অনলাইন সিস্টেম চালু হওয়ার পরে এখন সব রকম মিলিয়ে একক নামে সর্বোচ্চ ৫০ লক্ষ এবং যুগ্ম নামে ১ কোটি টাকার কেনা যায়। এই ৫০ লক্ষের ক্ষেত্রে আবার উপরে প্রতি ধরনের সঞ্চয়পত্রের ক্ষেত্রে যে লিমিট আছে সেটার বাইরে ঐ এক রকম সঞ্চয়পত্র কেনা যাবে না।

সঞ্চয়পত্র
  • সঞ্চয়পত্র হচ্ছে জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের বিদ্যমান জাতীয় সঞ্চয় স্কিম যা এক ধরনের ফিক্সড ডিপোজিট।
  • এই মুহূর্তে ৪ ধরনের সঞ্চয়পত্র চালু আছে।
(ক) ৫-বছর মেয়াদী বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রঃ
সকল শ্রেণী ও পেশার বাংলাদেশী নাগরিক কিনতে পারবেন। একক নামে ৩০ লক্ষ অথবা যুগ্ম-নামে ৬০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত কেনা যায়। ৫ বছর মেয়াদ এবং মেয়াদান্তে মুনাফা ১১.২৮%। তবে মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করলে ১ম বছরান্তে ৯.৩৫%, ২য় বছরান্তে ৯.৮০%, ৩য় বছরান্তে ১০.২৫% এবং ৪র্থ বছরান্তে ১০.৭৫% হারে মুনাফা প্রাপ্য হবে। মুনাফা পাওয়া যায় মেয়াদ শেষে। মোট ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্র থাকলে ৫ বছর পরে মেয়াদপূর্তিতে প্রতি ১ লক্ষ টাকায় ৫৩৫৮০ টাকা আর ৫ লক্ষের উপরে থাকলে ৫০৭৬০ টাকা পাওয়া যায়, ট্যাক্স কাটার পরে। বর্তমানে এটি কোন ব্যাংকে পাওয়া যাবে না। শুধুমাত্র জেলা সঞ্চয় ব্যুরোতে পাওয়া যাবে।
(খ) ৩-মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্রঃ
সকল শ্রেণী ও পেশার বাংলাদেশী নাগরিক কিনতে পারবেন। একক নামে ৩০ লক্ষ অথবা যুগ্ম-নামে ৬০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত কেনা যায়। ৩ বছর মেয়াদ এবং মেয়াদান্তে মুনাফা ১১.০৪%। তবে মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করলে ১ম বছরান্তে ১০.০০% এবং ২য় বছরান্তে ১০.৫০% হারে মুনাফা প্রাপ্য হবে। ৩ মাস পরপর মুনাফা পাওয়া যায়। মোট ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্র থাকলে প্রতি ৩ মাসে ১ লক্ষ টাকায় ২৬২২ টাকা আর ৫ লক্ষের উপরে থাকলে ২৪৮৪ টাকা পাওয়া যায়, ট্যাক্স কাটার পরে। বর্তমানে এটি শুধুমাত্র জেলা সঞ্চয় ব্যুরো অফিস গুলোতে বিক্রয় হয়। কোন ব্যাংকে এটি পাওয়া যাবে না।
(গ) পরিবার সঞ্চয়পত্রঃ
১৮ ও তদুর্ধ্ব বয়সের যে কোন বাংলাদেশী মহিলা, যে কোন বাংলাদেশী শারীরিক প্রতিবন্ধী (পুরুষ ও মহিলা) এবং ৬৫ ও তদুর্ধ্ব বয়সের বাংলাদেশী (পুরুষ ও মহিলা) নাগরিক কিনতে পারবেন। একক নামে সর্বোচ্চ ৪৫ লক্ষ টাকা।৫ বছর মেয়াদ এবং মেয়াদান্তে মুনাফা ১১.৫২%। তবে মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করলে ১ম বছরান্তে ৯.৫০%, ২য় বছরান্তে ১০.০০%, ৩য় বছরান্তে ১০.৫০% এবং ৪র্থ বছরান্তে ১১.০০% হারে মুনাফা প্রাপ্য হবে। প্রতি মাসে মুনাফা পাওয়া যায়। মোট ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্র থাকলে প্রতি মাসে ১ লক্ষ টাকায় ৯১২ টাকা আর ৫ লক্ষের উপরে থাকলে ৮৬৪ টাকা পাওয়া যায়, ট্যাক্স কাটার পরে।
(ঘ) পেনশনার সঞ্চয়পত্রঃ
অবসরপ্রাপ্ত ব্যাক্তি এবং মৃত চাকুরীজিবীর পারিবারিক পেনশন সুবিধাভোগী স্বামী/স্ত্রী/সন্তান। একক নামে সর্বোচ্চ ৫০ লক্ষ টাকা। ৫ বছর মেয়াদ এবং মেয়াদান্তে মুনাফা ১১.৭৬%। তবে মেয়াদপূর্তির পূর্বে নগদায়ন করলে ১ম বছরান্তে ৯.৭০%, ২য় বছরান্তে ১০.১৫%, ৩য় বছরান্তে ১০.৬৫% এবং ৪র্থ বছরান্তে ১১.২০% হারে মুনাফা প্রাপ্য হবে। ৩ মাস পরপর মুনাফা পাওয়া যায়। মোট ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্র থাকলে প্রতি ৩ মাসে ১ লক্ষ টাকায় ২৭৯৩ টাকা আর ৫ লক্ষের উপরে থাকলে ২৬৪৬ টাকা পাওয়া যায়, ট্যাক্স কাটার পরে।
  • অনলাইন সিস্টেম চালু হওয়ার পরে এখন সব রকম মিলিয়ে একক নামে সর্বোচ্চ ৫০ লক্ষ এবং যুগ্ম নামে ১ কোটি টাকার কেনা যায়। এই ৫০ লক্ষের ক্ষেত্রে আবার উপরে প্রতি ধরনের সঞ্চয়পত্রের ক্ষেত্রে যে লিমিট আছে সেটার বাইরে ঐ এক রকম সঞ্চয়পত্র কেনা যাবে না।
  • কারো যদি কিছু একক নামে কেনা থাকে তাহলে ৫০ লক্ষ হতে যে পরিমান লিমিট বাকি আছে ঐ পরিমানের দ্বিগুন আরেকজনের সাথে যুগ্ম নামে কেনা যাবে যদি অন্যজনের সেই লিমিট থাকে।
  • এখন সঞ্চয় অফিস, পোস্ট অফিস এবং বেশীরভাগ সরকারি এবং বেসরকারি ব্যাংক থেকে সঞ্চয়পত্র কেনা যায়। নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থাকতেই হবে।
  • কেনার জন্য সঞ্চয়পত্র ফর্ম, নিজের এবং নমিনির ছবি এবং NID এবং TIN Certificate লাগেে, তবে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত TIN লাগে না। নতুন ফর্ম ডাউনলোড করতে পারবেন এই লিংক থেকে – https://www.bb.org.bd/…/sanchayapatra/purchase_form.docx
  • এছাড়া নিজ ব্যাংক থেকে না কিনলে MICR চেক লাগে। এ ধরনের চেকের পাতার নিচে এক সারিতে চেক নম্বরসহ অনেকগুলি ইংরেজী সংখ্যা প্রিন্ট করা থাকে। নগদ টাকায় কেনা যায় না।
  • সব মিলিয়ে ৫ লক্ষ টাকার নিচে সঞ্চয়পত্র থাকলে যা মুনাফা পাবেন তার উপরে ট্যাক্স কেটে রাখবে ৫% আর তার বেশি থাকলে ১০%।
  • এখন অনলাইন সিস্টেম হওয়ার কারনে সঞ্চয়পত্র হিসাবে এক পৃষ্ঠার একটি প্রিন্ট পাবেন এবং মুনাফা EFT হয়ে সময়মতো আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে চলে যাবে। মুনাফা আসতে কখনো কখনো একটু দেরী হয়, সেটা স্বাভাবিক।
  • সঞ্চয়পত্র কেনা হলে এবং প্রতিবার মুনাফা ব্যাংকে আসার সময় মোবাইলে মেসেজ আসে।
  • আয়কর রিটার্নের সাথে জমা দেয়ার জন্য প্রতি বছর কত টাকা মুনাফা পেয়েছেন এবং কত টাকা ট্যাক্স কেটে রাখা হয়েছে তার জন্য যেখান থেকে সঞ্চয়পত্র কিনেছেন সেখান থেকে একটি প্রত্যায়নপত্র সংগ্রহ করতে হবে।
  • আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে http://www.nationalsavings.gov.bd/ ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

সঞ্চয়পত্র সম্পর্কে আরও কোন প্রশ্ন থাকলে আপনি সঞ্চয়পত্র নিয়ে ৪১টি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর লিংকটি দেখে নিতে পারেন।

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 3024 posts and counting. See all posts by admin

5 thoughts on “সঞ্চয়পত্র কেনার আগে অবশ্যই ভাল করে পড়ে নিন।

  • Pingback:

  • যিনি লিখেছেন তাকে অনুরোধ করছি যেনে বুঝে লিখবেন এবং ভূল তথ্য দিবেন না। ৫ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র ব্যাংকে পাওয়া যাবে না। তবে তিন মাস অন্তুর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র ব্যাংকে পাওয়া যায়।

  • ধন্যবাদ। অবশ্যই পাওয়া যাবে না। এ সংক্রান্ত আদেশ যুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। ধন্যবাদ।

  • পোষ্ট অফিস এ সঞ্চয় পএ কিনতে ব্যাংক এশিয়ার এক্যাইন্ট চাচ্ছে কেন। তা হল আসল টাকা কোথায় থাকবে??

  • পোস্ট অফিস মাধ্যম মাত্র। জাতীয় সঞ্চয় ব্যুরোতে টাকা জমা থাকবে। যে কোন ব্যাংক হিসাব যুক্ত করা হলে মুনাফা প্রতিমাসে সেই ব্যাংক হিসাবে যুক্ত হবে। ব্যাংক এশিয়ার হিসাব দিলে সেখানে শুধুমাত্র মুনাফা জমা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *