পরবর্তী শ্রান্তি ও বিনোদন ছুটির তারিখ নির্ধারণে যে ভূলটি অনেকেই করে।

বাংলাদেশ সরকারের গণকর্মচারী ০৩ বছর অন্তর অন্তর ১৫ দিন শ্রান্তি ও বিনোদন ছুটি ভোগ করে থাকেন। সাথে পেয়ে থাকেন বিদ্যামন মাসের মূল বেতনের সমপরিমান ভাতা।

সারসংক্ষেপ:

  • জনস্বার্থে সময় মতো শ্রান্তি ও বিনোদন ছুটি ভোগ করতে না পারায় পরবর্তীতে ছুটি মঞ্জুরী পেয়ে থাকেন। এক্ষেত্রে তার যোগদান কাল হতে ০৩ বছর অতিক্রান্ত তারিখ শ্রান্তি বিনোদন তারিখ উল্লেখ্য না করে ভোগ শুরুর তারিখ অনেকের সার্ভিস বুকে এন্ট্রি দেওয়া হয় যা মারাত্মক ভুল।
  • প্রাপ্যতার তারিখে ছুটি ভোগ করতে না পারলে দু/তিন মাস পরে ভোগ করে থাকলেও তার পরবর্তী প্রাপ্যতার তারিখ ০৩ বছর পূর্ন হওয়ার পরবর্তী দিন ধার্য করতে হবে।
  • ১লা জুলাইয়ের আগে ছুটি প্রাপ্য হলেও ছুটি ভোগ বা ভাতা প্রাপ্যতার মঞ্জুরী জনস্বার্থে পরবর্তীতে ১লা জুলাইয়ের পরে মঞ্জুরী হলে ঐ তারিখের মুল বেতনের সমপরিমান ভাতা পাবেন।

প্রশ্নোত্তর পর্ব:

  • প্রশ্ন: অর্জিত ছুটি জমা না থাকলে কি শ্রান্তি-বিনোদন ছুটিতে যাওয়া যাবে না?
  • উত্তর: না, যাওয়া যাবে না। অর্জিত ছুটি জমা সাপেক্ষে এ ছুটি নেয়া যায়।

  • প্রশ্ন: যদি জনস্বার্থে নির্দিষ্ট তারিখের পরে মঞ্জুর ও ভাতা প্রদান করা হয় তবেও কি তার প্রকৃত প্রাপ্যতার তারিখ হতে পরবর্তী প্রাপ্যতার তারিখ উল্লেখ হবে?
  • উত্তর: হ্যাঁ। জনস্বার্থে শ্রান্তি ও বিনোদন ছুটি যখনই প্রদান করা হোক না কেন তার পরবর্তী প্রাপ্যতার তারিখ যোগদানের তারিখই ধরা হবে।

  • প্রশ্ন: কর্তৃপক্ষ ইচ্ছা করলে কি এ ছুটি ও ভাতা মঞ্জুর নাও করতে পারে?
  • উত্তর: হ্যাঁ। চাকরি সন্তোষজনক সাপেক্ষে এ ছুটি মঞ্জুর করা হয়। যদি সংশ্লিষ্ট কর্মচারী দন্ডপ্রাপ্ত বা একাধিক মেমো পায় এবং এসি আর সন্তোষজনক না হয় তবে কর্তৃপক্ষ চাইলে তার শ্রান্তি ও বিনোদন ছুটি ও ভাতা মঞ্জুর নাও করতে পারে।
  • প্রশ্ন: ১০/০৭/২০১৯ তারিখে ভাতা প্রাপ্য আমি কি ১/৭/১৯ তারিখে বেতন বৃদ্ধিসহ পাব?
  • উত্তর:হ্যাঁ, অবশ্যই বেতন বৃদ্ধি সহ পাবেন।

এ সংক্রান্ত আদেশে যা বলা হয়েছে:

অর্থ মন্ত্রনালয়ের ০৬-০৩-১৯৮৯ খ্রি: তারিখের অম(অবি)/প্রবি-২/ছুটি-৬/৮৬/২৮ নম্বর স্বারক মোতাবেক অত্র বিভাগের জারিকৃত ১৭-০৩-১৯৭৯ তারিখের এস.আর.ও নং ৬১-এল/৭৯ এম এফ/আর II/এল-১/৭৮-৭১ বিজ্ঞপ্তিতে বর্ণিত শ্রান্তি বিনোদন ভাতা প্রাপ্যতার ভিত্তিতে চার ধরণের তথ্য বিবেচনা করা হয় বলে সরকারের দৃষ্টি গোচর হয়েছে।

১) চাকরিতে নিয়োগের তারিখ;

(২) বিগত শ্রান্তি ও বিনোদন ছুটি শুরুর তারিখ;

(৩) ছুটি শেষ হওয়ার পনের দিনের তারিখ;

(৪) আবেদনপত্রের তারিখি।

এই চার ধরণের গণনার দারুন সম্ভাব্য বিভ্রান্ত দূরীকরণার্থে নিম্নবর্ণিত স্পষ্টীকারণ প্রদান করা হইল:

ক) ছুটি প্রাপ্যতা সাপেক্ষে আবেদনকারীর আবেদনের তারিখ হইতে পরবর্তী তিন বৎসর হিসাব করিতে হইবে।

খ) কোন কর্মচারী যে মাসে ছুটিতে যাইবেন সেই মাসে যে মূল বেতন পাইবেন উহাই তাঁহার চিত্ত-বিনোদন ছুটির বিধিসম্মত এক মাসের বেতন বলিয়া গণ্য হইবে।

মো: সিরাজুল ইসলাম, সি: সহকারী সচিব (প্রবি-২) কর্তৃক স্বাক্ষরিত।

শ্রান্তি ও বিনোদন প্রদান সংক্রান্ত আদেশের JPG কপি সংগ্রহ করতে পারেন: ডাউনলোড

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.