পাঁচ কারণে বদলি করা যাবে প্রাথমিকের শিক্ষক (বদলি নীতিমালা)।

যে সকল বিদ্যালয়ে ৪ জন বা তার কম সংখ্যাক শিক্ষক কর্মরত আছেন বা শিক্ষক ছাত্র অনুপাত ১:৪০ এর বেশি রয়েছে, সে সকল বিদ্যালয় থেকে শিক্ষক প্রতিস্থাপন না করা পর্যন্ত সাধারণভাবে শিক্ষক বদলি করা যাবে না।

সারসংক্ষেপ:

  • এক বদলির পর ৩ বছর না হলে দ্বিতীয় বদলি নয়।
  • প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতির পর ২ বছর পর বদলি হওয়া যাবে।
  • চার জনের কম শিক্ষক থাকলে বদলি নয়।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ৩০/১০/২০১৮ খ্রি: ৩৮.০০৮.০২২.০০.০০২.২০১১.৮৫১ নম্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি নির্দেশিকা মোতাবেক বদলি করা হবে।

বদলির সময়কাল: 

সাধারণভাবে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের প্রতি শিক্ষা বছরের জানুয়ারি-মার্চ মাসের মধ্যে একই উপজেলা/থানা, আন্ত:উপজেলা/থানা, আন্ত:জেলা, আন্ত:সিটি কর্পোরেশন ও আন্ত: বিভাগ বদলি করা যাবে।

বদলির কর্তৃপক্ষ:

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তার নিজ অধিক্ষেত্রে একই উপজেলার মধ্যে সংশ্লিষ্ট উপজেলা/থানা শিক্ষা অফিসারের সুপারিশক্রমে সহকারী শিক্ষকদের আন্ত:বিদ্যালয় বদলির অনুমোদন প্রদান করতে পারবেন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের অনুমোদন গ্রহণ পূর্বক উপজেলা/থানা শিক্ষা অফিসার এরূপ বদলির আদেশ জারি করবেন।

বদলির সাধারণ শর্তাবলী:

শিক্ষক বদলির ক্ষেত্রে সিটি কর্পোরেশন ও উপজেলাকে একক ইউনিট হিসেবে বিবেচনা করতে হবে।

সহকারী শিক্ষক পদে চাকরির মেয়াদ ন্যূনতম ২ বছর পূর্ণ হলে এবং পদ শুন্য থাকলে আন্ত:উপজেলা/থানা, আন্ত:সিটি কর্পোরেশন, বদলি করা যাবে।

বৈবাহিক কারণে বদলি:

চাকরি লাভের পর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন এমণ শিক্ষক স্বামী/স্ত্রীর ঠিকানায় বদলি হতে ইচ্ছুক হলে তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে শূন্য পদের বিপরীতে বদলি করা যাবে।

প্রশাসনিক কারণ বদলি:

প্রশাসনিক প্রয়োজনে যে কোন সময় যে কোন শিক্ষককে বদলি করা যাবে।

সমন্বয় বদলি:

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তাঁর নিজ অধিক্ষেত্রে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে একই উপজেলার বিদ্যালয় সমূহের মধ্যে শ্রেণিকক্ষ/শিক্ষক-ছাত্র সংখ্যার অনুপাত শিক্ষকদের সুষম বন্টন নিশ্চিত করার প্রয়োজনে শিক্ষা অফিসারের সাথে আলোচনা, পর্যালোচনা ও সুপারিশের আলোকে বিদ্যালয় ভিত্তিক শিক্ষক সমন্বয় ও বিদ্যালয়ওয়ারী শ্রেণীকক্ষ ও শিক্ষক সংখ্যা নির্ধারণ করে তা উল্লেখ্পূর্বক আদেশ জারি করা যাবে।

সংযুক্তি:

ডিপি ইন এড/সি ইন এড প্রশিক্ষণে এক বা একাধিক শিক্ষকের যোগদানের কারণে কিংবা কোন শিক্ষকের সাময়িক বরখাস্তজনিত শুন্য পদে বা মাতৃত্বকালিনজনিত ছুটির কারণে শিক্ষক স্বল্পতা হেলা কোনো বিদ্যালয়ের পাঠদান বিঘ্নিত হওয়ার কারণে সংযুক্তিতে বদলি করা যাবে।

বিবিধ:

কোনো শিক্ষক চাকুরিরত অবস্থায় জীবনঘাতি ব্যাধিতে আক্রান্ত হলে উক্ত শিক্ষকের চিকিৎসার সুবিধার্থে অন্যত্র বদলি করা যাবে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি নির্দেশিকা-২০১৮ দেখুন: ডাউনলোড

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.