সরকারি কাজে ব্যক্তিগত ই-মেইল ব্যবহার পরিহার করা উচিৎ।

সুষ্ঠুভাবে সরকারি দায়িত্ব পালনের জন্য ইলেক্ট্রনিক যোগাযোগের গোপনীয়তা, জবাবদিহিতা ও কার্যকারিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকার “সরকারি ই-মেইল নীতিমালা-২০১৮” অনুমোদন করেছে।

সারসংক্ষেপ:

  • তথ্য সংরক্ষনের লক্ষ্যে কোন কারণেই পাসওয়ার্ড কারও নিকট প্রকাশ করা যাবে না।
  • gmail or Yahoo সকল ইমেইল ব্যাকআপ রাখে না।
  • হারিয়ে যেতে পারে ইনবক্সে থাকা সকল ইমেইল।
  • সিকিউর সকেট একটিভ থাকেনা তাই হ্যাক হতে পারে আপনার ইমেইল।
  • সরকারি সাভার ব্যবহার করলে সকল দপ্তরে প্রত্যের ইমেইল তালিকা প্রকাশ থাকে তাই সহজেই ইমেইল গ্রহণকারী সনাক্ত করতে পারে।
  • ওয়েব সার্ভার ব্যবহার করে সহজেই নিরাপত্তার সাথে ব্যবহার করা যায়।
  • অযাচিত ইমেইলের ভীড়ে হারিয়ে যায় না প্রয়োজনীয় ফাইল।

তথ্য ও যোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ০৮/০৫/২০১৮ খ্রি: তারিখে ৫৬.০০.০০০০.০২১.২২.১৭.৮৩ নম্বর প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সরকারি ই-মেইল নীতিমালা ২০১৮ প্রকাশ করা হয়েছে।

সুষ্ঠু ভাবে সরকারি দায়িত্ব পালনের জন্য ইলেক্ট্রনিক যোগাযোগের গোপনীয়তা, জবাবদিহিতা ও কার্যকারিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকার ‘সরকারি ই-মেইল নীতিমালা ২০১৮’ অনুমোদন করেছে। ইহা সর্বসাধারণের জ্ঞাতার্থে প্রকাশ করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে প্রজ্ঞাপনের স্বাক্ষর করেছেন উপ সচিব ড. মো: ফজলুর রহমান। 

সরকারি ই-মেইল নীতিমালা ২০১৮ দেখুন: ডাউনলোড

admin

এই ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে বা কোন তথ্য যুক্ত করতে বা সংশোধন করতে চাইলে অথবা কোন আদেশ, গেজেট পেতে এই admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

One thought on “সরকারি কাজে ব্যক্তিগত ই-মেইল ব্যবহার পরিহার করা উচিৎ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.