সরকারি কর্মচারীদের জন্য দেশের অভ্যন্তরে উচ্চশিক্ষা বিষয়ক নীতিমালা-২০১৫

প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত সরকারি/আধা সরকারি/বিধিবদ্ধ/স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার কর্মচারীদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে তাদের কর্মজীবন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে উচ্চশিক্ষাকে সরকার গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করছে। উচ্চশিক্ষার অনুমোদন কার্যক্রমকে সহজীকরণের জন্য একটি সমন্বিত নীতিমালার প্রয়োজন রয়েছে। এ বিষয় বিবেচনায় প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত কর্মচারীদের দেশের অভ্যন্তরে উচ্চশিক্ষা সংক্রান্ত এ নীতিমালা জারি করা হয়েছে।

নীতিমালার উদ্দেশ্য:
কর্মচারীদের জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধি
কর্মচারীদের আবেদন বিবেচনার মাধ্যমে উচ্চশিক্ষাকে উৎসাহিতকরণ
জনবান্ধব নীতি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে পেশাদারি মনোভাবের বিকাশ সাধন।

উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্র:
পোস্ট গ্র্যাজুয়েট, ডিপ্লোমা, মাস্টার্স, এম ফিল, পিএইচডি ইত্যাদি

প্রেষণ:
পূণবৃত্তিতে সম্পাদনযোগ্য উচ্চশিক্ষা কোর্সের সম্পূর্ণ মেয়াদের জন্য কোন কর্মচারীকে স্বাভাবিক নিয়মে প্রেষণ মঞ্জুর করা যাবে।

শিক্ষাছুটি:
সর্বোচ্চ ২ বছর পর্যন্ত।

কর্মচারীর বয়স: 
PRL এর পূর্বে কমপক্ষে ৩ বছর থাকতে হবে।

কোন প্রার্থীর বয়স ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) বছর উত্তীর্ণ হলে তিনি প্রেষণের যোগ্য হবে না।

দেশের অভ্যন্তরে উচ্চ শিক্ষা বিষয়ক প্রেষণ নীতিমালা : ডাউনলোড

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.