পতাকা বিধিমালা-১৯৭২ এর অধিকতর সংশোধন । পতাকাদন্ডের এক-চতুর্থাংশের সমান দৈর্ঘ্য বরাবর নিচে নামাতে হবে

জাতীয় পতাকা তৈরি ও ব্যবহারে সতর্ক থাকতে হবে অন্যথায় জরিমানা বা শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে – পতাকা বিধিমালা-১৯৭২ এর অধিকতর সংশোধন ২০২৩

পতাকা বিধিমালার কত অনুচ্ছেদ সংশোধন করা হয়েছে? এস. আর. ও নং-২৪৭/আইন ২০২৩:- বাংলাদেশ জাতীয় সংগীত, পতাকা ও প্রতীক আদেশ ১৯৭২ (রাষ্ট্রপ্রতির আদেশ নং -১৩০/১৯৭২) এর অনুচ্ছেদ ৫ এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পতাকা বিধিমালা-১৯৭২ এর নিম্নরূপ অধিকতর সংশোধন করিল, যথা:- উপরি-উক্ত বিধিমালা এর বিধি ৭ এর অনুচ্ছেদ XII এর পরিবর্তে নিম্নরূপ অনুচ্ছেদ XII প্রতিস্থাপিত হইবে, যথা:- “XII. জাতীয় পতাকা অর্ধনমনের ক্ষেত্রে পতাকা প্রাথমিকভাবে পতাকাদন্ডের চূড়ায় তুলতে হবে এবং তাৎক্ষনিকভাবে পতাকাদন্ডের এক-চতুর্থাংশের সমান দৈর্ঘ্য বরাবর নিচে নামাতে হবে। দিনের শেষে অবনমনের ক্ষেত্রে পতাকা পুনরায় পতাকাদন্ডের চূড়ায় উঠিয়ে তারপর নামাতে হবে।

উদাহরণ -১: পতাকাদন্ডের দৈর্ঘ্য যদি ২৪ ফুট হয় তাহলে পতাকাদন্ডের শীর্ষ এবং পতাকার শীর্ষের মধ্যবর্তী দুরুত্ব হবে ৬ ফুট।উদাহরণ-২ : পতাকাদন্ডের দৈর্ঘ্য যদি ২৮ ফুট হয় তাহলে পতাকাদন্ডের শীর্ষ এবং পতাকার শীর্ষের মধ্যবর্তী দূরত্ব হবে ৭ ফুট।ইহা অবিলম্বে কার্যকর হইবে।

“(২৫) যেক্ষেত্রে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘পতাকা উত্তোলন করা হয়, সেইক্ষেত্রে একই সাথে জাতীয় সঙ্গীত গাইতে হইবে। যখন জাতীয় সঙ্গীত বাজানাে হয় এবং জাতীয় পতাকা প্রদর্শিত হয়, তখন উপস্থিত সকলে ‘পতাকা’র দিকে মুখ করিয়া দাঁড়াইবেন। ইউনিফর্মধারীরা স্যালুটরত থাকিবেন। পতাকা প্রদর্শন না করা হইলে, উপস্থিত সকলে বাদ্য যন্ত্রের দিকে মুখ করিয়া দাঁড়াইবেন, ইউনিফর্মধারীরা জাতীয় সঙ্গীতের শুরু হইতে শেষ পর্যন্ত স্যালুটরত থাকিবেন।” বাংলাদেশের পতাকা বিধিমালা, ১৯৭২ এর বিধান প্রতিপালন।

জাতীয় পতাকা সাইজ এবং গাড়িতে পতাকা ব্যবহার দৈর্ঘ্য / বাংলাদেশ জাতীয় পতাকা বিধিমালা ১৯৭২, ২০০৫ সালে সংশোধণ করা হয়েছে। 

বিল্ডিয়ের পতাকা সাইজ ১০:৬ এবং ৫:৩ । গাড়িতে উত্তোলিত পতাকা ১৫:৯ এবং ১০:৬ ।  বিশেষ দিবস গুলোতে পতাকা অর্ধ নমিত রাখা হয়।

জাতীয় পতাকা বিধিমালা সংশোধন প্রজ্ঞাপন বাংলা দেখুন

জাতীয় পতাকার মাপ । ঠিক কি মাপের পতাকা তৈরি করতে হবে?

  1. বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার অনুপাত- ১০:৬ বা ৫:৩।
  2. দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের আয়তাকার ক্ষেত্রের গাঢ় সবুজ রঙের মাঝে লাল বৃত্ত থাকবে।
  3. পতাকার দৈর্ঘ্য ১০ ফুট। তাহলে প্রস্থ হবে ৬ ফুট। লাল বৃত্তের ব্যাসার্ধ হবে ২ ফুট।
  4. পতাকার দৈর্ঘ্যর বিশ ভাগের বাম দিকের নয় ভাগের শেষ বিন্দুর ওপর অঙ্কিত লম্ব এবং প্রস্থের দিকে মাঝখান বরাবর অঙ্কিত সরল রেখার ছেদ বিন্দু হলো লাল বৃত্তের কেন্দ্র।
  5. পতাকার লাল বৃত্তের মাপ- পতাকার ৫ ভাগের ১ অংশ বা বৃত্তটি দৈর্ঘ্যর এক-পঞ্চমাংশ ব্যসার্ধ বিশিষ্ট হবে।

পতাকা উত্তোলন না করলে কারা দন্ড হতে পারে?

হ্যাঁ। যথাযথ সম্মান প্রর্দশন বা জাতীয় পতাকা উত্তোলন না করিলে ২ বছর কারাদন্ড সহ ১০ হাজার টাকা আর্থিক জরিমানার বিধান রয়েছে। ২০১০ সালের ২০ জুলাই প্রণীত আইন অনুযায়ী ৫ হাজার টাকা জরিমানা বা এক বছরের কারাদণ্ড কিংবা উভয় দণ্ডের বিধান রয়েছে। ২০১০ সালের জুলাই মাসে এই আইন সংশোধিত হয়। এই সংশোধনীতে সর্বোচ্চ ২ বছর পর্যন্ত কারাদন্ডের শাস্তি এবং ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ডে বিধান রাখা হয়।

 

বাংলাদেশের পতাকা বিধিমালা সংশোধন ২০২১

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 3002 posts and counting. See all posts by admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *