iBAS++: Approved তথ্য হিসাবরক্ষণ অফিস ছাড়াও সংশোধন করা যায়।

বর্তমানে চলছে আইবাস++ এ কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের তথ্য এন্ট্রির কাজ। বাংলাদেশ সরকার আগামী এপ্রিল/২১ মাসের মধ্যে সরকারি কর্মচারীদের বেতন বিল অনলাইনে প্রদানের রোড ম্যাপ তৈরি করেছে। মুজিববর্ষ উদযাপনের লক্ষ্যে এ বছরই সকল সরকারী কর্মচারীদের বেতন বিল ইএফটি’র মাধ্যমে প্রদানের জন্য সরকার সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

আমার অনেকেই জানি সকল তথ্য ডিডিও আইডি’র মাধ্যমে এন্ট্রি করে Approved করার পর আর সংশোধন করা যায় না। যদি সংশোধনের প্রয়োজন পড়ে তবে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অর্থাৎ হিসাবরক্ষণ অফিসের মাধ্যমে সংশোধন করতে হয় কিন্তু বিষয়টি এমণ নয়। ডিডিও আইডি কর্তৃক Approved তথ্যও পরিবতর্ন করা যায়।

Staff Information Entry (New) মেনুতে গিয়ে একজন কর্মচারীর এনআইডি দিয়ে ঢুকে ব্যক্তিগত তথ্য, ব্যাংক হিসাব সংক্রান্ত তথ্য, চাকুরী সংক্রান্ত তথ্য, বেতন ভাতাদি, জিপিএফ, লোন ইত্যাদি তথ্য এন্ট্রির মাধ্যমে সেইভ করতে হয়।

 

দ্বিতীয় ধাপে Staff Information Approval মেনুর মাধ্যমে সকল তথ্য ইনপুট নিশ্চিত করে করে একাধিকবার চেক ও রিচেক করে তথ্য Approve করতে হয়। যদি আপনি তথ্য Approved না করেন তবে আপনি ছুটি সংক্রান্ত তথ্য, সংযুক্তি, পিআরএল, লিয়েন, ডেপুটেশন ইত্যাদি তথ্যগুলো এন্ট্রি করতে পারবেন না। তাই তথ্য অনুমোদনের পর এগুলো এন্ট্রি দিতে হয়। অনেকেরই ভুল ধরনা রয়েছে যে, একবার তথ্য অনুমোদন করা হলে হিসাবরক্ষণ অফিস ছাড়া আর সংশোধন করা যায় না। মূলত এমনটি নয়, আপনি Approved তথ্য সংশোধন করতে হলে Employee Basic Infromation, Employee Service information, Employee Salary information থেকে Employee Bank Account Information যে কোন একটি মেনুতে ক্লিক করে এনআইডি দিয়ে ঢুকে সংশ্লিষ্ট তথ্য সংশোধনের মাধ্যমে সেইভ করে দিতে পারেন।

তাই তথ্য সংশোধন নিয়ে কোন প্রকার দু:চিন্তা না করে আপনি সহজেই তথ্যগুলো অনুমোদন করে বিস্তারিত তথ্য অর্থাৎ ছুটি সংক্রান্ত তথ্য সহ অন্যান্য তথ্য এন্ট্রি করে নিতে পারেন।

কর্মচারীদের তথ্য সঠিকভাবে এন্ট্রি নিশ্চিত করতে অবশ্যই ডকুমেন্টগুলো সামনে নিয়ে তথ্য এন্ট্রি করবেন। সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের তথ্য এন্ট্রির ক্ষেত্রে তাদের দ্বারা পূরণকৃত তথ্য এন্ট্রি করলে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে তাই তথ্য এন্ট্রি ক্ষেত্রে রেফারেন্স ডকুমেন্ট দিয়ে একবার ক্রসচেক করে নিবেন।

১। জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি;

২। এস.এস.সি এর ফটোকপি।

৩। ব্যাংক হিসাবে চেক বইয়ের ফটোকপি (রাউটিং নম্বর সহ)

৪। স্বামী/সন্ত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি।

৫। সন্তানের জন্মনিবন্ধন সনদ/জাতীয় পরিচয়পত্র/প্রতিবন্ধী সন্তানের ক্ষেত্রে সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক প্রদত্ত পরিচয়পত্রের ফটোকপি (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।

৬। ঋণ সংক্রান্ত তথ্যঅদি (জিপিএফ/গৃহ নির্মাণ/কম্পিউটার/মোটর সাইকেল ইত্যাদি ) যদি থাকে)।

৭। উচ্চতর স্কেলের তথ্য (পেয়ে থাকলে)

৮। সর্বশেষ বার্ষিক বর্ধিত বেতন নির্ধারণের ফটোকপি।

৯। সাধারণ ভবিষ্য তহবিল (জিপিএফ) এর তথ্য।

১০। ব্যাংক সংক্রান্ত তথ্য: হিসাবের নাম (ইংরেজীতে), হিসাব নম্বর (ধরণসহ), ব্যাংকের নাম, শাখা।

উপরোক্ত ১০টি ডকুমেন্ট রেফারেন্স হিসাবে ইএফটি ফরমের সাথে সংরক্ষণ করা হলে প্রয়োজনে উক্ত ডকুমেন্ট হতে পরবর্তী যে কোন তথ্য সংগ্রহ করা যাবে।

সরকারি কর্মচারীদের ইএফটির জন্য নতুন ফরম এর (৪ পৃষ্ঠা) PDF and Docx FORMAT

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.