রিক বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ অনুমােদন করবে।

৮.০ ব্যয়সীমার অতিরিক্ত বরাদ্দের প্রস্তাব: সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য অর্থ। বিভাগে অনুষ্ঠিত ত্রিপক্ষীয় সভার আলােচনার ভিত্তিতে যে ব্যয়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে উক্ত ব্যয়সীমা সর্বোচ্চ বরাদ্দ এবং এ বরাদ্দ বৃদ্ধির কোন অবকাশ থাকবে না। অনুমােদিত সম্পদসীমার মধ্যে সকল দপ্তর/সংস্থা কর্তৃক প্রস্তাবিত প্রকল্প/স্কিমসমূহের বরাদ্দ সংকুলান করা সম্ভব না হলে ত্রিপক্ষীয় সভার সুপারিশ, মন্ত্রণালয়ের কৌশলগত উদ্দেশ্য এবং প্রধান কর্মকৃতি নির্দেশকসমূহের (KPI) লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প/স্কিমসমূহের গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে। বাজেট ওয়ার্কিং গ্রুপ প্রকল্প/স্কিমসমূহের পুনঃঅগ্রাধিকার নির্ধারণপূর্বক বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটির জন্য সুপারিশ প্রণয়ন করবে। সেক্ষেত্রে অগ্রাধিকার তালিকার ভিত্তিতে অপেক্ষাকৃত কম অগ্রাধিকারসম্পন্ন কার্যক্রম/প্রকল্প/স্কিম বাদ দিয়ে অথবা এ জাতীয় কার্যক্রম/প্রকল্প/স্কিমের বরাদ্দের পরিমাণ হ্রাস করে অপেক্ষাকৃত উচ্চ অগ্রাধিকারসম্পন্ন কার্যক্রম/প্রকল্প/স্কিমের জন্য প্রয়ােজনীয় অর্থ সংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। বাজেট ওয়ার্কিং গ্রুপের সুপারিশ পর্যালােচনা করে বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

৯.০ অর্থনৈতিক কোডওয়ারি উন্নয়ন প্রকল্প ব্যয়ের সমন্বয়/সংশােধন: পরিকল্পনা কমিশনের সংশ্লিষ্ট সেক্টর ও কার্যক্রম বিভাগ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভূক্ত প্রকল্পের অর্থনৈতিক গ্রুপ কোডওয়ারি ব্যয় প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ পর্যালােচনা করবে এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সাথে পরামর্শক্রমে চূড়ান্ত করবে। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) কর্তৃক অনুমােদনের পর আইবাস (iBAS++)-এ আপলােড (upload) করার জন্য কার্যক্রম বিভাগ চূড়ান্ত এডিপি ইলেক্ট্রোনিক্যালি (electronically) অর্থ বিভাগে প্রেরণ করবে। কার্যক্রম বিভাগ কর্তৃক চূড়ান্ত সংশােধনের আলােকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান প্রযােজ্য প্রকল্প/প্রকল্পসমূহের ব্যয় প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণ বিস্তারিত অর্থনৈতিক কোডওয়ারি বিভাজনে প্রয়ােজনীয় সমন্বয়/সংশােধন নিশ্চিত করবে।

১০.০ বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটির সভার কার্যবিবরণী: অর্থ বিভাগ/পরিকল্পনা কমিশনে প্রেরণের পূর্বে বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণসমূহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক মন্ত্রণালয়ের বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটি বাজেট ওয়ার্কিং গ্রুপের সহায়তায় বিস্তারিতভাবে পরীক্ষা ও অনুমােদন করবে। বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটি নিশ্চিত করবে যে, বাজেট প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণসমূহ এই পরিপত্রে বর্ণিত নীতিমালা/পদ্ধতি যথাযথভাবে অনুসরণের মাধ্যমে প্রস্তুত করা হয়েছে। প্রস্তাবিত প্রাক্কলন/প্রক্ষেপণ অর্থ বিভাগ ও পরিকল্পনা কমিশনে প্রেরণকালে এর সাথে বাজেট ব্যবস্থাপনা কমিটির সংশ্লিষ্ট সভাসমূহের কার্যবিবরণী সংযুক্ত করতে হবে।

১১.০ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান কর্তৃক গৃহীতব্য পদক্ষেপসমূহ এবং সময়সীমা: সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান কর্তৃক গৃহীতব্য পদক্ষেপসমূহ এবং সময়সীমার ক্ষেত্রে (পরিশিষ্ট-৩) বাজেট পরিপত্র-২ এ বর্ণিত পদ্ধতি ও সময়সীমা যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে।

১২.০ স্পষ্টীকরণ: বাজেট পরিপত্রে প্রদত্ত নীতিমালা/দিকনির্দেশনার বিষয়ে কোন স্পষ্টীকরণ বা ব্যাখ্যার প্রয়ােজন হলে অর্থ বিভাগ এবং পরিকল্পনা কমিশনে দায়িত্বপ্রাপ্ত হেল্প ডেস্ক কর্মকর্তাদের (পরিশিষ্ট-৪) সাথে যােগাযােগ করা যেতে পারে।

১৩.০ বাজেট প্রাক্কলন দাখিল করার সময়সীমা: ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রাক্কলন এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রক্ষেপণসমূহ আগামী ০৮ মে, ২০২২ তারিখের মধ্যে iBAS++ এ Entry সম্পন্নকরণ এবং hard copy অর্থ বিভাগের বাজেট অনুবিভাগ-১/২, পরিকল্পনা কমিশনের কার্যক্রম বিভাগ, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ ও সংশ্লিষ্ট সেক্টর ডিভিশনে এক প্রস্থ করে প্রেরণ করার জন্য অনুরােধ করা হ’ল। উল্লেখ্য, যদি কোন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি/উন্নয়ন বাজেটের সঙ্গে একাধিক সেক্টর ডিভিশন সংশ্লিষ্ট থাকে তাহলে সংশ্লিষ্ট সকল সেক্টর ডিভিশনে বাজেট প্রাক্কলনের সংশ্লিষ্ট অংশ প্রেরণ করতে হবে। নির্ধারিত তারিখের মধ্যে বাজেট প্রাক্কলনসমূহ অর্থ বিভাগ ও পরিকল্পনা কমিশনে প্রেরণ নিশ্চিত করার জন্য বিশেষভাবে অনুরােধ করা হ’ল।

স্বাক্ষরিত/

(নাজমা মােবারেক)

অতিরিক্ত সচিব (বাজেট-১)

ফোন: ৯৫১১০৫০ 

 

২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট এবং ২০২৩-২৪ ও ২০২৪-২৫ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রণয়ন পরিপত্র: ডাউনলোড

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 2981 posts and counting. See all posts by admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *