কল্যাণ তহবিল ও যৌথ বীমার মাসিক চাঁদার হার বেড়ে ৩ গুন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ০৫/০৯/২০১৯ খ্রি: তারিখের ০৫.০০.০০০০.১২২.০০.০১৪.১৯.১৯১ নম্বর প্রজ্ঞাপন মোতাবেক গত ০১ লা জুলাই ২০১৯ খ্রি: তারিখ থেকে বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের চাঁদার হার পুন:নির্ধারণ করা হয়েছে।

০১। কল্যাণ তহবিলের মাসিক সর্বোচ্চ চাঁদা-মূল বেতনের সর্বোচ্চ ১%, কিন্তু সর্বোচ্চ ১৫০ (একশত পঞ্চাশ) টাকা।

০২। যৌথ বীমার মাসিক সর্বোচ্চ চাঁদা-মূল বেতনের সর্বোচ্চ ০.৭০%, কিন্তু সর্বোচ্চ ১০০ (একশত) টাকা।

০৩। মাসিক কল্যাণ ভাতা-২০০০/-

০৪। সাধারণ চিকিৎসা অনুদান সর্বোচ্চ-৪০,০০০/-

০৫। দাফন/অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া বাবদ সহায়তা-১০,০০০/-

০৬। যৌথ বীমার এক কালীন অনুদান-২,০০,০০০/-

০৭। জটিল ও দূরারোগ্য ব্যাধির চিকিৎসা অনুদান-২,০০,০০০/-

প্রজ্ঞাপনটিতে স্বাক্ষর করেছেন সচিব ফয়েজ আহম্মদ।

বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের কল্যাণ তহবিলে প্রদেয় “চাঁদা”, কল্যাণ তহবিল হতে প্রদেয় “অনুদান” ও কর্মচারীদের যৌথবীমা তহবিলে কর্মচারীদের প্রদেয় “প্রিমিয়াম” এর হার ও অন্যান্য অনুদানের পরিমাণ পুন:নির্ধারণ: ডাউনলোড

প্রশ্নোত্তর পর্ব:

  • প্রশ্ন: প্রতিমাসে ১৫০ টাকা কল্যাণ ভাতা সমস্ত চাকরি জীবনে প্রদানকৃত অর্থ কি অবসরে গেলে ফেরত পাওয়া যাবে?
  • উত্তর: না, এ অর্থ ফেরত যোগ্য নয়, এটি বীমা কোম্পানির মত বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা প্রদান করে থাকে।

  • প্রশ্ন: মাসিক কল্যাণ ভাতা সুবিধাটি কখন নেয়া যাবে?
  • উত্তর: আপনি বেচে থাকতে নিতে পারবেন না। আপনার পরিবার প্রতিমাসে ২০০০ টাকা করে ১৫ বছর পর্যন্ত পাবেন।

  • প্রশ্ন: ২ লক্ষ টাকার সুবিধাটা কখন পাবো?
  • উত্তর: আপনি বেচে থাকতে নিতে পারবেন না। আপনার পরিবার মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ হিসাবে এই টাকা এককালিন পাবেন।
  • প্রশ্ন: সাধারণ চিকিৎসা অনুদান ৪০ হাজার টাকা কখন পাবো?
  • উত্তর: আপনার চাকরি জীবনে আপনি এবং আপনার পরিবার চিকিৎসা জণিত ব্যয়ের অর্থ বাংলাদেশ কল্যাণ বোর্ডে দাবি করলে কিছু অংশ পাবেন। বছরে সর্বোচ্চ ৪০০০০ টাকার বেশি পাওয়া যাবে না।

  • প্রশ্ন: জটিল রোগের ২ লক্ষ টাকা কখন পাবো?
  • উত্তর: আপনি অথবা আপনার পরিবার জটিল দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হলে সর্বোচ্চ ২ লক্ষ টাকা অনুদান পাওয়া যাবে।

এছাড়া বাস সুবিধা, বিভিন্ন ট্রেডে ট্রেনিং সুবিধা সহ আরও অনেক সুযোগ সুবিধা রয়েছে। বিস্তারিত জানতে এই লিংক দেখুন: কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড হতে যে সকল সুবিধাসমূহ পাওয়া যায় ।

উল্লেখ্য যে, ১৩-২০ তম গ্রেডের কর্মচারীদের শুধু কল্যাণ তহবিলে চাঁদা দিতে হয় এবং ১-১২ তম গ্রেডের কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিলের চাঁদা ও বীমা তহবিলের চাঁদা দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।