কমন পদের বিধিমালায় ক্ষতিগ্রস্থ হলো নিম্নপদধারীরা।

গত ২৪/০৯/২০ খ্রি: তারিখে এমণ একটি গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে যেখানে সরকারি নিম্নপদধারীদের পদোন্নতি আরও দীর্ঘায়িত করা হয়েছে এতে টাইপিষ্ট নিয়োগ বিধিমালা ১৯৭৮, স্টেনো গ্রাফার স্টেনো টাইপিস্ট নিয়োগ বিধিমালা ১৯৭৮ এবং নিম্নমান সহকারী তথা মুদ্রাক্ষরিক, প্লেইন পেপার কপিয়ার, ডুপ্লিকেটিং মেশিন অপারেটর, ডেসপাস রাইডার, দপ্তরী এম,এল, এস,এস বিধিমালা, ১৯৯৩ রহিত করা হয়েছে

মূলত The Ministries and Divisions (Upper Division Assistant and Section Assistant) Recruitment Rules, 1984 সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগ কর্তৃক বাতিল হওয়ায় সংযোজনী ও সংশোধনীর মাধ্যমে নতুন এই বিধিমালা জারি করা হয়েছে-“মন্ত্রণালয় বা বিভাগের সংযুক্ত অধিদপ্তর, পরিদপ্তর এবং দপ্তরের কমন পদ নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৯”।

কি আছে এই বিধিমালায়? একনজড়ে-

১। উক্ত বিধিমালাটি সকল দপ্তরের জন্য প্রযোজ্য। ফলে ২৪/০৯/২০১৯ খ্রি: তারিখ হতে কার্যকরী এ বিধিটি চলমান পদোন্নতি ও নিয়োগ প্রক্রিয়ার অনুসরণের কথা উল্লেখ রয়েছে।

২। প্রধান সহকারী পদে পদোন্নতির জন্য উচ্চমান সহকারী ফিডার পদে দুই বছর হলে যোগ্য বলে বিধান রাখা হয়েছে। যা পূর্বে ফিডার পদে তিন বছর ছিল।

৩। উচ্চমান সহকারী পদে পদোন্নতি ও নিয়োগ ৫০% রাখা হয়েছে। উক্ত পদে পদোন্নতির জন্য ৬ বছর ফিডার পদে অভিজ্ঞতার কথা বলা হয়েছে। যা পূর্বে অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদে ৫ বছর ছিল এবং পরীক্ষা পদ্ধতির মাধ্যমে যোগ্য বিবেচনার কথা বলা হয়েছে।

৪। সাঁটলিপিকার কাম কম্পিউটার অপারেটর পদ এখন আর ব্লক পোস্ট নেই। যদি বিভিন্ন দপ্তরে গ্রেড ১৩ বিদ্যামান। যদিও কিছু পদে সাঁটলিপিকার হতে প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে পদোন্নতির বিধান ছিল।

৫। অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিকগণ পূর্বে ৫ বছর ফিডার পদে অভিজ্ঞতা থাকলেই অফিস সহায়ক পদ হতে উক্ত পদে পদোন্নতি পেত। যা বর্তমানে ৭ বছর করা হয়েছে। আবার আরেকটি শর্তযুক্ত করা হয়েছে যোগ্যপ্রার্থী পাওয়া না গেলে ১০০% সরাসরি নিয়োগ। এদিকে যোগ্য প্রার্থী নির্ধারণে টাইপিং গতি ৯৫% নির্ভূল থাকলে ৫% ভুল থাকলেও গতি নেই বলে ধরা হবে।

৬। এভাবে বিভিন্ন পদে পদোন্নতি ও নিয়োগের ক্ষেত্রে পূর্বের বিধিমালা থেকে কঠিনতর করা হয়েছে।

৭। এ বিধিমালা অন্যান্য শর্তগুলোও শিথিল না করে অধিকতর কঠিন করা হয়েছে।

“উচ্চমান সহকারী” র পদটি আর নন-টেকনিক্যাল পদ নেই। এখন থেকে ” উচ্চমান সহকারী” পদেও টাইপ পরীক্ষা দিয়ে পাস করতে হবে যার গতি হতে হবে ইংরেজিতে ৩০ ও বাংলাতে ২৫। সুতরাং যারা টাইপ শিখেন নাই তারা শিখুন অথবা টাইপ শিখার জন্য টাইপ শিখার কোচিংয়ে ভর্তি হয়ে যান। আর যারা শিখতেছেন বা টাইপ কোচিংয়ের সাথে যারা জড়িত আছেন তারা ভালো করে মনোযোগ দিন।

বিস্তারিত জানতে মন্ত্রণালয় বা বিভাগের সংযুক্ত অধিদপ্তর, পরিদপ্তর এবং দপ্তরের কমন পদ নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৯ দেখে নিতে পারেন: ডাউনলোড

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।