পেনশনার সঞ্চয়পত্র কে ক্রয় করতে পারে এবং তাদের জন্য কি আলাদা কোন সুবিধা আছে কিনা তা নিয়ে জানবো। পেনশনার সঞ্চয়পত্র সবার জন্য উন্মুক্ত নয়। এটি শুধুমাত্র সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য একটি স্কিম। তবে চাকরিজীবী মারা গেলে অর্থাৎ পারিবারিক পেনশনের অর্থও স্ত্রী, সন্তান পেনশনার সঞ্চয়পত্র কিনতে পারে। এক্ষেত্রে পারিবারিক পেনশনের প্রমানক দাখিল করতে হয়। নিজ বা পারিবারিক যে কোন পেনশন বা আনুতোষিক হতে পারিবারিক সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা হোক না কেন দুটি ক্ষেত্রেই প্রমাণক দাখি করতে হয়। পেনশনার সঞ্চয়পত্রটি প্রবর্তন করা হয়েছে ২০০৪ সালে।

কত টাকা মূল্যের পেনশনার সঞ্চয়পত্র পাওয়া যায়?

  • ৫০,০০০ টাকা;
  • ১,০০,০০০ টাকা;
  • ২,০০,০০০ টাকা;
  • ৫,০০,০০০ টাকা এবং
  • ১০,০০,০০০ টাকা

৫ লাখের নিচের সঞ্চয়পত্রে কোন ৫% বা ১০% কোন আয়কর কর্তন করা হয় না।

কোথায় পাওয়া যায় এ সঞ্চয়পত্র?

  • জাতীয় সঞ্চয় ব্যুরো,
  • বাংলাদেশ ব্যাংকসহ তফসিলী ব্যাংকসমূহ (যেমন-সোনালি, রুপালি, অগ্রণী ব্যাংক)
  • এবং ডাকঘর থেকে ক্রয় ও নগদায়ন করা যায়।

মেয়াদঃ ৫(পাঁচ) বছর।

যারা ক্রয় করতে পারবে:

অবসরপ্রাপ্ত সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্ত্বশাসিত, আধা- স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা/কর্মচারী, সুপ্রীম কোর্টেরঅবসরপ্রাপ্ত মাননীয় বিচারপতিগণ, সশস্ত্র বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সদস্য এবং মৃত চাকুরীজীবীর পারিবারিক পেনমন সুবিধাভোগী স্বামী/স্ত্রী/সন্তান।

ক্রয়ের ঊর্ধ্বসীমাঃ

  • প্রাপ্ত আনুতোষিক ও ভবিষ্য তহবিলের অর্থ মিলিয়ে একক নামে ৫০ (পঞ্চাশ) লক্ষ টাকা।

মুনাফার হারঃ ১১.৭৬% (মেয়াদান্তে)। 

পেনশনার সঞ্চয়পত্রের বছরভিত্তিক মুনাফার হার নিম্নোক্ত ছক মোতাবেক প্রদেয় হইবেঃ

ছক-১: পেনশনার সঞ্চয়পত্রের বছরভিত্তিক প্রদেয় মুনাফার হার

নগদায়নকাল মুনাফার হার
১ম বছরান্তে ৯.৭০%
২য় বছরান্তে ১০.১৫%
৩য় বছরান্তে ১০.৬৫%
৪র্থ  বছরান্তে ১১.২০%
৫ম বছরান্তে ১১.৭৬%

পূর্ণমেয়াদের জন্য ১ (এক) লক্ষ টাকায় প্রতি ৩ (তিন) মাস অন্তর মুনাফার কিস্তি সর্বোচ্চ ১১.৭৬% হারে টাকা ২,৯৪০.০০ (দুই হাজার নয়শত চল্লিশ) মাত্র প্রদেয় হইবে। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে উৎসে আয়কর কর্তন/লেভী কর্তন হইবে। কিন্তু যেক্ষেত্রে মেয়াদ উত্তীর্ণ হইবার পূর্বে বিনিয়োগকৃত টাকা উত্তোলন করা হইবে, সেক্ষেত্রে উপরের ছক-১ (পেনশনার সঞ্চয়পত্রে বছরভিত্তিক প্রদেয় মুনাফার হার)-এ প্রদর্শিত বছরভিত্তিক হারে মুনাফা প্রদেয় হইবে এবং অতিরিক্ত অর্থ পরিশোধিত হইয়া থাকিলে উহা মূল টাকা হইতে কর্তন করিয়া সমন্বয়পূর্বক অবশিষ্ট মূল টাকা পরিশোধ করিতে হইবে।

অন্যান্য উল্লেখ্যযোগ্য বিষয়াবলীঃ

  • ত্রৈমাসিকভিত্তিতে মুনাফা প্রদেয়;
  • নমিনী নিয়োগ করা যায়;
  • হারিয়ে গেলে, পুড়ে গেলে বা নষ্ট হলে ডুপ্লিকেটসঞ্চয়পত্র ইস্যু করা যায়;
  • সঞ্চয়পত্র এক স্থান হতে অন্য স্থানে স্থানান্তর করা যায়;
  • ক্রয়ের সময় ক্রেতার ২ (দুই) কপি ছবি, জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদ অথবা পাসপোর্টের ফটোকপি, নমিনী থাকলে প্রত্যেকের ২ (দুই) কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি প্রদান করতে হবে;
  • ভবিষ্য তহবিলের মঞ্জুরীপত্র এবং প্রাপ্ত আনুতোষিকের মঞ্জুরীপত্র অথবা নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক পি.এস.সি ফরম-২ পুরণ করে ইস্যু অফিসে দাখিল করতে হবে।
  • এ সঞ্চয়পত্র শুধুমাত্র ১ (এক)টি অফিস হতে ক্রয় করা যায়। একাধিক অফিস হতে এ সঞ্চয়পত্র ক্রয় করলে অথবা ক্রয়সীমা অতিরিক্ত সঞ্চয়পত্র ক্রয় করলে কোন মুনাফা প্রাপ্য হবেন না।
  • পেনশনার সঞ্চয়পত্র ব্যাংক ঋণের জন্য জামানত/আমানত হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না;
  • ব্যবসা-বানিজ্যে পেনশনার সঞ্চয়পত্র জামানত হিসাবে ব্যবহার করা যাবে না

বিদ্র: বর্তমানে স্ল্যাবভিত্তিক মুনাফা চলমান রয়েছে। সঞ্চয়পত্র স্ল্যাব ভিত্তিক মুনাফা নির্ধারণ করার নিয়ম ২০২২

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 2981 posts and counting. See all posts by admin

One thought on “পেনশনার সঞ্চয়পত্র যারা ক্রয় করতে পারবেন এবং ১১.৭৬% মুনাফা!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *