সরকারি কর্মচারি মৃত্যুবরণ করলে পরিবার পাবে ৮ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা।

বাংলাদেশ সরকার সরকারি কর্মচারীদের অক্ষমতা, মৃত্যু বা দাফর কাফনের জন্য অনুদান প্রদান করে থাকে। অক্ষমতার জন্য বর্তমান হার ২ লক্ষ টাকা এবং দাফন কাফনের জন্য ৩০ হাজার টাকা বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যান বোর্ড থেকে সংগ্রহ করতে হয় এবং ৮ লক্ষ টাকার মৃত্যুজনিত অনুদান জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সংগ্রহ করতে হয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২৯ জুলাই ২০১৬ খ্রি: তারিখের ০৫.০০.০০০০.২৩.০৫.০০১.১৬-৭০০ নম্বর গেজেটের মাধ্যমে সরকার বেসামরিক প্রশাসনে চাকরিরত অবস্থায় কোন সরকারি কর্মচারি মৃত্যুবরণ করলে তাঁর পরিবারের সদস্যদেরকে আর্থিক সহায়তার পরিমাণ ৫ লক্ষ টাকা হতে ৮০০০০০ টাকায় ও গুরুতর আগত হয়ে স্থায়ী অক্ষম হলে সরকারি কর্মচারীর আর্থিক সহায়তার পরিমাণ ২ লক্ষ টাকা হতে ৪ লক্ষ টাকায় এবং চাকরিরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলে তাঁর পরিবারের সদস্যদেরকে দাফন-কাফন বাবদ আর্থিক সহায়তার পরিমাণ ২৫ হাজার টাকা থেকে ৩০ হাজার টাকার ব্যয় সরকারি কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের অনুকূলে বরাদ্দকৃত প্রচলিত কোড থেকে নির্বাহ করা হবে।

৩। ১ জুলাই ২০১৬ তারিখ হতে মৃত্যু/স্থায়ী অক্ষম হওয়ার ক্ষেত্রে প্রজ্ঞাপনটি কার্যকর হবে।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে উপসচিব আলেয়া আক্তার প্রজ্ঞাপনটি জারি করেন।

সারসংক্ষেপ:

  • মৃত্যু জনিত কারণে পূর্বে ৫ লক্ষ টাকা দেওয়া হতো এখন মারা গেলে ৮ লক্ষ টাকা সরকারি অনুদান পাওয়া যাবে। 
  • গুরুতর আহত বা ইনজুরি হতে পূর্বে ২ লক্ষ টাকা দেওয়া হতো বর্তমানে ৪ লক্ষ টাকা প্রদান করা হয়। 
  • সরকারি কর্মচারী মৃত্যুবরণ করলে তাঁর দাফন কাফনের জন্য পূর্বে ২০ হাজার টাকা দেওয়া হতো বর্তমানে ৩০ হাজার টাকা দেওয়া হয়। 
  1. আর্থিক সহায়তা সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনটির JPG কপি সংগ্রহে রাখতে পারেন: ডাউনলোড

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২৫ নভেম্বর ২০১৩ সাথে বেসামরিক প্রশাসনে চাকরিরত অবস্থায় কোন সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারী মৃত্যুবরণ এবং গুরুতর আহত হয়ে স্থায়ী অক্ষমজনিত কারণে আর্থিক অনুদান নীতিমালা ২০১৩ জারি করেছে।

  • এ নীতিমালা সরকারি ওো বিধিবদ্ধ সকল প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রযোজ্য হবে।
  • শিক্ষা ছুটি, প্রেষন প্রশিক্ষণ ও সাময়িক বরখাস্তকালীন সময়ে এ ক্ষতিপূরণ পাওয়া যাবে না।
  • মৃত্যু/স্থায়ী অক্ষমতাজনিত কারণে আর্থিক অনুদান প্রদানের নিমিত্ত প্রাপ্ত আবেদনপত্র বাছাইয়ের জন্য এ নীতিমালায় ৫ নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কমিটি গঠন করা হয়।
  • এ নীতিমালা মোতাবেক মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হবে।

কিভাবে বা কোন পদ্ধতি অনুসরণ করে এ অর্থ প্রদান করতে হবে তা নিয়ে সরকার একটি নীতিমালা তৈরি করেছে।

  1. চাকরিরত অবস্থায় মৃত্যুবরন বা স্থায়ী অক্ষমতাজনিত কারনে আর্থিক অনুদান নীতিমালা: ডাউনলোড
  2. আর্থিক সাহায্যের জন্য আবেদন ফরমটি সংগ্রহ করুন: ডাউনলোড

প্রশ্নোত্তর পর্ব:

  • প্রশ্ন: দাফন কাফনের জন্যও সরকার টাকা দিবে?
  • উত্তর: হ্যাঁ, কর্মচারীকে তো দিবেই। পরিবারের কেউ মারা গেলেও সরকার দাফন কাফনের অর্থ অনুদান দেয়।
  • প্রশ্ন: আহত হলে অনুদান পাওয়া যাবে না?
  • উত্তর: যাবে, নীতিমালা অনুযায়ী গঠিত কমিটি যাচাই বাছার ও তদন্ত শেষে অনুদানের পরিমাণ নির্ধারণ করবেন।
  • প্রশ্ন: অস্থায়ী ভাবে অক্ষম হলে কি পেনশন পাওয়া যাবে না?
  • উত্তর: যাবে। পেনশনতো পাবেনই। সাথে অতিরিক্ত অনুদান হিসাবে ৪ লক্ষ টাকা প্রদান করা হবে।

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

40 thoughts on “সরকারি কর্মচারি মৃত্যুবরণ করলে পরিবার পাবে ৮ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা।

  • 07/03/2020 at 1:45 pm
    Permalink

    আমার আব্বা গার্লস স্কুলের নাইড গার্ড থাকা অবস্থায় ২০০৮ সালে মৃত্যু বরণ করেন, আমার পরিবার কি সরকারী কোনো টাকা পাওয়ার আশা করতে পারি???

  • 07/03/2020 at 8:14 pm
    Permalink

    এক্ষেত্রে সে রাজস্বখাতভূক্ত ছিল কিনা দেখতে হবে এবং মৃত্যুর ৬ মাসের মধ্যে আবেদন পেশ করার বিধান রয়েছে। তাছাড়া চাকরি স্থায়ী ছিল কিনা দেখার বিষয় রয়েছে।

  • 30/05/2020 at 1:30 pm
    Permalink

    আত্মহত্তা করলে কি ৮ লাখ টাকাৱ অনুদান পাবে?

  • 30/05/2020 at 7:12 pm
    Permalink

    না। কিন্তু পেনশন পাবেন। আর অনুদানের ব্যাপারটি কর্তৃপক্ষ একটি বোর্ড গঠন করে পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয় যে, কত টাকা দেওয়া যেতে পারে।

  • 21/08/2020 at 5:13 pm
    Permalink

    আমার বাবা সরকারি কর্মকর্তা ২০১৬ সালে অক্টোবর মাসে চাকরী অবস্তায় মারা যায়,,মৃত্যুভাতা পাওয়ার কথা এখন শুনতেছি ২০২০ সালের জুন- জুলাই দিকে এটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।তো অফিসের বড় যিনি উনি এই বিষয় নিয়ে চেয়ারম্যান এর সাথে কথা বলবে বলছেন,,,এখন এডমিন স্যার চেয়ারম্যান কি অনুমতি দিবে

  • 21/08/2020 at 6:14 pm
    Permalink

    মৃত্যু ভাতা মানে দাফন কাফন ভাতার কথা বলছেন? নাকি কল্যাণ ভাতার কথা বলছেন?

  • 01/09/2020 at 9:13 am
    Permalink

    আমার শ্বশুর গত সপ্তাহে মারা গেছেন। তিনি মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীন জাতীয় মহিলা সংস্থার সেনবাগ উপজেলায় কর্মরত ছিলেন। প্রায় সাতাইশ বছর তিনি চাকরি করেছেন। তিনি সরকারি চাকরিতে কর্মরত অবস্থায় মারা গেছেন, তিনি কী সরকারি কল্যাণ তহবিল এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের তহবিল পাবেন।

  • Pingback: সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীর মৃত্যুবরণ এবং গুরুতর আহত হওয়ার কারণে আর্থিক অনুদান প্রদান নীতিমালা

  • 01/02/2021 at 3:31 pm
    Permalink

    সরকারী রাজস্ব খাতে ২০১৮ সালের অক্টোবরে নিয়োগ পেয়ে ২০২১ সালের জানুয়ারী মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে কি পরিমান আর্থিক অনুদান পেতে পারে?

  • 01/02/2021 at 5:52 pm
    Permalink

    দুই বছরে তার চাকুরী স্থায়ী করণের শর্ত প্রযোজ্য হবে। যদি স্থায়ীকরণ হয়ে থাকে তবে অবশ্যই পাবেন।

  • 08/03/2021 at 4:56 pm
    Permalink

    চাকরিরত অবস্থায়, অসুস্থতার কারণে চিকিৎসাকালীন মারা গেলে পরিবার থেকে অনুদান পাবে? না কর্তব্যরত অবস্থায় মারা গেলে আর্থিক অনুদান পাবেন??

  • 08/03/2021 at 6:41 pm
    Permalink

    চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলেও অনুদান পাবেন। একজন কর্মচারী অবসরে যাওয়ার পূর্বে পর্যন্ত কর্তব্যরত ছিলেন বলেই গণ্য হবে।

  • Pingback: মৃত্যু/ অক্ষমতাজণিত কল্যাণ অনুদানের অর্থ ছাড়করণের জন্য তথ্য হার্ডকপি ও সফটকপি প্রেরণের নির্দে

  • 09/03/2021 at 8:35 pm
    Permalink

    আমার বাবা ১১ নভেম্বর ২০১৫ সালে মারা যান।
    সেক্ষেত্রে কল্যাণতহবিল থেকে ৮ লাখ না কি ৫ লাখ পাবো?

  • 10/03/2021 at 7:10 pm
    Permalink

    তিনি কি চাকরিরত অবস্থায় মারা গেছেন?

  • 04/04/2021 at 9:27 pm
    Permalink

    আমার বাবা ৩ বচর চাকরি থাকতে মারা যায় ২০১৬ সালে, আমরা কল্যাণের টাকা পাইনি এখন কি টাকা পাবো আমরা? প্লিজ বলবেন এ ব্যাপারে।

  • 05/04/2021 at 8:58 am
    Permalink

    sure. but you have to show proper reason

  • Pingback: মৃত্যুবরণ এবং গুরুতর আহতে আর্থিক অনুদান নীতিমালা ২০১৩

  • 11/05/2021 at 4:46 pm
    Permalink

    আমার বাবা সিপিএফধারী জনতা ব্যাংকের একজন সিকিউরিটি গারড ছিলে। উনি গত ২৪/০১/২০২০ সালে চাকুরীরত অবস্থায় মারা যান।উনার চাকুরী স্থায়ী হয় ২৪/৫/২০১১ সালে। উনি কি এই ৮ লক্ষ টাকা পাবেন।

  • 12/05/2021 at 5:41 am
    Permalink

    না। এটি শুধুমাত্র সরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের জন্য প্রযোজ্য।

  • 20/05/2021 at 7:28 pm
    Permalink

    আমার মা পি আর এল ব্যতিত মারা জায় অবসরের এক মাসের মাযে আমি কি পাবো

  • 20/05/2021 at 8:57 pm
    Permalink

    অবশ্যই।

  • 29/05/2021 at 11:04 am
    Permalink

    আমার এক আংকেল উনি প্রাইমারীতে চাকরিরত অবস্থায় মারা গেছেন, ওনার কল্যান ভাতা প্রাপ্যের জন্য সর্ব প্রথম কোন অফিসে কাগজপত্রাদি সাবমিট করতে হবে এবং মঞ্জুরকারী কর্তপক্ষ কে হবেন এবং প্রোসেসিংটা যদি একটু বলতেন উপকৃত হতাম।

  • 29/05/2021 at 1:15 pm
    Permalink

    জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর সাবমিট করবেন। নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ মঞ্জুর করবেন।

  • 07/06/2021 at 2:06 pm
    Permalink

    ১ বছর পার হলে কি সমস্যা হবে????

  • 08/06/2021 at 4:56 pm
    Permalink

    না। যথাযথ কারণ উল্লেখ করবেন।

  • 15/06/2021 at 9:04 pm
    Permalink

    আমার মামা সাব-রেজিস্ট্রার রাজশাহী সদর থাকা অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন মামা দুইটি বিয়ে করেন প্রথম স্ত্রীর দুইটি ছেলে দ্বিতীয় স্ত্রীর একটি ছেলে রয়েছে গত 26 শে মার্চ ঢাকা মেট্রোপলিটন হাসপাতালে মারা যান প্রথম স্ত্রী এবং দ্বিতীয় স্ত্রী কারো সাথে কারো মিল নেই ,তাহলেপ্রথম স্ত্রীর করণীয় কি দ্বিতীয় স্ত্রীর করণীয় কি উক্ত টাকা কিভাবে পাবেন এবং পেনশনের টাকা কিভাবে পাবে দ্বিতীয় স্ত্রী চেষ্টা করতেছ যে মামা মৃত্যুকালে অনেক ঋণ রেখে গেছেন উক্ত টাকা পেলে উনি ঋণ পরিশোধ করবেন আমাকে বিস্তারিতভাবে একটু বলুন কিভাবে আবেদন করব কোথায় আবেদন করব কিভাবে যোগাযোগ করবো

  • 24/06/2021 at 10:35 pm
    Permalink

    আমার মা সরকারী স্কুলের শিক্ষক ছিলেন, এক মাস আগে চাকুরীরত অবস্থায় মারা যান। এখন স্ত্রী মারা গেলে সরকারি অনুদান বা কল্যাণ তহবিলের টাকা স্বামী পায় যেহেতু, কিন্তু উনি(বাবা) আমাদের কোন খোঁজ খবর রাখেন না, টাকা পয়সা বা কোনো ভাবেই না, অথবা টাকা পাওয়ার পর ২য় বিয়ে করতে পারেন, যেখানে সন্তানদের ভবিষৎ অনিশ্চিত। এমতাবস্থায় কোন সন্তান ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে হলে তার নামে কি টাকা আসার ব্যাবস্থা আছে কি না? (মৃত চাকরিজীবীর ২ সন্তান নাবালিকা, ১ জন সাবালিকা)

  • 25/06/2021 at 12:31 am
    Permalink

    অফিসে যোগাযোগ করুন। অবশ্যই অংশ পাবেন আপনারা।

  • 25/06/2021 at 11:26 am
    Permalink

    আমার বাবা বাংলাদেশ ডাক বিভাগের একজন সরকারি কর্মচারী ছিলেন। তিনি ২০১৬ সালের ১৩ জুন কর্মতর অবস্থা মৃত্যু বরণ করেন। কোন সরকারি কর্মচারী কর্মরত অবস্থায় অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলে যে ৮ লক্ষ টাকা তার পরিবারকে প্রদান করা হবে তার আওতায় পড়বে কি? যদি জানাতেন উপকৃত হতাম

  • 25/06/2021 at 12:10 pm
    Permalink

    ডাক অধিদপ্তর একটি র্পূনাঙ্গ পিওর সরকারি প্রতিষ্ঠান। অবশ্যই আপনার বাবা এর আওতায় পড়েন। কিন্তু এতোদিন কেন আবেদন করেননি এ প্রশ্নের সম্মুখীন হবেন তবুও দপ্তরে যোগাযোগ করুন।

  • 28/06/2021 at 12:16 pm
    Permalink

    পেনশনারের বাবা মা মারা গেলে স সে কি দাফন কাফনের টাকা পাবে ?

  • 28/06/2021 at 5:53 pm
    Permalink

    অবশ্যই পাবেন। কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড বরাবর যথাযথ অফিসের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

  • 02/07/2021 at 6:55 pm
    Permalink

    আমার বাবা মারা গেছে আজ ৫ বছর হলো।।।তিনি একটি সরকারী হাসপালের চাকুরী করতেন।। কিন্তু আমরা এখনও আট লক্ষ টাকার অনুদান আজও পাইনি।। এ অনুদান পাওয়ার জন্য আমার এখন কি করতে পারি।।।বিষয়টা যদি একটু বুঝিয়ে দিতেন তাহলে খুব উপকৃত হতাম।।।

  • 02/07/2021 at 7:01 pm
    Permalink

    আগে খোজ নিন তিনি রাজস্ব খাতভূক্ত ছিলেন কিনা। যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডে আবেদন করতে হবে।

  • 03/07/2021 at 10:49 pm
    Permalink

    আসসালামুয়ালাইকুম।আট লাখ টাকা পাওয়ার জন্য যে আবেদন ফরম দিয়েছেন তার জন্য ধন্যবাদ।এই আবেদন ফরমের সাথে কি কি সংযুক্ত করতে হবে তা জানালে উপকৃত হতাম।

  • 04/07/2021 at 8:53 am
    Permalink

    অনুদানের ফরমের নিচে দেয়া আছে। তারপরও বলি, কর্মচারী ও তার পরিবারের এনআইডি, মৃত্যু সনদ, ক্ষমতাঅর্পন ফরম, ওয়ারিশ নামা, ছবি ইত্যাদি অফিসে যোগাযোগ করলে এর একটি লিস্ট পাবেন।

  • 16/07/2021 at 12:15 am
    Permalink

    আমার মা একজন সরকারি হাসপাতালের রাজস্ব কর্মচারী ছিলেন। তিনি ০৭ জুলাই ২০২১তাং অবসর গ্রহন করেন এবং মাসিক ফুল এক বছরের বেতন গ্রহন করার পূর্বে অর্থাৎ এগার মাসের বেতন তোলার পর এক মাস হাতে থাকতেই অসুস্থ হয়ে মৃত‍্যু বরন করেন ০৪ জুলাই ২০২১তাং তিনি কি কল‍্যান তহবিলের আট লক্ষ টাকা পাবেন এবং দাফন কাফন এর সুবিধা যদি বলেন উপকৃত হবো।

  • 16/07/2021 at 9:58 am
    Permalink

    পাবেন না। অবসর উত্তর ছুটিতে ছিলেন তাইতো। তবে যদিও কর্মকালীন থাকার কথা বলা হয়েছে। তবুও আপনি আবেদন করুন। আমার জানা মতে একজন এ রকম অবস্থায় পেয়েছেন। পিআরএল মানে অবসর উত্তর ছুটি, অতীতে এলপিআর ছিল এ সব কারণেই পিআরএল করা হয়েছে। আবেদন করে দেখুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.