সঞ্চয়পত্র একটি সামাজিক আর্থিক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা যে ব্যবস্থায় ব্যবসা বা চাকরি করতে অক্ষম এমন ব্যক্তিগণ সরকারি সঞ্চয়স্কীমের আওতায় মাসিক বা ৩ মাস অন্তর অন্তর মুনাফায় দৈনন্দিন কর্মকান্ড সচল রাখতে পারেন। তাছাড়া ক্ষুদ্র সঞ্চয় অভ্যাস গড়তে দরিদ্র এবং সম্ভবহীন মানুষের জন্য আর্থিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার নামই সঞ্চয়পত্র স্কীম। সঞ্চয়পত্রে বাংলাদেশ সরকার সর্বোচ্চ মুনাফা প্রদানের সুযোগ রেখেছে যা কোন ব্যাংক বা অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান প্রদান করে না। বাংলাদেশ সরকার জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর এর মাধ্যমে সঞ্চয়স্কীমগুলো পরিচালিত হয়। যে কেউ লোকাল সঞ্চয় অধিদপ্তরে গিয়ে সঞ্চয়পত ক্রয় করতে পারে এবং ভাঙ্গাতে পারে। তবে সঞ্চয়পত্র ক্রয়-বিক্রয় আরও সহজ করতে রাষ্ট্রয়াত্ত ব্যাংক ছাড়া বেসরকারি ব্যাংকগুলো মাধ্যমে জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর সঞ্চয়পত্র বিক্রি করছে।

সঞ্চয়পত্র কোথায় পাওয়া যাবে?

সোনালী ব্যাংক এর যে কোন শাখায় সঞ্চয়পত্র পাওয়া যাবে। এছাড়া আমরা সকলেই জানি ডাক বিভাগ পোষ্ট অফিসের মাধ্যমে সঞ্চয়পত্র বিক্রি করে থাকে। এছাড়া বেসরকারি ব্যাংকের কিছু শাখা ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের যে কোন শাখা হতে সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা যায়। মাত্র এক পাতার ফরম পূরণের মাধ্যমে এখন সঞ্চয়পত্র অন্যান্য ব্যাংক ছাড়াও সোনালী ব্যাংকের যে কান শাখা হতে মুহুর্তেই ক্রয় করা যায়। তাই আপনার জমানো মাত্র ১০ হাজার টাকায়ও আপনি সঞ্চয়পত্র ক্রয় করতে পারেন। সঞ্চয়পত্র ক্রয়ে আপনি ১১% পর্যন্ত মুনাফা পেতে পারেন যদি সরকার বর্তমান ৫%-১০% পর্যন্ত উৎসে আয়কর কেটে রাখছে তবুও প্রতি ১ লক্ষ টাকা পারিবারিক সঞ্চয়পত্রের ক্ষেত্রে ৯১২ টাকা মাসিক মুনাফা পাওয়া যায়। ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সঞ্চয়পত্র মুনাফার হার কমানো হয়নি।

সঞ্চয়পত্র ক্রয় করতে কি কি ডকুমেন্ট লাগে?

সঞ্চয়পত্র ক্রয় করতে গ্রাহকের বা ক্রেতার দুই কপি ছবি, এক কপি জাতীয় পরিচয়পত্র ফরম এবং ১ কপি নমিনির ছবি এবং তার জাতীয় পরিচয়পত্র এবং পূরণকৃত ১ পাতার ফরম। এছাড়া আপনার ব্যাংক হিসাবের চেক বইয়ের একটি পাতা যেখানে সঞ্চয়পত্র এমাউন্ট লেখা থাকবে। যদি ২ লক্ষ টাকার অধিক মূল্যে সঞ্চয়পত্র ক্রয় করেন তবে টিন সার্টিফিকেট লাগবে যা আপনি যে কোন কম্পিউটারের দোকান হতে করে নিতে পারেন। আরও বিস্তারিত জানতে এই লিংক ভিজিট করুন: সঞ্চয়পত্র ক্রয় করতে যে সকল ডকুমেন্টস লাগবে।

সোনালী-ব্যাংকের-ওয়াল-পোস্ট-scaled

সর্বনিম্ন কত টাকা এবং সর্বোচ্চ কত টাকা সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা যায়?

নতুন নিয়ম অনুযায়ী একজন ব্যক্তি সব ধরনের সঞ্চয়পত্র মিলিয়ে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারবেন। তবে সর্বনিম্ন ১০ হাজার টাকা সঞ্চয়পত্রও আপনি ক্রয় করতে পারেন। যে কোন সময় এই সঞ্চয়পত্র নগদায়ণ করা যায়। তাছাড়া ব্যাংকের মাধ্যমে সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে সুবিধা হলো আপনি আপনার সঞ্চয়ের মুনাফা প্রতিমাসে বা ৩ মাস অন্তরের ক্ষেত্রে ৩ মাস পর পর আপনার ব্যাংক হিসাবে অটো পেয়ে যাবেন। পূর্বের ডাক ঘরের মাধ্যমে ক্রয়কৃত সঞ্চয়পত্রের মত লাইনে দাড়িয়ে মুনাফা তুলতে হবে না। মাস শেষে আপনার ব্যাংক হিসাব মুনাফা হিট করবে আপনি চাইলে যে কোন সময় চেক বা ডেবিট কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে তুলতে পারেন। তাই সহজ ও নিরাপদ বিনিয়োগের জন্য সঞ্চয়পত্র হতে পারে নির্ভরযোগ্য বিনিয়োগ মাধ্যম।

মুনাফা তুলতে কি লাইনে দাঁড়াতে হবে?

ব্যাংকের মাধ্যমে সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে মুনাফা এবং আসল বিনিয়োগের অর্থ তুলতে আপনাকে লাইনে দাড়িয়ে থাকতে হবে না ঘন্টারপর ঘন্টা। প্রতিমাসে মুনাফা আপনার ব্যাংক হিসাব অটোমেটিক বা স্বয়ংক্রিয়ভাবে জমা হয়ে যাবে। অন্য দিকে সঞ্চয়পত্র ভাঙ্গতে চাই আপনি শুধুমাত্র ব্যাংক চার্জ গুনবেন অতিরিক্ত কোন অর্থ গুনতে হবে না এবং কাউকে তোষামোদ করতে হবে না যদি আপনি বিনিয়োগ ফেরত পেতে পান। সঞ্চয়পত্র ভাঙ্গানোর আবেদন করলে ঐদিন বা পরের দিনের মধ্যে আপনার ব্যাংক হিসাবে আপনার আসল বা বিনিয়োগ জমা হয়ে যাবে। অন্য দিকে মেয়াদ শেষে অটোমেটিক বা স্বয়ংক্রিয়ভাবে মেয়াদান্তের শেষ দিনের পরদিন আপনার ব্যাংক হিসাবে সঞ্চয় এমাউন্ট বা বিনিয়োগ জমা হয়ে যাবে।

অন্য কারও একাউন্ট এ টাকা জমা করে কি আমার নামে সঞ্চয়পত্র কিনতে পারবো?

না। আপনার নামেই ব্যাংক হিসাব থাকতে হবে এবং যদি সঞ্চয় এমাউন্ট ২ লক্ষ টাকার উপরে হয় আপনার নামেই টিন সার্টিফিকেট থাকতে হবে। চেকের মাধ্যমে সঞ্চয়পত্র কিনতে হবে। ব্যাংক নগদ টাকা গননার মাধ্যমে সঞ্চয়পত্র বিক্রি করে না। আপনার নিজ ব্যাংক হিসাবে অর্থ জমা করে MICR চেক বা সাধারন লোকাল চেকের মাধ্যমে সঞ্চয়পত্র কিনতে পারেন। সঞ্চয়পত্র বিক্রির জন্য সোনালী ব্যাংকের বেশি ভাগ ব্রাঞ্চেই আলাদা অফিসার নিয়োগ করা রয়েছে।

সঞ্চয়পত্র মহিলা ও পুরুষদের জন্য আলাদা নাকি?

জি অবশ্যই। সাধারণ মহিলাদের জন্য পারিবার সঞ্চয়পত্র এবং পুরুষদের জন্য ৩ মাস অন্তর মুনাফা সঞ্চয়পত্র প্রযোজ্য। তাছাড়াও পরিবার সঞ্চয়পত্রও পুরুষ কিনতে পারে সে ক্ষেত্রে বয়স ৬৫ বছরের উর্ধ্বে হতে হবে। অন্য দিকে মহিলাগণ পরিবার এবং ৩ মাস অন্তর মুনাফা সঞ্চয়পত্রও ক্রয় করতে পারেন। নতুন নিয়ম অনুযায়ী একজন ব্যক্তি সব ধরনের সঞ্চয়পত্র মিলিয়ে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে তিন মাস অন্তর মুনাফা-ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র এবং পাঁচ বছর মেয়াদী সঞ্চয়পত্রের স্কিমে ৩০ লাখ টাকার বেশি কিনতে পারবেন না।

সঞ্চয়পত্র ফরম কোথায় পাওয়া যাবে?

প্রতিটি সঞ্চয়পত্র বিক্রি করা ব্যাংক গুলো সঞ্চয়পত্র ফরম পাওয়া যাবে। আপনি সঞ্চয়পত্র বিক্রিতে নিয়োজিত অফিসারের সাথে যোগাযোগ করলেই ফরম পেয়ে যাবেন। তাছাড়া আমার দেওয়া লিংক হতেও আপনি সঞ্চয়পত্র ফরম সংগ্রহ করতে পারেন। সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের আবেদন ফরমএক পাতার সঞ্চয়পত্র ফরম।

সঞ্চয়পত্র সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে লিংক ভিজিট করুন: ডাউনলোড

 

ব্যবসা করতে সক্ষম বা যে কোন বিনিয়োগে শ্রম দিতে সক্ষম তাদের জন্য সঞ্চয়পত্র নয়

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 2981 posts and counting. See all posts by admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *