সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল । নিজ ও পরিবারের জন্য বিনামূল্যে মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবা পাওয়া যায়

সরকারি কর্মচারী ও তার পরিবারের জন্য বিনামূল্যে ডাক্তারী সেবা, ঔষুধ, টেস্ট ইত্যাদি সেবা প্রদান করা হয় – প্রতিটি ক্ষেত্রে অন্যান্য সরকারি হাসপাতাল হতে আলাদা বা বিশেষ যত্ন প্রদান করা হয় – সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, ঢাকা।

সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল – ঢাকাস্থ ফুলবাড়িয়ায় অবস্থিত বাংলাদেশ রেলওয়ে হাসপাতালটি ১৯৭৮ সালে সরকারি কর্মচারী হাসপাতালে রূপান্তরিত হয়। স্বল্প পরিসরের এ হাসপাতালে গণকর্মচারীদের আধুনিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত না হওয়ায় আধুনিক উন্নত সকল সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন একটি হাসপাতাল তৈরীর জন্য সরকারি কর্মচারীদের পক্ষ থেকে জোর দাবী উত্থাপিত হয়।

১৯৯৬-২০০১ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় থাকাকালে আধুনিক ও মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকল্পে এ হাসপাতালটিকে আধুনিকায়নসহ ৫০ শয্যা থেকে ১৫০ শয্যায় উন্নীতকরণের প্রতিশ্রুতি দেন। পরবর্তীতে ২০০৯ সালে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর তা বাস্তবায়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পুনরায় নির্দেশনা প্রদান করেন। তার ফলশ্রুতিতে বাংলাদেশ সরকারের নিজ অর্থায়নে ২.০৩ একর জমির উপর ৪৬৭৬.৪৩ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ১৫০ শয্যা বিশিষ্ট উন্নত আধুনিক সকল সুবিধা সম্বলিত সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়েছে। সরকারি কর্মচারীদের চিকিৎসা সংক্রান্ত সাধারণ নির্দেশনা।

সরকারি কর্মচারী হাসপাতালটি সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীগণ ও তাদের পোষ্যদের আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত উন্নততর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে গত ৪ আগষ্ট ২০১৩ তারিখ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় হতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব হস্তান্তর করা হয় এবং ২৮ আগষ্ট ২০১৩ তারিখ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি কর্মচারী হাসপাতালটি শুভ উদ্বোধন করেন। সে প্রেক্ষিতে বর্তমানে হাসপাতালটি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সার্বিক পরিচালিত হচ্ছে। গত ১২ মার্চ ২০১৯ এ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ECNEC এর সভায় সরকারি কর্মচারী হাসপাতালকে ৪ তলা থেকে ১৬ তলা এবং ১৫০ শয্যা থেকে ৫০০ শয্যায় উন্নীতকরনের প্রস্তাব অনুমোদন করেছেন।

নিজ এবং পরিবারের সকল টেস্ট ও সেবা ফ্রিতে পাওয়া যাইবে / কেবিন বরাদ্দের ক্ষেত্রে নবম গ্রেড ও তদূর্ধ্ব গ্রেডের সরকারি কর্মচারী অগ্রাধিকার পাইবে।  

ভি.আই.পি. কেবিন ‘ভি.আই.পি’. পদমর্যাদাধারিগণের জন্য সংরক্ষিত থাকিবে। মানসিকভাবে অসুস্থ, প্রবীণ, শিশু ও মহিলা রোগী এবং জটিল রোগীদের ক্ষেত্রে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অনুমতিসাপেক্ষে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শক্রমে কেবিন সুবিধার উল্লিখিত শর্ত শিথিলযোগ্য হইবে; তবে নির্ধারিত হারে কেবিন ভাড়া প্রযোজ্য হইবে; এবং সরকারি কর্মচারী হাসপাতালে অন্য হাসপাতালের আইসিইউ হইতে রেফারকৃত কোনো সরকারি কর্মচারী অথবা তাহার পরিবারের সদস্যকে চিকিৎসাসুবিধা প্রদানে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় প্রধান অথবা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ প্রয়োজন হইবে।

চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, ঢাকা । কি কি সেবা পাওয়া যায়?

  1. বহির্বিভাগ সেবা-হাসপাতালের বহির্বিভাগ বলতে একটি হাসপাতালের এমন একটি অংশকে বোঝায় যেটিকে হাসপাতালের বহির্বিভাগীয় রোগীদের স্বাস্থ্য সমস্যা বা রোগ নির্ণয়করণ ও চিকিৎসা প্রদানের উদ্দেশ্যে নকশা করা হয়। বহির্বিভাগীয় রোগী বলতে এমন সব রোগীকে বোঝায়, যাদের কোনও শয্যার জন্য বা রাত্রিকালীন সেবা গ্রহণের জন্য হাসপাতালে ভর্তি হবার প্রয়োজন নেই।
  2. অন্তর্বিভাগ সেবা- বহিঃবিভাগ বা জরুরি বিভাগের মাধ্যমে রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর অবস্থা জটিল হলে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার রিপোর্ট প্রাপ্তির পর তা যাচাই করা হয়। যাচাই অন্তে অবস্থা নিয়ন্ত্রণাধীন হলে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করা হয়। আর অবস্থা জটিল হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য উন্নত চিকিৎসালয়ে রেফার করা হয়।
  3. পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র-১। গর্ভবতী সেবা।২. প্রসব সেবা।৩. গর্ভোত্তর সেবা।৪. এম আর সেবা।৫. নবজাতকের সেবা।৬. ৫ বছরের কম বয়সী শিশুদের সেবা।৭. প্রজননতন্ত্রের/ যৌনবাহিত রোগের সেবা।৮. ইপিআই সেবা।৮. ভিটামিন এ ক্যাপসুল বিতরণ। মিসোপ্রেস্টাল টেবলেট বিতরণ।
  4. টিকাদান কেন্দ্র- হেপাটাইটিস বি সহ সব ধরনের টিকা।
  5. যক্ষা রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা কেন্দ্র।
  6. মাতৃদুগ্ধ ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র।
  7. জরায়ুর মুখের ক্যান্সার নির্ণয় ও স্তনের স্ক্রীনিং পরীক্ষা।
  8. সরকারি কর্মকর্তাদের বার্ষিক গোপনীয় প্রতিবেদনের জন্য স্বাস্থ্য পরীক্ষা।

বর্হিবিভাগ কি শুক্র-শনি বন্ধ থাকে?

হাসপাতালের অফিস সময় এবং বহির্বিভাগে সেবা প্রদানের সময় (শনিবার হইতে বৃহস্পতিবার) সকাল ০৮ : ০০ টা হইতে আরম্ভ করিয়া বিকাল ২ : ৩০ টা পর্যন্ত।  শুক্রবারসহ অন্যান্য সরকারি ছুটির দিনে বহির্বিভাগ সেবা বন্ধ থাকিবে, তবে জরুরি বিভাগ এবং অন্তর্বিভাগ সার্বক্ষণিক চালু থাকিবে এবং  সরকারি স্বাস্থ্য সেবাবিষয়ক কর্মসূচি যেমন, ইপিআই, হজসেবা, যক্ষা পরীক্ষা ইত্যাদি সেবামূলক কর্মসূচি বহির্বিভাগে সেবা প্রদানের সময় পালন করা হইবে।

লোকেশন: সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, ফুলবাড়ীয়া, ঢাকা-১০০০। ফোন: +৮৮ ০২ ২২৩৩৮৬৭০৮ ই-মেইল: geh@mopa.gov.bd, geh@hospi.dghs.gov.bd

সরকারী কর্মচারী (চিকিৎসা সুবিধা) বিধিমালা, ১৯৭৪

admin

আমি একজন সরকারী চাকরিজীবি। দীর্ঘ ৮ বছর যাবৎ চাকুরির সুবাদে সরকারি চাকরি বিধি বিধান নিয়ে পড়াশুনা করছি। বিএসআর ব্লগে সরকারি আদেশ, গেজেট, প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্র পোস্ট করা হয়। এ ব্লগের কোন পোস্ট নিয়ে বিস্তারিত জানতে admin@bdservicerules.info ঠিকানায় মেইল করতে পারেন।

admin has 2981 posts and counting. See all posts by admin

2 thoughts on “সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল । নিজ ও পরিবারের জন্য বিনামূল্যে মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবা পাওয়া যায়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *