উৎসে মূল্য সংযোজন কর আদায় বিধিমালা ২০২১

এস.আর.ও নং ২৪০ আইন/২০২১/১৬৩-মূসক।-মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন, ২০১২ (২০১২ সনের ৪৭ নং আইন) এর ধারা ১৩৫, ধারা ৪৯ ও ১২৭ (খ) এর সহিত পঠিতব্য, এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, উৎসে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) আদায় বা কর্তনের লক্ষ্যে নিম্নরূপ বিধিমালা প্রণয়ন করিল, যথ:-

১। সংক্ষিপ্ত শিরোনাম ও প্রবর্তন।-(১) এই বিধিমালা উৎসে মূল্য সংযোজন কর আদায় বিধিমালা, ২০২১ নামে অভিহিত হইবে।

২। সংজ্ঞা।-বিষয় বা প্রসঙ্গের পরিপন্থী কিছু না থাকিলে, এই বিধিমালায়-

(ক) “আইন” অর্থ মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন, ২০১২ (২০১২ সনের ৪৭ নং আইন);

(খ) “উৎসে কর্তনকারী সত্তা” অর্থ কোনো মন্ত্রণালয়,বিভাগ বা দপ্তর, আধা-সরকারি বা স্বায়ত্বশাসিত কোনো সংস্থা রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোনো প্রতিষ্ঠান, স্থানীয় কর্তৃপক্ষ, পরিষদ বা অনুরূপ কোনো সংস্থা, এনজিও বিষয়ক ব্যুরো বা সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদিত কোনো বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, কোনো ব্যাংক, বীমা কোম্পানি বা অনুরূপ আর্থিক প্রতিষ্ঠান, কোনো মাধ্যমিক বা তর্দুধ্ব পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কোনো লিমিটেড কোম্পানিকে বোঝাইবে;

(গ) “পণ” অর্থ আইনের ধারা ২ এর দফা (৫৯) এর সংজ্ঞায়িত পণ;

(ঘ) “ফরম” অর্থ বিধিমালার বিধি ২ এর দফা (জ) এ সজ্ঞায়িত ফরম;

(ঙ) “বিধিমালা” অর্থ মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক বিধিমালা, ২০১৬;

(চ) “বোর্ড” অর্থ আইনের ধারা ২ এর দফা (৭৩) এর সংজ্ঞায়িত বোর্ড।

৩। যে সব ক্ষেত্রে মূসক কর্তন করিতে হইবে।-

১। আইনের তৃতীয় তফসিলে উল্লিখিত ১৫ (পনেরো) শতাংশের নিম্নে হ্রাসকৃত হারের বিপরীতে উল্লিখিত পন্যসমূহ সরবরাহ গ্রহণের ক্ষেত্রে গ্রহণের ক্ষেত্রে সরবরাহ গ্রহণকারী উৎসে কর্তনকারী সত্তা হইলে সমূদয় মূল্য সংযোজন কর উৎসে কর্তন করিতে হইবে।

২। টেন্টার, চুক্তি, কার্যাদেশ বা অন্যবিধভাবে সরবরাহের ক্ষেত্রে নিম্নের ছকে বর্ণিত কলাম (২) এ বর্ণিত সেবার কোডের বিপরীতে কলাম (৩) এ বর্ণিত সেবার বিপরীতে কলাম (৪) এ বর্ণিত হারে আবশ্যিকভাবে উৎসে কর্তনকারী সত্তা কর্তৃক উৎসে কর্তন করিতে হইবে;

৩। অনিবন্ধিত ব্যক্তি কর্তৃক বাংলাদেশের বাহিরে অবস্থিত অনাবাসিক ব্যক্তির নিকট হইলে গৃহীত সেবার সেবামূল্য পরিশোধের সময় সংশ্লিষ্ট ব্যাংক ১৫ (পনেরো) শতাংশ হারে উৎসে মূসক আদায় করিবে এবং আদায়কৃত মূসক আদায়কারী ব্যাংক যে মূসক কমিশনারেট নিবন্ধিত সেই কমিশনারেটের অর্থনৈতিক কোডে জমা প্রদান করিবে।

৪। নিবন্ধিত ব্যক্তির ক্ষেত্রে ১৫ (পনেরো) শতাংশ হারে মূসক জমা প্রদান করিয়া ট্রেজারি চালানের অনুলিপি ব্যাংক উৎসে আদায় ব্যতীত অনাবাসিক ব্যক্তির প্রাপ্য অর্থ প্রেরণ করিবে এবং এইক্ষেত্রে, যথাযথ ট্রেজারি চালান না করিয়া বা প্রদেয় মূসক কম প্রদত্ত হইলে প্রযোজ্য সমূদয় মূসক ব্যাংক উৎসে আদায় করিবে ও ব্যাংক সংশ্লিষ্ট মূসক কমিশনারেটের অর্থনৈতিক কোডে তাহা জমা প্রদান করিবে।

৫। সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষ লাইসেন্স প্রদান বা নবায়নকালে বা ক্ষেত্র বিশেষে, কোনো সুবিধা সৃষ্টিকারী সেবার ক্ষেত্রে উক্তরূপ সুবিধান গ্রহণকারী ব্যক্তির নিকট হইতে প্রাপ্ত সমূদয় অর্থের উপর ১৫ (পনের) শতাংশ হারে উৎসে মূসক আদায় করিবে। এছাড়া, প্রদত্ত লাইসেন্স, রেজিস্ট্রেশন, পারমিটে উল্লিখিত শর্তের আওতায় রাজস্ব বন্টন (Revenue Sharing), রয়্যালটি, কমিশন, চার্জ, ফি বা অন্য কোনো ভাবে প্রাপ্ত সমূদয় অর্থের উপর ১৫ (পনের) শতাশ হারে উৎসে মূসক আদায় করিতে হইবে।

৬। “স্থান ও স্থাপনা ভাড়া গ্রহণকারী” সেবার ক্ষেত্রে ভাড়া গ্রহণকারী কর্তৃক ভাড়ার উপর ১৫ (পনের) শতাংশ হারে সমূদয় মূসক আদায় করিতে হইবে।

৪। যোগানদারের ক্ষেত্রে উৎসে মূসক কর্তৃক।- উৎসে কর্তনকারী কর্তৃক যোগানদার সেবার বিপরীতে উৎসে মূসক কর্তনের ক্ষেত্রে অনুসরণীয়:

ক) “যোগানদার” অর্থ কোটেশন বা দরপত্র বা কার্যাদেশ বা অন্যবিধভাবে কোনো মন্ত্রণালয়, বিভাগ বা দপ্তর, আধা-সরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত কোনো সংস্থা, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোনো প্রতিষ্ঠান, স্থানীয় কর্তৃপক্ষ, পরিষদ বা অনুরূপ কোনো সংস্থা, এনজিও বিষয়ক ব্যুরো বা সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদিত কোনো বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, কোনো ব্যাংক, বীমা কোম্পানি বা অনুরূপ আর্থিক প্রতিষ্ঠান, কোনো মাধ্যমিক বা তদুর্ধ্ব পর্যাায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং কোনো লিমিটেড কোম্পানির নিকট পণের বিনিময়ে অব্যাহতিপ্রাপ্ত সরবরাহ ব্যতীত যে কোনো পন্য বা সেবা বা উভয়ই সরবরাহ করেন এমন কোনো ব্যক্তি , প্রতিষ্ঠান বা সংস্থা। সুতরাং, উৎপাদক, সেবা প্রদানকারী ও ব্যবসায়ী হিসাবে নিবন্ধিত ব্যক্তি ব্যতী অন্য সকল ব্যাক্তি যাহারা অন্য কোন আমদানিকারণ, উৎপাদক, ব্যবসায়ী বা সেবাপ্রদানকারীর নিকট হইতে প্রথম তফসিল দ্বারা অব্যাহতিপ্রাপ্ত নহে এমণ কোনো পন্য বা সেবা ক্রয় বা সংগ্রহ করিয়া উৎসে কর্তনকারী সত্তার নিকট সরবরাহ করে, তাহারা যোগানদার হিসাবে বিবেচিত হইবে। যেই সকল সেবার সুনির্দিষ্ট সংজ্ঞা রহিয়াছে সেই সকল সেবা যোগানদার হিসাবে গণ্য হইবে না;

খ) প্রজ্ঞাপন দ্বারা অব্যাহতিপ্রাপ্ত কোনো পন্য বা সেবা যোগানদার কর্তৃক সরবরাহ প্রদানের ক্ষেত্রে যোগানদার সেবা হিসাবে সরবরাহ গ্রহণকারীকে উৎসে কর্তন করিতে হইবে; তবে প্রজ্ঞাপনে যোগানদার হিসাবে পৃথকভাবে অব্যাহতিপ্রাপ্ত সেবা উক্ত কর্তনের আওতাবর্হিভূত হিসাবে বিবেচিত হইবে; এবং

গ) মূসক আদায়পূর্বক আইনের তৃতীয় তফসিলের টেবিলে উল্লিখিত হ্রাসকৃত হার বা সুনির্দিষ্ট করের পন্যসমূহ উৎপাদনকারী কর্তৃক সরবরাহের ক্ষেত্রে “যোগানদার” সেবার আওতায় উৎসে মূসক কর্তন প্রযোজ্য হইবে না।

৫। যেই সব ক্ষেত্রে উৎসে মূসক কর্তন করিতে হইবে না। -(১) সরবরাহকারী ১৫ (পনের) শতাংশ হারে মূসক আরোপিত রহিয়াছে এইরূপ কোনো পন্য উক্ত হার উল্লেখপূর্বক ফরম মূসক ৬.৩ (কর চালান) এর মাধ্যমে সরবরাহ করিলে সেই ক্ষেত্রে উৎসে মূসক কর্তন করিতে হইবে না।

(২) বিধি (৩) এর উপ-বিধি (২) এ বর্ণিত ছকে উল্লিখিত সেবা ব্যতীত অন্য কোনো সেবার ক্ষেত্রে ফরম মূসক ৬.৩ এর মাধ্যমে সেবা সরবরাহ করিলে উৎসে মূসক কর্তন করিতে হইবে না।

(৩) জ্বালানী তেল, গ্যাস, পানি (ওয়াসা), বিদ্যুৎ, টেলিফোন, মোবাইল ফোন পরিসেবার বিল পরিশোধের ক্ষেত্রে উৎসে মূসক কর্তন করিতে হইবে না।

(৪) আইনের প্রথম তফসিলে উল্লিখিত পন্য বা সেবা বা উভয়ই সরবরাহের ক্ষেত্রে উৎসে মূসক কর্তন করিতে হইবে না।

(৫) মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন, ২০১২ এর ধারা ২১ এর আওতায় শুন্যহার বিশিষ্ট সরবরাহের ক্ষেত্রে উৎসে মূসক কর্তন করিতে হইবে না।

(৬) বিধি (৩) এর উপ-বিধি (২) বর্ণিত ছকে উল্লিখিত বিজ্ঞাপনী সংস্থা এবং টেলিভিশন ও অনলাইন সম্প্রচার মাধ্যমে অনুষ্ঠান শীর্ষক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ রাজস্ব কর্মকর্তা কর্তৃক প্রত্যায়িত ফরম মূসক ৬.৩ প্রদান করিলে উৎসে মূসক কর্তন করিতে হইবে না।

৬। উৎসে মূসক কর্তণকারীর করণীয়।-(১) সরবরাহকারী কর চালানপত্র (ফরম মূসক-৬.৩ ) জারি না করিলে, উৎসে কর কর্তনকারী সত্তা সরবরাহকারীর নিকট হইতে কোনো সরবরাহ গ্রহণ করিবে না এবং সরবরাহকারীকে উক্ত সরবরাহের বিপরীতে কোনো মূল্য পরিশোধ করিবে না। 

(২) উৎসে মূসক কর্তনকারী সত্তা বা সরবরাহগ্রহীতা নিবন্ধিত হইলে-

ক) পণ পরিশোধের ১৫ (পনেরো) দিনের মধ্যে উৎসে কর্তিত মূসক নির্ধারিত অর্থনৈতিক কোডে সরকারি কোষাগারে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে জমা প্রদান করিবেন;

খ) উৎসে কর্তিত মূসক সংশ্লিষ্ট কর মেয়াদের দাখিলপতে বৃদ্ধিকারী সমন্বয় করিবেন ও নিট প্রদেয় করের বিপরীতে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে জমাকৃত উৎসে কর্তিত মূসক সমন্বয়পূর্বক অবশিষ্ট অর্থ, যদি থাকে, নির্ধারিত অর্থনৈতিক কোডে সরকারি কোষাগারে জমা করিবেন;

গ) উৎসে কর্তিত মূসক দফা (ক) অনুযায়ী জমা প্রদানপূর্বক ৩ (তিন) কার্যদিবসের মধ্যে ফরম মূসক ৬.৬ এ তিন প্রস্থে উৎসে কর কর্তন সনদপত্র ইস্যু করিয়া উহার মূলকপি ও ট্রেজারি চালানের মূলকপি সংশ্লিষ্ট মূসক সার্কেলে দাখিল করিবেন, একটি অনুলিপি সরবরাহকারীকে প্রদান করিবেন এবং একটি অনুলিপি ৫ (পাঁচ) বৎসর পর্যন্ত সংরক্ষণ করিবেন।

৩। উৎসে মূসক কর্তনকারী সত্তা বা সরবরাহগ্রহীতা মূসক নিবন্ধিত না হইলে সরবরাহকারীকে পণ পরিশোধের ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে উৎসে কর্তিত মূসক নির্ধারিত অর্থনেতিক কোডে সরকারি কোষাগারে জমা প্রদানপূর্বক ৩ (তিন) কার্যদিবসের মধ্যে ফরম মূসক ৬.৬ এ তিন প্রস্তে উৎসে কর কর্তন সনদপত্র ইস্যু করিয়া উহার মূল কপি ও ট্রেজারি চালানের মূলকপি সংশ্লিষ্ট মূসক সার্কেলে দাখিল করিবেন, একটি অনুলিপি সরবরাহকারীকে প্রদান করিবেন এবং এটি অনুলিপি ৫ (পাঁচ) বৎসর সংরক্ষণ করিবেন।

৪। উৎসে কর্তনকারী উৎসে কর্তিত মূসক জমা প্রদানের জন্য ট্রেজারি চালানে অর্থনৈতিক কোড “১/১১৩৩/উৎসে কর্তনকারীর সংশ্লিষ্ট কমিশনারেটের কোড/ ০৩১১” লিখিতে হইবে। কমিশনারেটের কোডসমূহ হইল: ঢাকা (পূর্ব ০০৩০, ঢাকা (পশ্চিম ০০৩৫, ঢাকা (উত্তর) ০০১৫, ঢাকা (দক্ষিন) ০০১০, চট্টগ্রাম ০০২৫, কুমিল্লা ০০৪০, সিলেট ০০১৮, রাজশাহী ০০২০, রংপুর ০০৪৫, যশোর ০০০৫, এবং খুলনা ০০০১। এলটিইউ (মূসক) কমিশনারেটের অর্থনৈতিক কোড ১/১১৩৩/০০০৬/০৩১১। ট্রেজারি চালানের প্রথম কলামে “যার মারফত প্রদত্ত হইল তার নাম ও ঠিকানা” এর নিম্নে উৎসে কর্তনকারীর নাম, ঠিকানা, মূসক নিবন্ধন নম্বর, যদি থাকে, সার্কেল এবং কমিশনারেটের নাম লিখিতে হইবে। ট্রেজারি চালানের দ্বিতীয় কলামে ” যে ব্যক্তির বা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হইতে টাকা প্রদত্ত হইল তার নাম, পদবি ও ঠিকানা” এর নিম্ন পন্য বা সেবা সরবরাহকারীর নাম, ঠিকানা, মূসক নিবন্ধণ নম্বর, সার্কেল ও কমিশনারেটের নাম লিখিতে হইবে।

৫। উৎসে কর্তনকারী সত্তাসমূহের মধ্যে যে সকল সত্তার লেনদেন বা তৎসংক্রান্ত বিল হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা কর্তৃক নিষ্পত্তি হয়, তাহাদের উৎসে মূল্য সংযোজন কর কর্তন ও তাহা কোষাগারে পরিশোধ সংক্রান্ত কার্যক্রম সংশ্লিষ্ট হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা কর্তৃক

৬। হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা বিল পরিশোধের ৩ (তিন) কার্যদিবসের মধ্যে ফরম মূসক-৬.৬ এ তিন প্রস্থে উৎসে কর কর্তন সনদপত্র ইস্যু করিয়া উহার মূল কপি ও ট্রেজারি চালানের মূল কপি সংশ্লিষ্ট মূসক সার্কেলে দাখিল করিবেন, একটি অনুলিপি সরবরাহকারীকে প্রদান করিবেন এবং একটি অনুলিপি উৎসে মূসক কর্তনকারী সত্তা বা সরবরাহগ্রহীতাকে প্রদান করিবেন যিনি উহা ৫ (পাঁচ) বৎসর পর্যন্ত সংক্ষণ করিবেন।

৭। সুদ, দন্ড ইত্যাদি।-(১) উৎসে কর কর্তন এবং সরকারি কোষোগারে জমা প্রদানের জন্য উৎসে কর কর্তনকারী স্বত্তা এবং সরবরাহকারী যৌথ ও পৃথক ভাবে দায়ী থাকিবে। উৎসে কর্তনের দায়িত্ব থাকা সত্ত্বেও মূসক কর্তন না হইলে উক্ত অর্থ ষান্মাসিক ২% সুদসহ তাহার নিকট হইতে এমনভাবে আদায়যোগ্য হইবে, যেন তিনি পন্য বা সেবা সরবরাহকারী। উৎসে কর্তন করিবার পর সরকারি কোষাগারে যথাসময়ে জমা প্রদান করা না হইলে আইনের ধারা ৮৫ এর উপ-ধারা (১ক) মোতাবেক উৎসে কর্তনকারী ব্যীক্তকে সংশ্লিষ্ট কমিশনার অনধিক ২৫,০০০ (পচিঁশ হাজার) টাকা মাত্র ব্যক্তিগত জরিমানা আরোপ করিতে পারিবেন। উৎসে মূসক কর্তন ও জমাদানে ব্যর্থতার জন্য পন/সেবা সরবরাহকারী এবং গ্রহণকারী উভয়য়ে সমানভাবে দায়ী হইবেন।

 

বিস্তারিত জানতে উৎসে মূল্য সংযোজন কর আদায় বিধিমালা, ২০২১ PDF ফাইল সংগ্রহে রাখাতে পারেন: ডাউনলোড

আরও দেখুন:

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।