পাহাড়ি এলাকার জন্য ভ্রমণ ও দৈনিক ভাতা ৪ (চার) গুন।

পাহাড়ি এলাকা বলতে কি বুঝায়?

বান্দর বন, খাগড়াছড়ি, পার্বত্য চট্টগ্রামকে সরকার পাহাড়ি এলাকা হিসাবে ঘোষণা করেছে। পাহাড়ি এলাকায় ভ্রমণ যাত্রা ব্যয় বহুল হওয়ায় সেখানে সরকারি কর্মচারীদের ভ্রমণ তাদের ব্যয়িত অর্থের ০৪ (চার) গুন পরিশোধের নির্দেশ প্রদান করা হলো।

পার্বত্য চট্টগ্রামের ভ্রমণ ভাতা এবং দৈনিক ভাতা (টিএ/ডিএ) এর হার (অ-ব্যয়বহুল স্থানের ভ্রমন ভাতা এবং দৈনিক ভাতা (টিএ/ডিএ)- এর হারের দ্বিগুণ হইবে।

  • সংশ্লিষ্ট দপ্তরের হাল সালের বরাদ্দকৃত বাজেট থেকে মিটাইতে হবে।
  • পরবর্তী পর্যায়ে এই সালের সংশোধনী চূড়ান্তকরণের সময় অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাজেট শাখার সহিত যথাযথ যোগাযোগ করা যাইতে পারে। 

বিস্তারিত জানতে আদেশ দেখুন:

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ০১ লা অক্টোবর ১৯৭৬ খ্রি: তারিখের অর্থ:ম/প্রবি-২/ভাতা-৫৫/৭৬-৩০৫ নং আদেশে বর্ণনা করা হয়েছে পাহাড়ি ভ্রমণ ভাতার ব্যাপারে।

এতদসম্পর্কীয় পূর্বেকার সমস্ত আদেশ বাতিলকরত: সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিয়াছেন, অত:পর পার্বত্য চট্টগ্রামের ভ্রমণ ভাতা এবং দৈনিক (টিএ/ডিএ) এর হার (অ-ব্যয় ব্যয়বহুল স্থানের ভ্রমণ ভাতা এবং দৈনিক ভাতা (টিএ/ডিএ) এর হারের দ্বিগুণ হইবে।

এতদসম্পর্কীয় ব্যয় আপাতত: সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের/ পরিদপ্তরের/ দপ্তরের হাল সালের বরাদ্দকৃত বাজেট থেকে মিটাইতে হইবে। পরবর্তী পর্যায়ে এই সালের সংশোধনী চূড়ান্তকরণের সময় অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাজেট শাখার সহিত যথাযথ যোগাযোগ করা যাইতে পারে।

বর্ণিত সিদ্ধান্ত এই স্মারকলিপি জারির তারিখ হইতে কার্যকরী হইবে।

পার্বত্য চট্টগ্রামের ভ্রমণ ভাতা ও দৈনিক ভাতা (টিএ/ডিএ) চারগুনের আদেশটি JPG কপি সংগ্রহে রাখতে পারেন: ডাউনলোড

Avatar

admin

আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী। ভালবাসি চাকরি সংক্রান্ত বিধি বিধান জানতে ও অন্যকে জানাতে। আমার ব্লগের কোন কন্টেন্ট সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে বা জানাতে ইমেইল করতে পারেন alaminmia.tangail@gmail.com ঠিকানায়। ধন্যবাদ আপনাকে ওয়েবসাইটটি ভিজিট করার জন্য।