সঞ্চয়পত্র নিয়ে আদি-অন্ত ২০২২

সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা বা সঞ্চয়পত্র ভাঙ্গানো এবং কি পরিমাণ মুনাফা বর্তমান কার্যকর রয়েছে সে বিষয়ে আজ আলোচনা করবো। সঞ্চয়পত্র হচ্ছে জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের মাধ্যমে জনগণকে সঞ্চয়ে উদ্ভুদ্ধ করার জন্য এটি একটি জাতীয় সঞ্চয় স্কীম। সঞ্চয়পত্রের মাধ্যমে সরকার তার নিজের অর্থায়ন ও জনগণকে স্বাবলম্ভী করে তোলে। ব্যাংক সঞ্চয়পত্র কেনার সুবিধা হলো মুনাফা তুলতে লাইনে দাড়াতে হয় না। প্রতিমাসে বা মেয়াদান্তে মুনাফা ব্যাংক একাউন্টে এসে জমা হয়ে থাকে।

প্রথমেই জেনে নেয়া যাক সঞ্চয়পত্র মূলত কত রকমের হয়?

বাংলাদেশে বসবাসকারী বাংলাদেশী নাগরিক বিদেশে বসবাসকারী বাংলাদেশী নাগরিক
বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী ওয়েজ আর্নার ডেভেলপমেন্ট বন্ড
৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র-৩ বছর মেয়াদী ইউএস ডলার ইনভেস্টমেন্ট বন্ড
পরিবার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী ইউএস ডলার প্রিমিয়াম বন্ড
পেনশনার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী  

নোট: বিদেশী নাগরিক এটি ক্রয় করতে পারবেন না। পরিবার সঞ্চয়পত্র সাধারণত মহিলাদের জন্য। ৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র পুরুষদের জন্য এবং পেনশনার সঞ্চয়পত্র সরকারী চাকরিজীবীদের জন্য।

কোন সঞ্চয়পত্র কারা কিনতে পারবেন?

সঞ্চয়পত্র কারা ক্রয় করতে পারবেন?
বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী যে কোন বাংলাদেশী নাগরিক একক ও যৌথ নামে (১৮ বছর+  হতে হবে)
৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র-৩ বছর মেয়াদী যে কোন বাংলাদেশী নাগরিক একক ও যৌথ নামে (১৮ বছর+  হতে হবে)
পরিবার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী যে কোন বাংলাদেশী নাগরিক ১৮ বছর বয়সী নারী। (পুরুষ হলে ৬৫ বছরের বেশী হতে হবে)
পেনশনার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী সরকারি বা স্বশাসিত যে কোন প্রতিষ্ঠান হতে পেনশন প্রাপ্য বা গ্রাচুইটি প্রাপ্য অর্থের মাধ্যমে। সেটি নিজে বা তার পরিবার

নোট: বাংলাদেশ নাগরিক হতে হবে।

সর্বোচ্চ কত টাকা সঞ্চয়পত্র কেনা যাবে?

বিবরণ বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র পরিবার সঞ্চয়পত্র ৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র পেনশনার সঞ্চয়পত্র
ক্রয় সীমা ৩০ লক্ষ টাকা (একক নামে)

যৌথ নামে ৬০ লক্ষ

৪৫ লক্ষ ৩০ লক্ষ টাকা (একক নামে)

যৌথ নামে ৬০ লক্ষ

৫০ লক্ষ
ন্যূনতম যে টাকার ০১ হাজার ১০ হাজার ১ লক্ষ ৫০ হাজার
মেয়াদ ৫ বছর ৫ বছর ৩ বছর ৫ বছর

নোট: সবগুলো সঞ্চয়পত্র মিলিয়ে একক নামে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকার আর যৌথ নামে ১ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা যাবে।

শুনলাম মুনাফার হার নাকি কমিয়েছে? কত টাকায় কত মুনাফা?

সঞ্চয়পত্র ধরণ ১৫ লক্ষ পর্যন্ত ১৫ লক্ষ ১ টাকা হতে ৩০ লক্ষ পর্যন্ত ৩০ লক্ষ ১ টাকা হতে তদুর্ধ্ব পর্যন্ত
বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী ১১.২৮% ১১.৩০% ৯.৩০%
৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র-৩ বছর মেয়াদী ১১.৫২% ১১.৫০% ৯.৫০%
পরিবার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী ১১.০৪% ১০.০০% ৯.০০%
পেনশনার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী ১১.৭৬% ১০.৭৫% ৯.৭৫%

নোট: বিস্তারিত জানতে প্রজ্ঞাপন দেখুন: ডাউনলোড

৫ লাখ বা ৫ লাখ টাকার কম সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে ১ লাখে মুনাফা কত পাওয়া যাবে?

সঞ্চয়পত্র সময়/মেয়াদ মুনাফা ট্যাক্স ৫ লাখ পর্যন্ত ৫% এবং ৫ লাখের বেশি হলে ১০% ট্যাক্স কর্তনের পর একাউন্টে যা ঢুকবে
বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ৫৬৪০০/- ৫% ৫৩৫৬০/-
৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র-৩ বছর মেয়াদী তিন মাস অন্তর ২৭৬০/- ৫% ২৬২২/-
পরিবার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী প্রতি মাস বা মাসিক ৯৬০/- ৫% ৯১২/-

 

পেনশনার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী তিন মাস অন্তর ২৯৪০/- ৫% ২৭৯৩/-

১৫ লাখ  টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে ১ লাখে মুনাফা কত পাওয়া যাবে?

সঞ্চয়পত্র সময়/মেয়াদ মুনাফা ট্যাক্স ৫ লাখ পর্যন্ত ৫% এবং ৫ লাখের বেশি হলে ১০% ট্যাক্স কর্তনের পর একাউন্টে যা ঢুকবে
বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ৫১৫০০/- ১০% ৪৬৩৫০/-
৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র-৩ বছর মেয়াদী তিন মাস অন্তর ২৫০০/- ১০% ২২৫০/-
পরিবার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী প্রতি মাস বা মাসিক ৮৭৫/- ১০% ৭৮৮/-

 

পেনশনার সঞ্চয়পত্র-৫ বছর মেয়াদী তিন মাস অন্তর ২৬৮৭.৫০ ১০% ২৪১৯/-

কোথায় থেকে সঞ্চয়পত্র ক্রয় বা কেনা যাবে?

দেশের প্রতিটি জেলার জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর, জেলা সঞ্চয় অফিস/ব্যুরো হতে সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা যাবে। তাছাড়া দেশের বিভাগীয় শহরের বাংলাদেশ ব্যাংক হতে এবং যে কোন তফসীলি ব্যাংক হতে সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা যাবে। তবে সকল বাঞ্চে এ ব্যবস্থা নাও থাকতে পারে। আপনাকে নিকটস্থ ব্রাঞ্চে খোজ নিয়ে যেতে হবে।

সঞ্চয়পত্রের বিপরীতে কি লোন বা জামানত ঋণ নেয়া যাবে?

না। সঞ্চয়পত্র কোন ব্যাংকে জামানত রেখে ঋণ গ্রহণ করা যায় না। আপনি যদি এফডিআর করে থাকেন তবে তা জামানত রেখে ঋণ নিতে পারবেন।

সঞ্চয়পত্র কেনার জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস কি কি?

১। সঞ্চয়পত্র কেনা ফরম।

২। সঞ্চয়পত্র হোল্ডারের দুই কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি এবং নমিনির এক কপি ছবি।

৩। ক্রেতা ও নমিনির এনআইডি কপি।

৪। ২ লক্ষ টাকার উপরে সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে টিআইএন সার্টিফিকেট।

নোট: একজন ব্যক্তি নিজের নামে সর্বোচ্চ ৫০ লক্ষ টাকার এবং যৌথ নামে ১ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র ক্রয় করতে পারবেন। সঞ্চয়পত্র ক্রয়ে কোন প্রসেসিং ফি দিতে হয় না। ১৮ বছরের নীচের বয়সী কেউ এটি ক্রয় করতে পারবে না। তবে নমিনি দেয়া যায় (অভিভাবকের তথ্য প্রদান করত)। সঞ্চয়পত্রে সর্বোচ্চ ৩ জনের নমিনি ব্যবহার করা যাবে। সঞ্চয়পত্র ইস্যু ক্রয়ের ক্ষেত্রে অনলাইন হতে ডাউনলোডকৃত ফরম ব্যবহার করা যাবে।

প্রশ্নোত্তর পর্ব

  • টিআইএন বা ব্যাংক হিসাব অন্যের নামে হলে সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা যাবে কি?
  • অবশ্যই না। ক্রেতার নামে ব্যাংক হিসাব থাকতে হবে এবং টিন সার্টিফিকেটও তার নামেই থাকতে হবে।
  • যে কোন সময় ভাঙ্গা যাবে কি?
  • অবশ্যই যাবে। কিন্তু উক্ত বছরের মুনাফা পাওয়া যাবে না। উত্তোলনের ক্ষেত্রে সমস্ত মুনাফা কেটে রাখা হবে। তবে অতিক্রান্ত বছরের মুনাফা ভোগ করা যাবে এবং তা কেটে রাখা হবে না। সঞ্চয়পত্র করার সময় ব্যাংক যে অনলাইন স্লিপ দিয়েছিল সেটি নিয়ে যেতে হবে। সঞ্চয়পত্র কপি তো নিবেনই।
  • মেয়াদ শেষে মূল টাকা পেতে কি আবেদন করতে হবে?
  • না। মেয়াদ শেষে ৭২ ঘন্টার মধ্যে আপনার সঞ্চয়কৃত মুল টাকা আপনার ব্যাংক হিসাবে চলে আসবে।

সোনালী ব্যাংক সঞ্চয়পত্রের নতুন নিয়ম ২০২১

Leave a Reply

Your email address will not be published.