পেনশন সংক্রান্ত ২৮টি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর (সূত্র সহ)।

সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য পেনশন ও ফান্ড ম্যানেজমেন্ট নামে একটি সেল গঠন করা হয়েছে এবং এর জন্য আলাদা ওয়েবসাইটও তৈরি করা হয়েছে যেখানে পেনশন সুবিধাকে সহজীকরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। একজন পেনশনধারীকে যেন লাইনে দাড়িয়ে পেনশন তুলতে না হয় সেজন্য EFT সুবিধার আওতায় আনা হয়েছে পেনশন প্রদান পদ্ধতিকে। পেনশনধারীদের অধিকার প্রদাণে বর্তমান সরকার সকল ডিজিটাল পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। নিচে পেনশন সংক্রান্ত কিছু প্রশ্নের উত্তর প্রদান করা হলো। 

১। পারিবারিক পেনশন কখন থেকে চালু হয় ?

উত্তর : ০১/০৬/১৯৯৪ খ্রি: হতে। সূত্র: ফাইন্যান্স এন্ড রেভিনিউ ডিপার্টমেন্টের অডিট ব্রাঞ্চের মেমো নং- ২৫৬৬(৪০)-এফ, তারিখ: ১৬/০৪/১৯৫৯ খ্রিস্টাব্দ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- অম/অবি/বিধি-১/৩পি-২/২০০৫(অংশ-১)/৫, তারিখ: ২৭/০১/২০০৯ খ্রিস্টাব্দ অনুসারে পূর্ণ হারে আজীবন পারিবারিক পেনশন পাবেন।

২। কারা কারা আজীবন পেনশন পাবে ?

উত্তর : মূল পেনশনার, স্ত্রী এবং প্রতিবন্ধী সন্তান।সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- অম/অবি/বিধি-১/৩পি-৩/২০০৫/৩৭৬, তারিখ: ১৩/১১/২০০৭ খ্রিস্টাব্দ, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- অম/অবি/বিধি-১/বিবিধ-৩/২০০৬/৪০৬, তারিখ: ১৩/১১/২০০৭ খ্রিস্টাব্দ

৩। স্ত্রীর পেনশন স্বামী পাবে কি ?

উত্তর : আজীবন পাবে, তবে পেনশনারের অবসর গ্রহণ হতে ১৫ বৎসরের মধ্যে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হলে, স্বামীর পেনশন বন্ধ হয়ে যাবে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- ০৭.০০.০০০০.১৭১.১৩.০০৩.১৮-১৩৮, তারিখ: ১৪/১১/২০১৮ খ্রিস্টাব্দ

৪। ধরা যাক ১ম স্ত্রী নি: সন্তান, ২য় স্ত্রীর ৪ সন্তান, এমতাবস্থায় কে কত শতাংশ পাবে?

উত্তর : মোট পেনশন ১৬আনা। স্ত্রী সন্তান মিলে ৪ জনের অধিক হলেই ২ জন স্ত্রী ৪+৪ আনা পাবে, বাকী ৮ আনা সমান হারে সন্তানদের মাঝে বন্টন হবে। অর্থাৎ ১ম স্ত্রী ৪ আনা আর ২য় স্ত্রী সন্তানদের অংশ সহ (৪+৮)=১২ আনা পেনশন পাবে। সূত্র: ফাইন্যান্স এন্ড রেভিনিউ ডিপার্টমেন্টের অডিট ব্রাঞ্চের মেমো নং- ২৫৬৬(৪০)- এফ, তারিখ: ১৬/০৪/১৯৫৯ খ্রিস্টাব্দ

৫। শতভাগ পেনশন সমর্পণ করতে পারবে না কখন থেকে ?

উত্তর : ০১/০৭/২০১৭খ্রি: হতে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- ০৭.০০.০০০০.১৭১.১৩.০০৫.১৬-০৬, তারিখ: ০৯/০১/২০১৭ খ্রিস্টাব্দ

৬। বিধবা বা তালাক প্রাপ্ত কন্যাগণ পেনশন পাবে কি ?

উত্তর : স্বামী-স্ত্রীর অবর্তমানে সর্বোচ্চ ১৫ বৎসরের অবশিষ্ট সময়টুকুর জন্য পেনশন পাবে। সূত্র: বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ের স্মারক নং- সিএজি/পদ্ধতি-২/৪৬১/(খন্ড ৪)/২৮৯/(১), তারিখ: ২০/১০/২০০২ খ্রিস্টাব্দ
অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- অম/অবি/বিধি-১/৩ পি-২/২০০৫(অংশ-১)/৫, তারিখ: ২৭/০১/২০০৯ খ্রিস্টাব্দ

৭। শতভাগ সমর্পণকারী পেনশনার মারা গেলে পরিবারবর্গ উৎসব ভাতা পাবে কি ?

উত্তর : যোগ্য ওয়ারিশ থাকলে পাবে, তবে তাহা ০১/০২/২০১৬খ্রি: হতে পাবে, তাহার পূর্বের কোন বকেয়া পাবে না। সূত্র:অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- ০৭.০০.০০০০.১৭১.১৩.০১৩.১৩-৭২, তারিখ: ১১/০৭/২০১৬ খ্রিস্টাব্দ

৮। একজন চাকুরীজিবী কত বৎসর চাকুরী করলে পেনশন পাবে ?

উত্তর : সর্বনিম্ন ৫ বৎসর। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- ০৭.০০.০০০০.১৭১.১৩.০০৬.১৫-৮১, তারিখ: ১৪/১০/২০১৫ খ্রিস্টাব্দ

৯। পেনশনারগণ ২৫০০ টাকা চিকিৎসা ভাতা কখন পায় ?

উত্তর : ৬৫ বৎসর পূর্ণ হলে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের এস.আর.ও নং ৩৬৯-আইন/২০১৫{চাকরি (বেতন ও ভাতাদি) আদেশ, ২০১৫}

১০। আমার পিতার জন্ম ০১/০১/১৯৪৮ সালে, তাহলে জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী কি কি সুবিধা পাবে?

উত্তর : ৫০% পেনশন বৃদ্ধির সুবিধা পাবে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের এস.আর.ও নং ৩৬৯-আইন/২০১৫

১১। সরকারী কর্মচারীর মত পেনশনার ও কি “বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট” পাবে ?

উত্তর : হ্যাঁ, পাবে। তবে ০১/০৭/২০১৭ হতে কার্যকর হবে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- ০৭.০০.০০০০.১৭১.১৩.০০৫.১৬-০৬, তারিখ: ০৯/০১/২০১৭ খ্রিস্টাব্দ

১২। পেনশনারদের জন্য ২টি উৎসব ভাতা কখন চালু হয় ?

উত্তর : ০১/০৭/২০০৮ ইং হতে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং-অম/অবি/বিধি-১/চা:বি:-৩/২০০৪/৯৯, তারিখ: ২৪/০৬/২০০৮ খ্রিস্টাব্দ

১৩। পেনশনারগণ নববর্ষ ভাতা পাবে কি ?

উত্তর : হ্যাঁ, পাবে। এপ্রিল/২০১৭ হতে পাবে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের এস.আর.ও নং ৩৬৯-আইন/২০১৫

১৪। আমার চাকুরী ৬ বৎসর পূর্ণ হয়েছে, সেচ্ছায় অবসরে যেতে পারব কি ?

উত্তর : না, তবে কেউ অসুস্থ হলে মেডিকেল বোর্ড কর্তৃক অক্ষমতা সনদের পর তা নির্বাহী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক গৃহীত হলে মঞ্জুরী সাপেক্ষে অক্ষমতা পেনশনে যাওয়া যায়। সূত্র: গণকর্মচারী (অবসর) আইন, ১৯৭৫ বিএসআর পার্ট-১ এর বিধি-৩২২

১৫। একটানা কত মাস যাবৎ পেনশন না নিলে পরবর্তীতে পেনশন নিতে হলে পেনশনার কর্তৃক আবেদন দাখিল করতে হবে কি?

উত্তরঃ একটানা ১২ মাস যাবৎ পেনশন না নিলে পরবর্তীতে পেনশন নিতে হলে পেনশনার কর্তৃক আবেদন দাখিল করতে হবে অথবা স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে পেনশন নিতে হবে। সূত্র: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং-অম/অবি/বিধি-১/৩ পি-২/২০০৫(অংশ-১)/৫, তারিখ: ২৭/০১/২০০৯ খ্রিস্টাব্দ

১৬। গুরতর অসুস্থ পেনশনারকে ইএফটি’র আওতায় আসতে  হলে পেনশনারকে উপস্থিত থাকতে হবে কিনা?

উত্তরঃ না, এমতাবস্থায় সংস্লিস্ট পে পয়েন্ট অফিস তার নিজস্ব নিয়মে বা ব্যবস্থাপনায় পেনশনারকে ইএফটির আওতায় আনবে।সূত্র: হিসাব মহানিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের স্মারক নং-০৭.০৩.০০০০.০১০.০৮.৮৩৯.১৮-৩৭৫, তারিখ: ২৮/০৭/২০১৯ খ্রিস্টাব্দ

১৭। পেনশন ইএফটি হলে কতদিন পর পর একাউন্টস অফিসে আসতে হবে?

উত্তরঃ পেনশন ইএফটি হলে ১১ মাসে একবার একাউন্টস অফিসে আসতে হবে। সূত্র: হিসাব মহানিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের স্মারক নং-০৭.০৩.০০০০.০১০.০৮.৮৩৯.১৮-৩৭৫, তারিখ: ২৮/০৭/২০১৯ খ্রিস্টাব্দ

১৮। কল্যাণ কর্মকর্তা কে এবং তাঁর কাজ কী ?

উত্তর : অবসরগমনকারী সরকারী কর্মচারীগণের পেনশন কেইস প্রক্রিয়াকরণে সহায়তা প্রদানের জন্য প্রত্যেক মন্ত্রনালয়/বিভাগ/অধিদপ্তর/পরিদপ্তর/দপ্তর পেনশন কেইস প্রক্রিয়াকরণে সরাসরি সম্পৃক্ত একজন কর্মকর্তাকে কল্যাণ কর্মকর্তা হিসাবে মনোনয়ন প্রদান করেন। পেনশন কেবাস নিস্পত্তিতে তিনি সমন্বয়ক হিসাবে কাজ করেন। সূত্র: সরকারী কর্মচারীগণের পেনশন সহজীকরণ আদেশ,২০২০ এর ২.০১

১৯। প্রত্যাশিত শেষ বেতনপত্র (ইএলপিসি) কখন জারী করতে হয় ?

উত্তর : সরকারী কর্মচারী অবসর-উত্তর ছুটিতে গমনের ১১(এগার) মাস পূর্বে প্রত্যাশিত শেষ বেতনপত্র (ইএলপিসি) জারী করবেন। সূত্র: সরকারী কর্মচারীগণের পেনশন সহজীকরণ আদেশ,২০২০ এর ২.০৫

২০। সাময়িক পেনশন বলতে কি বোঝায় ?

উত্তর : যে সকল পেনশন কেইস না-দাবি প্রত্যয়নপত্র অথবা অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদির অভাবে নিস্পত্তি করা সম্ভব হয়না সেই সকল ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর/উপযুক্ত উত্তরাধিকারীর আবেদনক্রমে প্রাপ্য আনুতোষিকের শতকরা ৮০ ভাগ এবং প্রাপ্য নিট পেনশন সাময়িকভাবে প্রদান করতে হবে- এটাই সাময়িক পেনশন। সূত্র: সরকারী কর্মচারীগণের পেনশন সহজীকরণ আদেশ,২০২০ এর ২.১১

২১। পেনশন পুন:স্থাপন বলতে কী বোঝায় ?

উত্তর : শতভাগ পেনশন সর্মপনকারী সরকারী কর্মচারীগণ অবসরগ্রহণের তারিখ হতে ১৫ বছর সময় অতিক্রান্তের পর মাসিক পেনশনের সুবিধাপ্রাপ্ত হবেন- এটাই পুন:স্থাপিত পেনশন। সূত্র: সরকারী কর্মচারীগণের পেনশন সহজীকরণ আদেশ,২০২০ এর ২.১৩

২২। শতভাগ পেনশন সর্মপনকারী সরকারী কর্মচারীগণ পুন:স্থাপিত পেনশন সুবিধা প্রাপ্ত হবার পূর্বে মারা গেলে ১৫ বছর পূর্তিতে তার বৈধ্য উত্তরাধিকারীগণ কী পুন:স্থাপিত পেনশন সুবিধা পাবেন ?

উত্তর : প্রাপ্য হবেন না। সূত্র: সরকারী কর্মচারীগণের পেনশন সহজীকরণ আদেশ,২০২০ এর ৪.০১

২৩। শতভাগ পেনশন সর্মপনকারী সরকারী কর্মচারীগণ পুন:স্থাপিত পেনশন সুবিধা প্রাপ্ত হবার পূর্বে মারা গেলে ১৫ বছর পূর্তিতে তার বৈধ উত্তরাধিকারীগণ কোন ধরণের পেনশন সুবিধা পাবেন ?

উত্তর : সর্মপিত পারিবারিক পেনশন সুবিধা প্রাপ্য হবেন। অর্থ্যাৎ মাসিক পেনশন ব্যতিত অন্যান্য ভাতাদি (উৎসবভাতা, চিকিৎসাভাতা, নববর্ষভাতা) পাবেন। সূত্র: অর্থবিভাগের স্মারক নং: ০৭.০০.০০০.১৭১.১৩.০১৩.১৩-৭৪ তারিখ: ০৩.০৮.২০১৭ খ্রি.

২৪। পেনশনারের “জীবন প্রমান (Life Verification)” কী?

উত্তর : জিএফআর এর বিধি ….অনুযায়ী প্রতি এগারতম মাসে পেনশনারকে স্বশরীরে পে পয়েন্টে হাজির হয়ে জীবিত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে-এটাই জীবন প্রমান (Life Verification)। ইএফটি প্রহণরত পেনশনারগণের ক্ষেত্রেও উক্ত বিধি প্রযোজ্য। সে আলোকে EFT গ্রহণরত পেনশনারগণকে EFT পেমেন্ট শুরুর সময় হতে ১১ তম মাসে স্বশরীরে পে পয়েন্টে হাজির হয়ে Life Verification সম্পন্ন করতে হবে। সূত্র: জিএফআর

২৫। পেনশনারকে “জীবন প্রমান (Life Verification) এর বিষয়টি পূর্বেই অবহিত করা হয় কী ?

উত্তর : হ্যাঁ । পেনশনারকে ১০ মাসে মোবাইল ফোনে এসেএমএম এর মাধ্যমে অবহিত করা হয়। সূত্র: স্মারক নং- সিএও/পিএফএম/সিজিএ যোগাযোগ/৪৩/১৩৮ তারিখ: ০৫.১২.২০১৯ খ্রি.

২৬। পেনশনার যথাসময়ে “জীবন প্রমান (Life Verification) সম্পন্ন না করলে কী পেনশন বন্ধ হয়ে যাবে ?

উত্তর : হ্যাঁ, স্বয়ংক্রিয়ভাবে পেনশন পেমেন্ট বন্ধ হয়ে যাবে। সূত্র: স্মারক নং- সিএও/পিএফএম/সিজিএ যোগাযোগ/৪৩/১৩৮ তারিখ: ০৫.১২.২০১৯ খ্রি.

২৭। “জীবন প্রমান (Life Verification) এর জন্য যে পে পয়েন্ট হতে পেমেন্ট করা হচেছ পেনশনারকে কী সেই পে পয়েন্টেই যেতে হবে, না যেকোন পে পয়েন্টে যেতে হবে?

উত্তর : যে কোন পেনশনার যে কোন পে-পয়েন্ট হতে Verified হতে পারবে। পেনশনার তার সুবিধাজনক যে কোন পে পয়েন্ট হতে Verified হতে পারবে। সূত্র: স্মারক নং- সিএও/পিএফএম/সিজিএ যোগাযোগ/৪৩/১৩৮ তারিখ: ০৫.১২.২০১৯ খ্রি.

২৮। সরকারী কর্মচারীর মত পেনশনার ও কি “বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট” পাবে ?

উত্তর : হ্যাঁ, পাবে। তবে ০১/০৭/২০১৭ হতে কার্যকর হবে। সূত্র:অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের স্মারক নং- ০৭.০০.০০০০.১৭১.১৩.০০৫.১৬-০৬, তারিখ: ০৯/০১/২০১৭ খ্রিস্টাব্দ

 

সূত্র: পেনশন ও ফান্ড ম্যানেজমেন্ট ওয়েব সাইট

admin

আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন admin@bdservicerules.info ঠিকানায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.